• ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ
  • " />

     

    গাজীকে লড়াইয়ে রাখলেন 'অলরাউন্ডার' নাসির

    সংক্ষিপ্ত স্কোর

    প্রাইম ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাব ১৭৩ অল-আউট, ৩৯.১(৪৩) ওভার ( শানাজ ৫৪, আবু হায়দার ৩/৩২, গুরকিরাত ৩/২৭)

    গাজী গ্রুপ ১৭৭/৫, ৩৮.৪(৪৩) ওভার (নাসির ৬১, নাহিদুল ২/২৯)

    ফলঃ গাজী ৫ উইকেটে জয়ী


    গতকাল ম্যাচটা হতে পারেনি বৃষ্টির কারণে। গাজী গ্রুপ ও প্রাইম ব্যাংকের সুপার লিগের গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচটা গড়ালো রিজার্ভ ডে-তে। সে ম্যাচে প্রাইম ব্যাংককে হারিয়ে লিগে আবাহনীর সমান পয়েন্ট হয়ে গেল গাজীর।

     

    ৪৩ ওভারের ম্যাচে টসে জিতে ফিল্ডিং নিয়েছিলেন গাজী অধিনায়ক নাসির হোসেন। প্রথম বলেই এলবিডাব্লিউ প্রাইম ব্যাংকের সাবেক অধিনায়ক মেহেদী মারুফ, আবু হায়দারের বলে। শানাজ আহমেদ ও জাকির হাসানের ৯০ রানের জুটি এরপর। জাকির ৪৭ করে আউট হলেও ফিফটি পেয়েছেন শানাজ, ৫৪। ওই শেষ। প্রাইম ব্যাংকের ইনিংসে এরপর আর কেউ হাল ধরতে পারেননি। ইশ্বরন ১২, আসিফ ২০, তাইবুর ২০। গল্প শেষ।

     

    আবু হায়দার বা গুরকিরাত সিংয়ের গল্প অবশ্য শেষ নয়। হায়দার নিয়েছেন ৩ উইকেট, প্রাইম দোলেশ্বরের আরাফাত সানির ৩২ উইকেট টপকে সর্বোচ্চ ৩৩টি এখন এই বাঁহাতি পেসারেরই। আর গুরকিরাত প্রিমিয়ার লিগে প্রথম ম্যাচে ২ উইকেটের পর এবার নিয়েছেন ৩টি।

     

    আলাদা করে বলতে হবে নাসিরের কথাও। শানাজকে ফিরিয়েছেন, উইকেট নিয়েছেন ইশ্বরনেরও। ৪৩ ওভারের ম্যাচে ২৩ বল বাকি থাকতেই শেষ প্রাইম ব্যাংকের ইনিংস।

     

    আর বল হাতে যেখানে শেষ করেছিলেন নাসির, ব্যাটিংয়ের শুরু করলেন সেখান থেকেই। এনামুল (৪৫), মুমিনুলের (৩৩) গড়ে দেয়া ভিত্তিতে জয়ের বাকি কাজটা সারলেন তিনিই। শেষ পর্যন্ত অপরাজিত ছিলেন ৬৪ বলে ৬১ করে। মেরেছেন ৯টি চার।

     

    ২৬ বল বাকি থাকতেই ম্যাচ জিতে গেছে গাজী। ম্যাচসেরা হয়েছেন অধিনায়ক নাসিরই।

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন