• ইউরোপা লিগ
  • " />

     

    পগবার রাতে পার্সির অভিবাদন!

    ইউরোপা লিগে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড- ফেনারবাচের ম্যাচের মূল আকর্ষণ ছিল সাবেক ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড স্ট্রাইকার রবিন ভ্যান পার্সির ওল্ড ট্রাফোর্ডে প্রত্যাবর্তন। ওল্ড ট্রাফোর্ডে এসে গোলও পেয়েছেন ডাচ স্ট্রাইকার, তবে তার দল এড়াতে পারেনি বড় হার। ফেনারবাচেকে ৪-১ গোলে হারিয়েছে মরিনহোর দল। জোড়া গোল করেছেন পল পগবা। নিজেদের দলের বিপক্ষে গোল করলেও ফেনারবাচের জার্সি গায়ে ভ্যান পার্সিকে ওল্ড ট্রাফোর্ডের দর্শক বরণ করে নিয়েছে নায়কের মতোই।

    ইনজুরি জর্জরিত ফেনারবাচের জন্য ওল্ড ট্রাফোর্ডের ম্যাচটা সহজ ছিল না মোটেই। দলের মূল চার খেলোয়াড়কে দলের বাইরে রেখেই ইংল্যান্ডে এসেছিল তুরস্কের দলটি। অন্যদিকে ইউরোপা লিগে প্রথম ম্যাচে হারা ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডেরও জয়ভিন্ন কোনো পথ ছিল না এই ম্যাচে। ৪-১ গোলের জয়টা তাই মরিনহোর জন্য স্বস্তিরই।

    ফেনারবাচের বিপক্ষে ম্যাচটা প্রথমার্ধেই নিজেদের দিকে ঘুরিয়ে নেয় ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। এতে অবশ্য ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের চেয়ে অবদানটা তুরস্কের ক্লাবেরই বেশি! ৩১ আর ৩৪ মিনিটে দু'বার ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডকে পেনাল্টি উপহার দিয়ে নিজেদের পায়ে নিজেরাই কুড়াল মারে ফেনারবাচে। প্রথম পেনাল্টি থেকে গোল করেন পল পগবা। পরেরটা থেকে মারশিয়াল। প্রথমার্ধ শেষ হবার ঠিক আগে আরও একবার গোল করেন পল পগবা। ৩-০ গোলের সহজ লিড নিয়ে প্রথমার্ধ শেষ করে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড।



    এদিন শুরু থেকেই মাঠে ছিলেন রুনি। পগবার দ্বিতীয় গোলটি ছিল রুনি-লিনগার্ডের কম্বিনেশন। ডান প্রান্ত থেকে করা রুনির ক্রস বক্সের ভেতরে পান লিনগার্ড। ব্যাক পাস দেন পগবাকে। ডি-বক্সের বাইরে থেকে পগবার জোরালো শট জড়ায় ফেনারবাচের জালে।

    প্রথমার্ধ যেখানে শেষ, ঠিক সেখান থেকেই পরের ৪৫ মিনিটের শুরু ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের। এবারও সেই একই কম্বিনেশন। গোল আর অ্যাসিস্ট দাতার নামের শুধু অদল-বদল। লিনগার্ডও গোল করলেন ডিবক্সের বাইরে থেকেই। পাস দিয়েছিলেন পগবা। আর পগবার পাওয়া বলের উৎস ছিলেন রুনিই! ফলাফল, ৪৮ মিনিটের মাঝেই ৪-০ গোলের বড় লিড পেয়ে যায় ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। এরপর অবশ্য বেশ কয়েকবারই সেই লিড বাড়ানোর সুযোগ পেয়েছিল রেড ডেভিলরা। মাতা, ডিপাইরা গোল করতে ব্যর্থ হওয়ায় চার গোলেই সন্তুষ্ট থাকতে হয় মরিনহোর ম্যান ইউনাইটেডকে। 



    ম্যাচের শেষদিকে যখন মনে হচ্ছিল ৪-০ গোলের জয় নিয়েই মাঠ ছাড়বে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড, তখনই ৮৩ মিনিটে এক গোল শোধ দেয় ফেনারবাচে। গোলদাতা রবিন ভ্যান পার্সি! ওল্ড ট্রাফোর্ড আরও একবার যেন উল্লাসে মেতে উঠলো। পুরো গ্যালারি ভরা দর্শকের করতালিতে প্রতিপক্ষের গোল উদযাপিত হল ওল্ড ট্রাফোর্ডে! ভ্যান পার্সি নিজেও তালি দিয়ে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করলেন। এমন কি ওল্ড ট্রাফোর্ডের ভিআইপি স্ট্যান্ডে বসা স্যার অ্যালেক্স ফার্গুসনও নিজের পুরোনো শিষ্যের গোল উদযাপন করলেন হাসিমুখেই! পগবার জোড়া গোল আসলে ঢাকা পড়ে গেল ম্যাচ শেষের আগে এই আবেগি এক মুহুর্তেই!

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন