• ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ
  • " />

     

    মুশফিক না থাকায় ব্যাটিং অর্ডারে রদবদল দেখেছেন ডমিঙ্গো

    প্রথম দিনের অনুশীলনে নেই তিন জন। মাহেদী হাসানের মা গুরুতর অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে, আপাতত ছুটি নিয়েছেন তিনি। মাহমুদউল্লাহ অসুস্থ, আর নাজমুল হোসেন শান্ত কেন নেই সেটা নিশ্চিত করে বলা যায়নি। তবে বাকিদের সবার উপস্থিতিতে পাকিস্তান সফরের প্রথম দিনের ক্যাম্পটা  বেশ গমগমেই হলো। তবে এতজনের মধ্যেও নেই মুশফিকুর রহিম, পাকিস্তান সিরিজ থেকে যে নিজের নাম উঠিয়ে নিয়েছেন। কোচ রাসেল ডমিঙ্গো মানছেন, মুশফিকের না থাকায় কিছুটা অদল বদল হতে পারে।

    মুশফিক আগেই জানিয়েছিলেন, এবার পাকিস্তান সফরে যাচ্ছেন না তিনি। সেই সিদ্ধান্তকে সম্মান জানাচ্ছেন ডমিঙ্গো, ‘আমি ওর সঙ্গে কথা বলেছি। এটা তার সিদ্ধান্ত সেখানে না যাওয়ার । আমাদের তো এটাকে সম্মান জানাতেই হবে। সে আমার মতোই পরিবারের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ একজন মানুষ। অবশ্যই ওকে আমরা অনেক মিস করব। সে আমাদের সেরা খেলোয়াড়দের একজন। ভারতের বিপক্ষেও সে অনেক ভালো করেছে। তবে এখন অন্য কারও জন্য এটা একটা সুযোগ। কারও জন্য খেলা তো আর থেমে থাকবে না। একদিন মুশফিক থাকবে না, তার জায়গা তো অন্য কাউকে নিতেই হবে।’

    চার নম্বরে মুশফিক ছিলেন অটোমেটিক চয়েস। এখন মুশফিকের অবর্তমানে মিডল অর্ডারে কে খেলবেন? ১৫ জনের স্কোয়াডে অবশ্য ওপেনারদেরই আধিক্য। তামিম, লিটন, নাঈম ছাড়াও আছেন শান্ত। সৌম্যও আছেন, যদিও বিপিএলে সৌম্য ব্যাট করেছেন নিচের দিকে। তবে ডমিঙ্গো আভাস দিলেন, মুশফিক না থাকায় ব্যাটিং অর্ডারে বেশ কিছু অদল বদল হতে পারে, ‘সৌম্যের মতো কেউ তিন নম্বরে ব্যাট করেছে ভারতে। সে হয়তো পাকিস্তানে ছয় নম্বরে ব্যাট করতে পারে। রিয়াদ ব্যাট করতে পারে পাঁচ নম্বরে। আফিফ তিন বা চারে আসতে পারে। শান্তও ব্যাটিং অর্ডারে অন্যদিকে যেতে পারে।’

    ডমিঙ্গোর ব্যাখ্যা, একজন ভালো ক্রিকেটার যে কোনো জায়গায় নিজেকে মানিয়ে নিতে পারবেন, ‘সেরা খেলোয়াড়েরা যে কোনো কন্ডিশনে, যে কোনো পজিশনে খেলতে পারে। আপনি মরগানকে তিন বা ছয়ে নামান, সে সফল হবে। উইলিয়ামসনকে তিন বা পাঁচে নামান, ও একট উপায় বের করে নেবে। নতুন খেলোয়াড়দের জন্য এটা একটা সুযোগ। আমি তো বেশ রোমাঞ্চিত। লিটন কখনো কখনো চারে ব্যাট করতে পারে। আবার মিঠুন যদি তিনে ব্যাট করে, সেটাও ঠিক আছে। আফিফকে যদি ছয় থেকে ওপেনিংয়ে নিয়ে আসতে হয় তাহলে ওকেও বেশ কিছু জিনিস শিখতে হবে।’