• বাংলাদেশ-ওয়েস্ট ইন্ডিজ
  • " />

     

    এবার নিউজিল্যান্ড সফর...

    আপাতত দেশের মাটির পালা শেষ। দেশের মাটিতে আপাতত পরের সিরিজ আগামী বছর অক্টোবরে। তার বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সামনে এবার অপেক্ষা করছে বিশ্বকাপসহ বিদেশ সফর। সবার আগে নিউজিল্যান্ড সিরিজ, যেটা পূর্ণাঙ্গ সফর। বাংলাদেশ সেখানে টেস্টও খেলবে তিনটি। সে সিরিজের জন্য পরিকল্পনা এরই মাঝে শুরু করেছেন বাংলাদেশের ক্রিকেট দলের নির্বাচকরা। 

    টেস্টে বাংলাদেশ এ বছর খেলেছে শ্রীলঙ্কা, জিম্বাবুয়ে ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে হোম সিরিজ, শেষ প্রতিপক্ষর বিরুদ্ধে অ্যাওয়ে সিরিজও। ওয়ানডের শুরুতে ছিল জিম্বাবুয়ে ও শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ত্রিদেশীয় সিরিজ। এশিয়া কাপের মতো টুর্নামেন্টও ছিল এবার, বাংলাদেশ যেখানে খেলেছে ফাইনালে। টি-টোয়েন্টিতে নিদাহাস ট্রফির ফাইনাল ছিল উল্লেখযোগ্য দিক, দেশের মাটিতে উইন্ডিজের বিপক্ষে সিরিজ দিয়ে চুকেছে সে পাঠও আপাতত। 

    তিন ফরম্যাট মিলিয়ে এ বছর বাংলাদেশের হয়ে অভিষেক হয়েছে ১৪ জনের। তবে সামনের সিরিজগুলোর জন্য একটা ‘ব্যালান্সড’ দল পাওয়ার আশা করছেন প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন। এ সময়ে ক্রিকেটাররা অনেক পরিণত হয়েছেন বলেও বিশ্বাস তার। 

    “অনেকদিন পর টানা দুইটা সিরিজ খেললাম আমরা দেশের মাটিতে। সব কিছু মিলিয়ে পারফরম্যান্স অবশ্যই সন্তোষজনক। আমরা খুব সন্তুষ্ট যে ‘ইভেন একটা ব্যালান্স’ এসেছে, ব্যাটিং বোলিং ফিল্ডিং সব দিক থেকে। আগামীতে যেই সিরিজ গুলো আছে সেখানে এখানের অভিজ্ঞতা কাজে লাগবে”, বলছেন মিনহাজুল। 

    “নিউজিল্যান্ডের জন্য তো অবশ্যই আমাদের মাথায় আছে। আমরা টিম ম্যানেজমেন্টের সাথে বসে আলাপ করব। আমাদের একটা পরিকল্পনা আছে, আমরা এটা নিয়ে বসব। যেই কন্ডিশনে যেভাবে খেলতে হবে, ওইভাবেই কিন্তু এগুতে হবে। আমাদের মাথায় পরিকল্পনা আছে সেটা নিয়ে কাজ করব। আগামী জানুয়ারির ১৫ তারিখের মধ্যেই আমরা দল ঘোষণা করব।”

    তবে বিপিএল দিয়েই ২০২০ ওয়ার্ল্ড টি-টোয়েন্টির জন্য দল গঠনের প্রক্রিয়াটা শুরু হবে বলেও জানিয়েছেন মিনহাজুল।