• ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ
  • " />

     

    টটেনহামের আপিলে উঠে গেলো সনের লাল কার্ড

    এভারটন মিডফিল্ডার আন্দ্রে গোমেজকে করা সেই ফাউলের পর নিজেই কান্নায় ভেঙে পড়েছিলেন টটেনহামের হিউং মিন সন। গোমেজের ভয়াবহ সেই ইনজুরির পর লাল কার্ড দেখে মাঠ ছাড়তে হয়েছিল সনকে। পরবর্তীতে তার এই লাল কার্ড নিয়ে আপিল করে স্পার্স। সেই আপিলের পরেই সবকিছু বিবেচনা করে সনের লাল কার্ড উঠিয়ে নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ইংলিশ ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন। 

    সনের ফাউলের পর সার্জ অরিয়েরের সাথে ধাক্কা লেগে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে পড়ে যান গোমেজ। বেকায়দায় পড়ে গিয়ে ভেঙে যায় তার গোড়ালির হাড্ডি। গোমেজের এই অবস্থা দেখে মাঠেই কান্নায় ভেঙে পড়েন সন। সতীর্থ তো বটেই, সনকে সান্ত্বনা দিয়েছেন এভারটনের ফুটবলাররাও। প্রথমে সনকে হলুদ কার্ড দেখান রেফারি মার্টিন অ্যাটকিনসন। পরে ভিএআরের সাহায্য নিয়ে লাল কার্ড দেখানো হয় সনকে। কাঁদতে কাঁদতেই মাঠ ছাড়েন সন। 

    গোমেজের ভাঙা পা দেখে কান্নায় ভেঙে পড়েন সন

     

    সনের এই লাল কার্ড নিয়ে ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনের কাছে আপিল করেছিল টটেনহাম। তাদের আপিল আমলে নিয়ে সনের লাল কার্ড তুলে নিয়েছে অ্যাসোসিয়েশন, ‘সনকে লাল কার্ড দেখানো হয়েছিল গোমেজকে বাজেভাবে ফাউলের জন্য। কিন্তু গোমেজের সাথে যা হয়েছে সন সেটার জন্য সরাসরি দায়ী নয়।’ 

    এদিকে টটেনহাম কোচ মাউরিসিও পচেত্তিনো আশাবাদী, গোমেজের ঐ ঘটনা পেছনে ফেলে রেড স্টার বেলগ্রেডের বিপক্ষে মাঠে নামবেন সন, ‘ঐ ঘটনার পর সন পুরোপুরি ভেঙে পড়েছিল। ইনজুরি, লাল কার্ড, ম্যাচের অবস্থা; সব মিলিয়ে একটা ভয়াবহ পরিস্থিতির তৈরি হয়েছিল। এর মাঝে কয়েকদিন কেটে গেছে। সন সবার কাছে ক্ষমা চেয়েছি, সেও এখন মাঠে নামার জন্য প্রস্তুত। আমি জানতাম তার লাল কার্ডটা উঠে যাবে। রেফারি অন্য সবার মতোই কিছুটা দ্বিধায় ভুগছিলেন।’