• ইউরো
  • " />

     

    মরিনহোকে রোনালদোর 'জবাব'

    বিতর্কে জড়ানোটা যেন একরকম অভ্যেস বানিয়ে ফেলছেন হোসে মরিনহো। কখনও কাজে, কখনও কথায়- ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের নতুন ম্যানেজার খবরের শিরোনাম হয়েই থাকছেন। এবেলা পর্তুগিজ এই কোচের মন্তব্য, পর্তুগালের এবারের ইউরো ফাইনাল জয়ে রোনালদোর আদতে কোনো অবাদনই নেই! খেলার শুরুর দিকে আহত হয়ে মাঠ ছাড়ার পর ডাগআউটে রোনালদোর সরব উপস্থিতি মরিনহোর চোখে স্রেফ ‘আবেগের অতিরিক্ত প্রকাশ’। এ ব্যাপারে মৌখিকভাবে কোনো প্রতিক্রিয়া না জানালেও টুইটারে পরোক্ষ জবাব দিতে দেরি করেন নি পর্তুগালের অধিনায়ক।

     

    মরিনহোর এমন বক্তব্য প্রকাশিত হওয়ার পর রোনালদোর অফিশিয়াল টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে ইউরো জয়ের রাতের একটি ছবি পোস্ট করা হয়। ছবিতে রোনালদো ব্রুনো আলভেস, পেপে, ফন্তেদের সাথে শিরোপাসহ ক্যামেরার সামনে পোজ দিচ্ছিলেন। ছবির সাথে দু' শব্দের ক্যাপশন, "কুইক রিমাইন্ড"! বাংলায় শিরোনামটা হতে পারতো, "ছবি কথা বলে"।

     

     

    রোনালদোর সাথে মরিনহোর বাগযুদ্ধ নতুন নয়। অবশ্য রোনালদো সবসময়ই বলে আসছেন, তাঁর নতুন-পুরোনো সব কোচকেই তিনি সমান শ্রদ্ধা করেন। এ ব্যাপারে তাঁর বিখ্যাত উক্তিটা জানেন বোধহয়, “আমি যে পাতে খাই, সেটায় থুতু ফেলি না।”

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন