• ইংল্যান্ডের দক্ষিণ আফ্রিকা সফর
  • " />

     

    চার দিনের টেস্টের বিপক্ষে তারাও

    প্রস্তাবিত চার দিনের টেস্টের বিপক্ষে মত জানিয়েছেন মিকি আর্থার, মাহেলা জয়াবর্ধনে, রবি শাস্ত্রি, ক্রিস গেইল। টেস্ট ক্রিকেটের চ্যালেঞ্জ ধরে রাখতে এই ফরম্যাট নিয়ে নড়াচড়া করা ঠিক নয় বলেও মত তাদের। আর চারদিনের টেস্ট আয়োজন কেন এবং এ থেকে ক্রিকেটাররা কেমন সুবিধা পাবেন- সেটি জানার আগ পর্যন্ত এমন প্রস্তাবের বিপক্ষে মত দিয়েছে ক্রিকেটারদের আন্তর্জাতিক সংস্থা ফিকা। 

    ২০২৩ সালের পরের সাইকেলে আইসিসি ওয়ার্ল্ড টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের টেস্টগুলি চারদিনের বাধ্যতামূলক করা হবে, এমন সংবাদ আসার পর থেকেই শুরু হয়েছে এ নিয়ে আলোচনা। আইসিসির এফটিপিতে চারদিনের টেস্ট হলে বেশ কিছু জায়গা খালি হবে, মূলত এমন ভাবনা থেকেই চার দিনের টেস্টের প্রস্তাব এ বছরের পরেরভাগে আইসিসির বোর্ড মিটিংয়ে তুলে ধরা হবে বলে জানা গেছে। 

    তবে টেস্ট ক্রিকেটকে পাঁচ দিন থেকে কমিয়ে আনার কোনও অর্থ দেখছেন না শ্রীলঙ্কার কোচ আর্থার, “টেস্ট ক্রিকেট চ্যালেঞ্জ জানায়- মানসিকভাবে, শারীরিক দিক দিয়ে, টেকনিক্যাল দিক দিয়ে। আমরা পঞ্চম দিনে গিয়ে অনেক ভাল টেস্ট ম্যাচ দেখেছি।” 

    আর্থার তুলে এনেছেন আরেকটি দিকও, “আমরা আর্থিক ব্যাপারে আলোচনা করতে পারি। তবে টেস্ট ক্রিকেটের এই কাঠামো এলোমেলো করার মানে হয় না। পঞ্চম দিনে আপনি উইকেট ভেঙে যাক, সেটি চাইবেন, থ্রিলার চাইবেন, অনেক রোমাঞ্চকর ড্র দেখেছি আমরা। নিঃসন্দেহে পাঁচ দিনের টেস্টই চালিয়ে যাওয়া উচিৎ বলে আমি মনে করি।” 

    আর্থারের মতো ক্রিকেট কমিটির আরেক সদস্য ও সাবেক শ্রীলঙ্কা অধিনায়ক মাহেলা জয়াবর্ধনে বলেছেন, “আমরা মিটিংয়ে এটি নিয়ে আলোচনা করব, আমি জানি না এরপর কী হবে। তবে আমার ব্যক্তিগত মত হচ্ছে এটা পাঁচ দিনেই থাকা উচিৎ। আমি পরিবর্তন চাই না এখানে।” 

    ভারতের কোচ শাস্ত্রি চারদিনের টেস্টকে অর্থহীন বলে দিয়েছেন একটা প্রস্তাবও, “এমন হলে আমরা হয়তো সীমিত ওভারের টেস্টও দেখব। পাঁচ দিনের টেস্টকে বদলানোর মানে হয় না। শীর্ষ ছয় দলকে পাঁচ দিনের টেস্ট খেলতে দিন, পরের ছয়টি দলকে চার দিনের টেস্টের অনুমতি দিন। যদি টেস্ট ক্রিকেটকে বাঁচিয়ে রাখতে চান, তাহলে শীর্ষ ছয় দলকে একে অপরের বিপক্ষে বেশি খেলতে হবে। জনপ্রিয়তা বাড়ানোর জন্য তো সীমিত ওভারের ক্রিকেট আছেই।” 

    আর গেইল  বলছেন, “আমি ১০০ টেস্ট খেলেছি, হ্যাঁ, কিছু হয়তো তিন-চারদিনে শেষ হয়ে গেছে। তবে টেস্ট ক্রিকেট হচ্ছে সবকিছুর ওপরে, চারদিনের টেস্টের ব্যাপারটা ঠিক পছন্দ নয় আমার। পাঁচদিনেই হয়ে আসছে, এবং এটা এমনই হতে দেওয়া উচিৎ।” 

    এর আগে চারদিনের টেস্টের বিপক্ষে মত দিয়েছেন বিরাট কোহলি, বেন স্টোকস, টিম পেইন, ভারনন ফিল্যান্ডারের মতো ক্রিকেটাররা।