• ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ
  • " />

     

    আরেকটি 'ভিএআরময়' ম্যাচে চেলসিকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়নস লিগের আশা বাঁচিয়ে রাখল ইউনাইটেড

    ফুলটাইম
    চেলসি ০-২ ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড


    জয়টা খুব করেই দরকার ছিল ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের, সেটা চ্যাম্পিয়নস লিগে খেলার ক্ষীণ আশা বাঁচিয়ে রাখার জন্যই। ওল্ড ট্রাফোর্ডে মৌসুমের প্রথম দিনে হারিয়েছিল চেলসিকে, এবার স্টামফোর্ড ব্রিজে এসে আবার হারাল তাদের। তবে ইউনাইটেডের ২-০ গোলের জয়ে আবার আলোচনায় ভিএআর। চেলসি কোচ ফ্রাংক ল্যাম্পার্ড যে অভিযোগ করেই বসেছেন, তাদের জয় একরকম ছিনতাই করা হয়েছে।



    সেই অভিযোগ কতটা ঠিক তা নিয়ে তর্ক হতে পারে, তবে ম্যাচের শুরুটা যে চেলসিই দারুণ করেছিল তাতে সন্দেহ নেই। প্রথমার্ধে মিশি বাতশুইর শট একটুর জন্য চলে যায় পোস্ট ঘেঁষে। তবে ইউনাইটেডের সৌভাগ্য হোক বা চেলসির দুর্ভাগ্যই হোক, সেটার শুরুও প্রথমার্ধে। শুরুতে এনগোলো কান্তে চোট পেয়ে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে মাঠ ছেড়ে বেরিয়ে গেছেন, সেটা ছিল চেলসির একটা ধাক্কা। প্রথমার্ধেই আবার হ্যারি ম্যাগুইরে বাতশুইকে বুট দিয়ে মাড়িয়ে দিয়েছেন। আগ্রাসী সেই ট্যাকলের জন্য লাল কার্ডও দেখতে পারতেন ম্যাগুইরে। কিন্তু রেফারি দেননি, এড়িয়ে গেছে ভিএআরও। ল্যাম্পার্ড ম্যাচ শেষে মূলত খেপেছেন এই ফাউলের জন্যই। প্রথমার্ধে চেলসিই আক্রমণ করছিল বেশি, ইউনাইটেড ঠিক সুবিধা করতে পারছিল না। তবে প্রথমার্ধের একদম শেষে এসে খেলার ধারার বিপরীতে গোল পেয়ে যায় ইউনাইটেড। ডান দিক থেকে বল পেয়ে একটু কাট করে দারুণ একটা ক্রস হাওয়ায় ভাসিয়েছিলেন ইউনাইটেড রাইটব্যাক অ্যারন-ওয়ান বিসাকা। অ্যান্থনি মার্শিয়াল লাফিয়ে উঠে মাথার একপাশ দিয়ে দুর্দান্ত এক হেডে বল জড়িয়ে দেন জালে। 

    দ্বিতীয়ার্ধের ১১ মিনিটে গোলটা পেয়েই যায় চেলসি। হেড থেকে গোল করে সমতা ফেরান কার্ট জুমা। কিন্তু ভিএআরে বাতিল হয়ে যায় গোল, তাতে দেখা যায় গোলের আগে ব্রেন্ডন উইলিয়ামসকে ফাউল করেছিলেন সেজার আজপিলিকুয়েতা। যদিও তার আগে ফ্রেডের সাথে চেলসির খেলোয়াড়দের ধাক্কাধাক্কি নজর এড়িয়ে যায় ভিএআরের।

    চেলসির কফিনে শেষ পেরেকটি ঢুকে যায় ৬৬ মিনিটে। এবার কর্নার থেকে হেড করে গোল করে ম্যাগুইরে, প্রথমার্ধে যিনি লাল কার্ড দেখে মাঠ ছাড়তে পারতেন। এরপরও সুযোগ পেয়েছিল চেলসি, গোল করেছিলেন অলিভিয়ের জিরু। কিন্তু এবারও ভিএআরের হস্তক্ষেপ, ইঞ্চির ব্যবধানে অফসাইডে থাকায় বাতিল হয়ে যায় গোল। 

    শেষ পর্যন্ত ২-০ গোলের জয় নিয়েই মাঠ ছেড়েছে ইউনাইটেড। ওলে গানার সোলশারের দলের খেলা যেমনই হোক, বিগ সিক্সের বিপক্ষে এই মৌসুমে পেলেন আরও একটি জয়। আর হোম আর অ্যাওয়ে চেলসিকে একই মৌসুমে লিগে হারানোর স্বাদও ভুলে গিয়েছিল ইউনাইটেড, সেটা পেল প্রায় ৩২ বছর পর। আর চেয়েও বড় লাভ, চ্যাম্পিয়নস লিগ খেলার আশা এখন বেঁচে আছে ভালোমতোই। ২৬ ম্যাচে ৪১ পয়েন্ট নিয়ে চেলসি আছে চারে। সমান ম্যাচে ইউনাইটেডের পয়েন্ট ৩৮, তারা আছে সাতে। ৩৯ পয়েন্ট নিয়ে ছয়ে শেফিল্ড, ৪০ পয়েন্ট নিয়ে পাঁচে টটেনহাম।