• ফ্রেঞ্চ লিগ ওয়ান
  • " />
    X
    GO11IPL2020

     

    পিএসজির ইনজুরি অভিশাপ: রেনের সঙ্গে জয়ে হারাল আরও তিন জনকে

    ম্যাচ শুরুর আগে পিএসজি কোচ টমাস টুখল অসহায় কন্ঠে বলছিলেন, একাদশ নামাতেই হিমশিম খাচ্ছেন। রেনের সঙ্গে কোনোমতে একাদশ নাময়েছেন, সেই ম্যাচটা ৩-০ গোলে জিতে ফ্রেঞ্চ লিগে সবার ওপরেও আছে পিএসজি; কিন্তু চোটের অভিশাপ কাটেনি। কাল ময়জে কিন, থিলো কেহরার ও ইদ্রিস গায়ে এই তিন জন নতুন করে ইনজুরড হয়েছেন। সব মিলে পিএসজির ১২ জন খেলোয়াড় এখন ইনজুরিতে মাঠের বাইরে। 

    কালকের ম্যাচে অবশ্য নায়ক ছিলেন আনহেল ডি মারিয়া। ১১ মিনিতে তার পাস থেকেই বল পেয়ে এগিয়ে দেন ময়জে কিন। এভারটন থেকে ধারে এসে বেঞ্চে বসে ছিলেন, অন্যদের ইনজুরুইতে সুযোগ পেয়ে গত কয়েক ম্যাচে নিজেকে চেনাচ্ছিলেন। কালকের গোলটা গত চার ম্যাচে তার তৃতীয় গোল। এরপরের মঞ্চটা ডি মারিয়ার। ২১ মিনিতে দুর্দান্ত এক লবে ব্যবধান বাড়িয়েছেন। কিন্তু এরপর শুরু হয়েছে ইনজুরির মিছিল। ইদ্রিস গায়ে চোট পেয়ে মাঠ ছেড়েছেন, এরপর উঠে গেছেন ফুলব্যাক কেহরার। মড়ার ওপর খাড়াড় ঘার মতো প্রথমার্ধের পর খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে মাঠ ছেড়েছেন কিন। এরপরও অবশ্য খেলার ধারার বিপরীতে আরেকটা গোল করে জয় পুরোপুরি নিশ্চিত করেছেন ডি মারিয়া। 

    তবে পিএসজির ইনজুরি মিছিল বাড়ছেই। আগে থেকেই বাইরে ছিলেন নেইমার, এমবাপে, ইকার্দি, কিমপেম্বে, পারেদেস, ভেরাত্তি, ড্রাক্সলার, বারনাট, সারাবিয়া। এবার যোগ হলেন নতুন তিন জন। বলতে গেলে স্বীকৃত কোনো স্ট্রাইকারই নেই এখন টুখলের। সামনে অবশ্য আন্তর্জাতিক বিরতি শুরু হচ্ছে, ২০ নভেম্বরের আগে আর মাঠে নামতে হবে না পিএসজিকে। তবে এরপরও কজন ফিট হবেন, সেটা জানেন না টুখল। 

    কাল ম্যাচ শেষে টানা খেলাকেই এই ইনজুরির জন্য দায়ী করলেন, 'গত ২২ দিনে ৮টা ম্যাচ খেলতে হয়েছে আমাদের। রিকভারির সুযোগও পাচ্ছে না খেলোয়াড়েরা। ম্যাচের পর সেরে ওঠার জন্য তো কিছু সময় দরকার। আমাদের পরের ম্যাচ শুক্রবার। অথচ জাতীয় দল থেকে এসে কিছু খেলোয়াড় যোগ দেবে বুধ বা বৃহস্পতিবার। তাদের বিশ্রাম নেওয়ারও সময় হচ্ছে না। সব মিলে আমি চিন্তিত। আমি জানি না আন্তর্জাতিক বিরতি শেষে কজনকে ফিরে পাব।'

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন