• ভারত-অস্ট্রেলিয়া সিরিজ
  • " />

     

    • ভারত-অস্ট্রেলিয়া সিরিজ

    দিল্লীর 'মসনদে' বসে বিশ্বকাপের আগমনী বার্তা দিল অস্ট্রেলিয়া

    ৫ম ওয়ানডে, দিল্লী
    অস্ট্রেলিয়া ২৭২/৯, ৫০ ওভার 
    ভারত ২৩৭ অল-আউট, ৫০ ওভার
    অস্ট্রলিয়া ৩৫ রানে জয়ী সিরিজ ২-০তে জয়ী 


    ৫ ম্যাচের সিরিজে তারা ২-০তে পিছিয়ে ছিল। এরকম অবস্থা থেকে এর আগে সিরিজ জিতেছে ইতিহাসে মাত্র ৪টি দল। সেখান থেকে এই ম্যাচের আগে ২-২। এই ম্যাচেও ১৭৫ রানে ২ উইকেট থেকে তারা ইনিংস শেষ করেছিল ৯ উইকেটে ২৭২ রানে। শেষ দ্বিপক্ষীয় সিরিজ তারা জিতেছে প্রায় ২ বছর আগে। ভারতের বিপক্ষে ভারতের মাটিতে তারা সিরিজ জিতেছিল শেষ প্রায় ১০ বছর আগে। তবে এতো বিরুদ্ধ সমীকরণ আর রেকর্ডকে মুছে দিল অস্ট্রেলিয়া। ২৭২ রান করেও ফিরোজ শাহ কোটলায় ভারতকে তারা হারালো ৩৫ রানে, সিরিজ জিতল ৩-২ ব্যবধানে। অস্ট্রেলিয়া দিল্লীতে দিল বিশ্বকাপের আগমনী বার্তা! 

    এই সিরিজে উসমান খাওয়াজা এসেছিলেন ওয়ানডেতে সেঞ্চুরির কলামে শুন্য নিয়ে। ফিরছেন নামের পাশে দুইটি নিয়ে, যার দ্বিতীয়টি করেছেন আজ। এরপর বোলারদের সমন্বিত পারফরম্যান্সে ভারতকে তারা আটকে দিয়েছে ২৩৭ রানেই। 

    রানতাড়ায় শুরুটা অবশ্য ভাল ছিল না ভারতের, পঞ্চম ওভারেই ফিরেছিলেন শিখর ধাওয়ান। রোহিত শর্মা ও বিরাট কোহলির জুটি এরপর ৫৩ রানের, তবে এরপর আর জুটি বড় করা হয়নি ভারতের ৭ম উইকেটের আগে। কোহলি, ঋশাভ পান্ট ও বিজয় শঙ্কর ফিরেছেন ২০ বা এর আগেই, রবীন্দ্র জাদেজা করেছেন শুন্য।

    কেদার যাদব ও ভুবনেশ্বর কুমারের ৯১ রানের জুটি ভারতকে শেষ আশা দিয়েছিল, তবে ভুবনেশ্বরকে কামিন্স ও যাদবকে রিচার্ডসন ফেরালে ম্যাচ থেকেও ভারতকে ছিটকে দিয়েছে অস্ট্রেলিয়া। ৪৬ রানে ৩ উইকেট নিয়েছেন অ্যাডাম জ্যাম্পা, দুইটি করে নিয়েছেন কামিন্স, রিচার্ডসন ও স্টোইনিস। 

    এর আগে টসে জিতে শুরুটা দৃঢ়ই ছিল অস্ট্রেলিয়ার, অ্যারন ফিঞ্চ ও উসমান খাওয়াজার ৭৬ রানের ওপেনিং জুটিতে। ফিঞ্চ ফিরলেও পিটার হ্যান্ডসকম্বকে নিয়ে ৯৯ রানের জুটি গড়েছেন খাওয়াজা, ১০৬ বলে ঠিক ১০০ রান করে ফিরেছেন ভুবনেশ্বরের বলে ক্যাচ দিয়ে। অস্ট্রেলিয়ার ইনিংসে এরপরই নেমেছে ধস। হ্যান্ডসকম্ব ৫২ করেছেন ৬০ বলে, তবে তার আগেই ১ রানে ফিরেছেন গ্লেন ম্যাক্সওয়েল। 

    স্টোইনিস ও টার্নার শুরু করেছিলেন ভালই, তবে দুজনই আউট হয়েছেন ২০ রান করে। ভুবনেশ্বর কুমার শেষ পর্যন্ত নিয়েছিলেন ৪৮ রানে ৩ উইকেট, ২টি করে নিয়েছিলেন জাদেজা ও মোহাম্মদ শামি। আর শেষদিকে কামিন্স ও রিচার্ডসনের ১৬ বলে ৩৪ রানের জুটিতে একটা ছোটখাট লাফ দিয়েছিল অস্ট্রেলিয়া। 

     

     

    সে লাফটাই যে ভারতকে আগের দুই ম্যাচের মতোই ভড়কে দিবে, তখন কে জানতো!