• অ্যাশেজ
  • " />

     

    অস্ট্রেলিয়ার নির্বাচকদের ওপর 'হতাশ' খাওয়াজা

     

    এক ম্যাচে দলে আছেন তো পরের ম্যাচে নেই। এই ‘ভেতর-বাহিরের’ ফাঁদে পুরোটা বছর কেটে গেছে উসমান খাওয়াজার। প্রতিনিয়তই অস্ট্রেলিয়া দলে নিজের জায়গা পাকা করার লড়াইটা চালিয়ে যাচ্ছেন। এবার খাওয়াজা বলছেন, অস্ট্রেলিয়ার দল নির্বাচনের পদ্ধতিটা তাঁর একেবারেই পছন্দ হচ্ছে না। 

    ঘরের মাঠে বছরের শুরুতে পাকিস্তানের বিপক্ষে সিডনি টেস্টে খেলেছেন। এরপর ভারতের বিপক্ষে সিরিজে দলে জায়গা হয়নি। বাংলাদেশের বিপক্ষে প্রথম টেস্টে খেললেও দ্বিতীয় টেস্টে আবারো বাদ পড়েছেন খাওয়াজা। 

    অস্ট্রেলিয়ার এক রেডিও স্টেশনের কাছে বলেছেন, নির্বাচকদের এরকম আচরণে একটু অবাক খাওয়াজা, “আগে কখনোই এরকম হতো না। এখন নির্বাচকরা এটা কেন করছেন জানি না। এটা দলের ভারসাম্য নষ্ট করে। সবাই বাদ পড়ার ভয় মাথায় নিয়ে খেলতে নামলে নিজেদের সেরাটা দেওয়া সম্ভব না। আমি কুইন্সল্যান্ডের অধিনায়ক হিসাবে এটা খুব ভালোভাবেই বলতে পারি। এক ম্যাচে খারাপ খেললেই তাদের বাদ দেইনা। ধৈর্য রেখে তাদের সেরা খেলার জন্য অপেক্ষা করি। তাড়াহুড়ো করে বাদ দেওয়ার সিদ্ধান্ত ইদানীং খুব বেশি হচ্ছে অস্ট্রেলিয়া দলে। বিশেষ করে বিদেশ সফরের সময় এটার প্রভাব বেশি পড়ে।”

    সামনেই ঘরের মাটিতে অ্যাশেজ। এবারও দলে সুযোগ পাওয়া নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছেন খাওয়াজা, “ধারাবাহিকভাবে দলে সুযোগ না পেলে নিজের খেলার উন্নতি করাটা কঠিন। এটা খুব বেশি হতাশার। অ্যাশেজ জেতার স্বপ্ন ক্যারিয়ারের শুরু থেকেই। দলে জায়গা পেতে হলে ভালো খেলেই ঢুকতে হবে। ঘরোয়া ক্রিকেটের কিছু ম্যাচ আছে, সেগুলোতে ভালো পারফর্ম করতে চাই। এরপর বাকিটা নির্বাচকদের ওপর ছেড়ে দিচ্ছি।”

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন