• ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ
  • " />

     

    উলভসের বিপক্ষেও আর্সেনাল স্কোয়াডে নেই শাকা

    ক্রিস্টাল প্যালেসের বিপক্ষে গত সপ্তাহের ম্যাচে নিজ সমর্থকদের জোর দুয়ো শুনেই মাঠ ছাড়তে হয়েছিল আর্সেনাল অধিনায়ক গ্রানিত শাকাকে। এরপরই শাকাকে আর্সেনালের অধিনায়কের পদ থেকে অপসারণের দাবি তুলেছিল 'গানার' সমর্থকেরা। আর্সেনাল সমর্থকদের সাথে অধিনায়ক শাকার এমন বৈরী সম্পর্কের কারণে অ্যানফিল্ডে লিভারপুলের বিপক্ষে লিগ কাপের ম্যাচে তাকে স্কোয়াডেই রাখেননি ম্যানেজার উনাই এমেরি। লিভারপুলের মত এবার উলভারহ্যাম্পটন ওয়ান্ডারার্সের বিপক্ষেও আর্সেনাল স্কোয়াডে থাকছেন না শাকা, নিশ্চিত করেছেন এমেরি। 

    দল ফর্মে নেই, প্রিমিয়ার লিগের শীর্ষ চারে থাকাই চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়াচ্ছে এমেরির দলের জন্য। এমেরি মনে করেন ক্লাবের এমন সংকটময় সময় সমর্থক এবং ফুটবলারদের মধ্যে সম্পর্কটা ভাল এবং শ্রদ্ধাশীল হওয়া আবশ্যক, "আসলে গত সপ্তাহে গ্রানিতের ঘটনাটি বেশ দুঃখজনক। সমর্থকেরা নিজেদের গাঁটের পয়সা খরচ করে খেলা দেখতে আসেন, পছন্দ না হলে তারা অসন্তোষ প্রকাশ করতে পারেন। কিন্তু সেটা কোনো ফুটবলারকে অসম্মান করে করা উচিত হয়নি। তবে গ্রানিতেরও সমর্থকদের ওভাবে তাতিয়ে দেওয়া ঠিক হয়নি। এরকম কোনো ঘটনা মানসিকভাবে যেকোনো ফুটবলারকে প্রভাবিত করবে।"

     

     

    "আমরা গ্রানিতকে সময় দিচ্ছি, সে দ্রুতই ফুটবলে ফিরবে। এজন্যই উলভসের বিপক্ষে তাকে স্কোয়াডে রাখছি না।" শাকার মত সমর্থকদেরও একতাবদ্ধ থাকার আহবান জানান এমেরি, "আমার মনে হয় ক্লাবের এমন সময়ে আমাদের সবার একসাথে থাকা উচিত। সবার প্রতি শ্রদ্ধাশীল হওয়া উচিত। তাহলে অচিরেই এ ধরণের সমস্যা কাটিয়ে উঠতে পারব আমরা।" এমেরির শাকার ব্যাপারটি খোলাসা করার আগেই অবশ্য ৩০ অক্টোবর আর্সেনালের অফিশিয়াল টুইটারের বরাত দিয়ে নিজের ব্যবহারের কারণ জানিয়েছেন শাকা। জানিয়েছেন, কেন দুয়ো শোনার সময় সমর্থকদের আরও তাতিয়ে দিয়েছিলেন, ব্যবহার করেছিলেন আপত্তিকর ভাষাও।

     

     

    কেন টাচলাইনের কাছাকাছি এসে জার্সি এবং আর্মব্যান্ডও খুলে ফেলে ডাগআউটে না বসে সরাসরি টানেল দিয়ে ড্রেসিংরুমে ফিরে গেছেন তিনি, "প্যালেসের বিপক্ষে মাঠ ছাড়ার সময় ঘটনাটি আমাকে বেশ প্রভাবিত করেছে। আমি আর্সেনালকে ভালবাসি এবং সবসময়ই মাঠে ও মাঠের বাইরে শতভাগ দিয়েছি। কিন্তু সমর্থকেরা আমাকে সেভাবে বুঝতে পারেননি কখনোই। গত সপ্তাহে অনেকে "তোমার পা ভেঙে দিব", "তোমার স্ত্রীকে মেরে ফেলব", "আশা করি তোমার মেয়ের যেন ক্যান্সার হয়"- এরকম আপত্তিজনক মন্তব্য করেছেন  আমার ইন্সটাগ্রামে।"

    "এগুলোর পর আবার ঐদিন মাঠে দুয়ো- সব মিলিয়ে আমি আর নিতে পারছিলাম না এরকম বিরূপ ব্যবহার। এজন্যই আমি ওরকম করেছিলাম মাঠ ছাড়ার সময়, সেটা আমার ঠিক হয়নি। সেজন্য আমি দুঃখিত। আমি চাই আমরা যেন আবারও একে অপরকে শ্রদ্ধা করতে পারি, যেন আর্সেনালের প্রতি ভালবাসায় আবারও একতাবদ্ধ হতে পারি। এভাবেই যেন সামনে এগিয়ে যেতে পারি।"