• ভারতের ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফর
  • " />

     

    রাহুল-রোহিতদের ঝড়ের পর ভাইজাগে কুলদিপের হ্যাটট্রিক

    ভারত ৫০ ওভারে ৩৮৭/৫

    ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৪৩.৩ ওভারে ২৮০ অলআউট

    ফলঃ ভারত ১০৭ রানে জয়ী


    খানিকটা চাপেই ছিল ভারত। প্রশ্নবিদ্ধ ছিল ওয়ানডে ব্যাটিং, ব্যাটসম্যানরা কেন আগ্রাসী হচ্ছেন না আরও প্রশ্ন উঠছিল তা নিয়ে। ব্যাটসম্যানরা এক হয়ে সব প্রশ্নের জবাব দেওয়ার জন্য আজ বেছে নিলেন ভাইজাগকে। আর তাতেই ওয়েস্ট ইন্ডিজ হেরে গেল ১০৭ রানে, সিরিজে এলো ১-১ সমতা। ১৫৯ রানের ইনিংসের জন্য রোহিত শর্মা ম্যাচসেরা হয়েছেন বটে, তবে আরেকটি ওয়ানডে হ্যাটট্রিক করে শেষ পর্যন্ত আলো কুলদীপ যাদবের ওপরেই।

    লোকেশ রাহুল আর রোহিত শর্মা দারুণ শুরু এনে দিয়েছিলেন ভারতকে। রাহুলই একটু বেশি আক্রমণাত্মক ছিলেন, ৪৬ বলে পেয়েছিলেন ফিফটি। রোহিত ৬৭ বলে করেছিলেন, ভারতের রান অবশ্য উঠছিল তরতর করে। তবে ফিফটির পরেই রোহিত আরও বেশি আগ্রাসী, পরের ফিফটির জন্য লাগল মাত্র ৪০ বল। ১০৭ বলে সেঞ্চুরি করে রোহিতই আগে পৌঁছালেন তিন অংকে। খানিক পর ১০২ বলে সেঞ্চুরি হয়ে গেল রাহুলেরও। এরপরেই আলজারি জোসেফের বলে ক্যাচ দিলেন চেজকে, সেই ১০২ রানেই।

    এরপরেই ভাইজাগকে হজম করতে হয়েছে একটা ভালো ধাক্কা। কাইরন পোলার্ডের অফ স্টাম্পের বাইরের স্লোয়ারটা মারতে গিয়ে টপ এজে ক্যাচ দিলেন কোহলি, মুখোমুখি প্রথম বলেই আউট। তবে জোড়া আউটের ধকলটা টের পেতে দেননি রোহিত আর শ্রেয়াস আইয়ার। রোহিত এরপর আরও বেশি উত্তাল, ওদিকে রস্টন চেজের এক ওভার থেকে ৩১ রান নিয়ে নিয়েছেন আইয়ার। রোহিত মনে হচ্ছিল ডাবল সেঞ্চুরিও পেয়ে যেতে পারেন। শেষ পর্যন্ত ১৩৮ বলে ১৫৯ রান করে আউট হয়েছেন কটরেলের বলে। ঋশভ পান্ট পরিস্থিতির দাবি মিটিয়ে ১৬ বলে ৩৯ রানের একটা ঝড় তুলেছেন। আইয়ার করেছেন ৫২, শেষ পর্যন্ত ৩৮৭ রান পর্যন্ত গিয়েছে ভারত।

    এই রান তাড়া করতে নেমে ওয়েস্ট ইন্ডিজেরও একটা দুর্দান্ত শুরুর দরকার ছিল। এভিন লুইস ও শেই হোপ প্রথম পাওয়ারপ্লে পর্যন্ত টিকে ছিলেন, ৬০ রানও তুলে ফেলেছিলেন। এরপরেই শার্দুল ঠাকুরের বলে ৩০ রানে আউট লুইস। হেটমেয়ার কিছু করার আগেই ৪ রানে হয়ে গেছেন রান আউট, চেজও সেই ৪ রানেই জাদেজার বলে হয়ে গেছেন বোল্ড। ৮৬ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ম্যাচ থেকে প্রায় ছিটকে পড়ছে। এরপরেই হোপ আর পুরানের ব্যাটে শুরু হলো পালটা আক্রমণ। মাত্র ১৩.২ ওভারে দুজন তুলে ফেলেছিলেন ১০৬ রান। কিন্তু ছয়টি ছয় মারার পর পুরানকে ফেরাতে এলেন শামি, লং লেগে কুলদীপকে ক্যাচ দিয়ে আউট হলেন ৪৭ বলে ৭৬ রান করা পুরান। পরের বলেই পোলার্ড আউট, ওয়ানডে ইতিহাসে এই প্রথম দুই দলের অধিনায়ক পেলেন গোল্ডেন ডাক। হোপকে ৭৮ রানে ফেরালেন কুলদীপ, ওয়েস্ট ইন্ডিজের ম্যাচটাও ওখানেই প্রায় শেষ। তবে চমকের বাকি ছিল আরও। পরের বলটা ক্রিজ ছেড়ে বেরিয়ে খেলতে গিয়ে স্টাম্পড হোল্ডার। হ্যাটট্রিক বলে মুখোমুখি জোসেফ, লেগ সাইডে খেলতে গিয়ে ক্যাচ দিলেন দ্বিতীয় স্লিপে। দ্বিতীয় আন্তর্জাতিক হ্যাটট্রিক হলো কুলদিপের, ভারতের হয়ে যে কীর্তি প্রথম। কিমু পল এরপর ৪৬ রান করেছিলেন, তবে সেটা হারের ব্যবধানই শুধু কমিয়েছে।