• ইংল্যান্ড-পাকিস্তান
  • " />
    X
    GO11IPL2020

     

    ইংল্যান্ডের দিনে ইংল্যান্ডেরই 'ফলো-অন' বিতর্ক!

    ফলো-অনে পড়েও ম্যাচ জেতার ঘটনা ইতিহাসে আছে তিনটা। তিনবারই পরাজিত দলের নাম অস্ট্রেলিয়া, মানে প্রতিপক্ষকে ফলো-অন করিয়েও ম্যাচ হেরেছে ওই এক দলই। ১৮৯৪-৯৫ সালে জ্যাক ব্ল্যাকহামের অস্ট্রেলিয়ার লিড ছিল ২৬১ রানের, ফলো-অনে পড়ে দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করে অ্যান্ড্রু স্টোডার্টের ইংল্যান্ড জিতেছিল ১০ রানে।

    পরের ঘটনার জন্য অপেক্ষা করতে হয়েছিল প্রায় ৮৭ বছর। ১৯৮১ সালে ইয়ান বোথামের সেই অ্যাশেজের তৃতীয় টেস্টে অস্ট্রেলিয়া এগিয়ে ছিল ২২৭ রানে। ইংল্যান্ড জিতেছিল ১৮ রানে, অজি অধিনায়ক কিম হিউজের মুখচ্ছবিটা কেমন ছিল, তা নাহয় কল্পনাই করে নিন!

    ফলো-অনে পড়েও কোনো দলের জয়, তৃতীয় ও সর্বশেষ ঘটনাটা তো ভারতীয় ক্রিকেটেরই পালাবদলের একটা সূচনা করেছিল! ইডেন গার্ডেনসে স্টিভ ওয়াহর অস্ট্রেলিয়া এগিয়ে ছিল ২৭৪ রানে। তারপর লক্ষণ-দ্রাবিড় মহাকাব্য।

     

    ওল্ড ট্রাফোর্ড টেস্টের তৃতীয় দিন নিয়ে লিখতে গিয়ে ফলো-অন করিয়েও কোনো দলের ম্যাচ জেতার ইতিহাস টানার কারণ একটাই, ৩৯১ রানে এগিয়ে থেকেও আবার ব্যাট করতে নেমেছে অ্যালেস্টার কুকের ইংল্যান্ড! ৩৯১ বা এর বেশী রান নিয়েও ইংল্যান্ড ফলো-অন করায়নি, এমন ঘটনা আছে আর মাত্র দুইটি। একটি ১৯২৮ সালে, আরেকটি ১৯৩০ সালে।

     

    বৃষ্টির কবলে ইংল্যান্ডের দ্বিতীয় ইনিংস...

    ফলো-অন করানো না করানো নিয়ে ‘বিতর্ক’ থাকতে পারে, তবে ওল্ড ট্রাফোর্ড টেস্টে যে ইংল্যান্ড এগিয়ে গেছে বহুদূর, সেটা নিয়ে বিতর্ক নেই। আগের দিনই ৪ উইকেট হারানো পাকিস্তান যা একটু খেলেছে ৯ম উইকেটে! মিসবাহ-উল-হক ৬০ রানের জুটি গড়েছেন দশম ব্যাটসম্যান ওয়াহাব রিয়াজকে নিয়ে। ইনিংসে সর্বোচ্চ জুটি যে এটিই, তা তো না বললেও চলছে! বেন স্টোকসের জন্য হাপিত্যেশ করা ইংল্যান্ড ক্রিস ওকসেই যেন দেখছে নতুন অল-রাউন্ডার! ফিফটি করার পর ইনিংসে নিয়েছেন ৪ উইকেট।

     

    ব্যাট করতে গিয়েই আঘাত পেয়েছেন রিয়াজ, বল তাই হাতে নেয়া হয়নি দ্বিতীয় ইনিংসে। ফলো-অন, মিসবাহ-রিয়াজের জুটি বাদ দিলে দিনের ‘হট-টপিক’ ছিল বৃষ্টি। ম্যানচেস্টারের আকাশ এই হাসে, তো পরক্ষণেই কাঁদে! তৃতীয় দিনে খেলা হয়েছে মোটে ৬০ ওভার!

     

    যে দিনের শেষে ইংল্যান্ড এগিয়ে ৪৮৯ রানে, এই রান তাড়া করতে গেলেই পাকিস্তানকে করতে হবে বিশ্বরেকর্ড! মিসবাহর দল সেই অসাধ্য সাধন করতে পারবে কিনা, সময় বলবে। তবে আপাতত প্রশ্ন, অ্যালেস্টার কুকের দল ব্যাটিং ছাড়বে কখন! তার চেয়েও বড় প্রশ্ন, বৃষ্টির কারণে ফলো অন না করানোর সিদ্ধান্ত নিয়ে পরে কুককে আফসোস করতে হবে না তো? 

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন