• অস্ট্রেলিয়া-পাকিস্তান সিরিজ
  • " />

     

    বিশ্বকাপ ফাইনালের সেই ভুল ফিরে এলো অ্যাডিলেডে?

    বিশ্বকাপ ফাইনাল। মার্টিন গাপটিলের থ্রো। বেন স্টোকসের ডাইভ। ওভারথ্রো। ৬ রান। ক্রিকেট ইতিহাসে ঢুকে যাওয়া এক ঘটনা। সেই ঘটনার সঙ্গে মিশে ছিল বিতর্কও। শেষ পর্যন্ত আইসিসি স্বীকারও করেছিল, ভুল হয়েছিল আম্পায়ারদের। আদতে সেই বলে ইংল্যান্ডের পাওয়ার কথা ছিল ৫ রান, আম্পায়াররা তাদের দিয়েছিলেন ৬ রান। পরে সুপার-ওভারও টাই হয়ে যাওয়ার পর বাউন্ডারি গণনায় বিশ্বকাপ জিতেছিল ইংল্যান্ড। 

    বাউন্ডারি গণনার সে নিয়ম এরই মাঝে বদলে গেছে। ওভারথ্রোয়ের ওই নিয়ম কি বদলাবে? না বদলালে চলতেই থাকবে এমন বিতর্ক। অ্যাডিলেডে অস্ট্রেলিয়া-পাকিস্তান দ্বিতীয় টেস্টের প্রথম দিন  বিশ্বকাপ ফাইনালের মতো অমন তাৎপর্যপূর্ণ না হলেও ঘটেছে একইরকম ঘটনা।  

    ম্যাচের ২৪তম ওভারে শাহিন শাহ আফ্রিদির ওভারথ্রো হয়ে গিয়েছিল চার, সে সময় ডাবলসের জন্য দৌড়াচ্ছিলেন ডেভিড ওয়ার্নার ও মারনাস ল্যাবুশেন। সেটিতে আম্পায়াররা ওয়ার্নারকে দিয়েছেন ৬ রান, যার ফলে ফিফটিও হয়ে গেছে এই বাঁহাতির। তবে আইন অনুযায়ী, এক্ষেত্রেও ৫ রান পাওয়ার কথা ওয়ার্নারের। 
     


    সেই ওভারথ্রোয়ের পর বেন স্টোকস


    এমসিসির ক্রিকেট আইন বলে, ওভারথ্রোয়ের ক্ষেত্রে ফিল্ডারের থ্রোয়ের মুহুর্তে ব্যাটসম্যানরা একে অপরকে অতিক্রম করলে সেই রানটি যুক্ত হবে সম্পন্ন রানের সঙ্গে। ইএসপিএনক্রিকইনফো বলছে, ম্যাচ ফুটেজে আফ্রিদির থ্রোয়ের সময় একে অপরকে অতিক্রম করার ক্ষেত্রে বেশ দূরে ছিলেন ওয়ার্নার ও মারনাস ল্যাবুশেন। 

    তবে একই সঙ্গে ফিল্ডারের থ্রো এবং ব্যাটসম্যানদের একে-অপরকে অতিক্রম করার ব্যাপারটি এতো দূরত্বে থেকে আম্পায়ারদের পক্ষে কীভাবে যাচাই করা সম্ভব- প্রশ্ন উঠে গেছে সেটি নিয়েও। এমনিতে একটি রানের সময় শর্ট রান, রান-আউট, ব্যাটসম্যানদের রানিং বিটুইন দ্য উইকেট খেয়াল করতে হয় আম্পায়ারদের। 

    সেক্ষেত্রে প্রযুক্তির সহায়তা নেওয়া কিংবা আইনে পরিবর্তন হবে কিনা- সে আলোচনা হতেই পারে। 

    এ সিরিজে আলোচনায় এসেছে বোলারদের ফ্রন্ট-ফুট নো বলের ব্যাপারটিও। ডিআরএসের প্রভাবে আম্পায়াররা এখন প্রায়ই এড়িয়ে যান এসব নো-বল, যদি না কোনও ব্যাটসম্যান আউট হন। সেক্ষেত্রে টিভি আম্পায়ারের সহায়তা নেন তারা। 

    অস্ট্রেলিয়া-পাকিস্তানের প্রথম টেস্টের ১ দিনের ২ সেশনে এমন ২১টি নো-বল আম্পায়াররা এড়িয়ে গিয়েছিলেন বলে জানিয়েছিল ব্রডকাস্টার কোম্পানি। নো-বল দেখার ক্ষেত্রে টিভি আম্পায়ারের সহায়তা নেওয়ার আলোচনায় জোরালো হয়েছে।