• চ্যাম্পিয়নস লিগ
  • " />
    X
    GO11IPL2020

     

    বার্নাব্যুতে রোনালদোদের হাসতে দিলেন না লরিস

    ‘এইচ’ গ্রুপের শীর্ষ দুই দল তারা। গ্রুপের ২ ম্যাচ শেষে সমান ৬ পয়েন্টের পাশাপাশি গোল ব্যবধানও সমান। গ্রুপের শীর্ষস্থান দখল এবং ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো এবং হ্যারি কেইনের লড়াই- সব মিলিয়ে রিয়াল মাদ্রিদ এবং টটেনহাম হটস্পার্সের ম্যাচের যে উত্তেজনাটুকু ছিল, ম্যাচটা তার চেয়েও বেশি রোমাঞ্চ ছড়িয়েছে। শেষ পর্যন্ত ১-১ গোলে ড্র হয়েছে দুর্দান্ত এই ম্যাচটি। কেইন গোল না পেলেও ঠিকই গোল করেছেন রোনালদো। রাউল গঞ্জালেজকে টপকে ইউসিএল ইতিহাসে তৃতীয় সর্বোচ্চ ম্যাচ খেলার রেকর্ডটা (১৪৩) এখন ‘সিআর৭’-এরই। স্মরণীয় এই মাইলফলকটি গোল দিয়েই উদযাপন করলেন রোনালদো। তবে রিয়ালকে জিততে না দেওয়ার অনেকটুকু কৃতিত্ব দাবি করতে পারেন উগো লরিস, তাঁর অবিশ্বাস্য কিছু সেভেই যে গোল পাননি বেনজেমারা!

     

    আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণে ঠাসা ম্যাচটিতে গোলের প্রথম সুযোগ তৈরি করেছিল রিয়ালই। ম্যাচের মাত্র ৫ মিনিটেই তরুণ রাইটব্যাক আশরাফ হাকিমির ক্রসে রোনালদোর হেড প্রতিহত হয়ে বারে। ফিরতি বল জালে পাঠাতে ব্যর্থ হন করিম বেনজেমা। শীর্ষস্থানীয় দুই দলের মধ্যকার ম্যাচটিতে বিতর্কের রেশও ছিল বেশ। ২০ মিনিটে ফার্নান্দো ইয়োরেন্তেকে নাভাস ডিবক্সে ফেলে দিলেও পেনাল্টির বাঁশি বাজাননি রেফারি।

     

    তবে ২৭ মিনিটে ঠিকই লিড নেয় স্পার্স। ডান-প্রান্ত থেকে করা সার্জ অরিয়েরের ক্রস ক্লিয়ার করতে গিয়ে নিজ জালে ঠেলে দেন রাফায়েল ভারান। গোলশোধে মরিয়া রিয়াল সমতায় ফেরে প্রথমার্ধের শেষদিকে। ক্রুসকে ডিবক্সে ফাউল করায় রিয়ালকে পেনাল্টি উপহার দেন অরিয়ের। ১২ গজ থেকে স্পার্স কিপার হুগো লরিসকে পরাস্ত করতে ভুল করেননি রোনালদো। রিয়ালের হয়ে ইউসিএল-এ ৯০ ম্যাচে এটি ছিল রোনালদোর ৯৪তম গোল।
     

     

    দ্বিতীয়ার্ধে যেন গোল না খাওয়ার দৃঢ়প্রতিজ্ঞা নিয়েই নেমেছিলেন দুই গোলরক্ষক। বেনজেমা, রোনালদোর বেশকিছু প্রচেষ্টা রুখে দিয়েছেন লরিস। বিশেষ করে ক্যাসেমিরোর কর্ণার থেকে বেনজেমার হেড অবিশ্বাস্যভাবে বাঁচিয়ে দেন এই ফ্রেঞ্চ গোলরক্ষক। ঐ সেভের পর মাঠে রোনালদো, রামোসের হতভম্ব অভিব্যক্তি এবং ডাগআউটে জিদানের শূণ্যদৃষ্টিই যেন তখন রিয়ালের প্রতিচ্ছবি। কম যাননি নাভাসও। কোস্টারিকান এই গোলরক্ষককে একা পেয়েও গোল করতে ব্যর্থ হয়েছেন ক্রিশ্চিয়ান এরিকসেন, হ্যারি কেইনরা। রোনালদো, কেনরা দ্বিতীয়ার্ধে লরিস, নাভাসদের পরাস্ত করতে না পারায় শেষমেশ ড্র নিয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হয় দু’দলকেই। ইউসিএল-এ রিয়ালের শেষ ২৪ 'হোম' ম্যাচে মাত্র দ্বিতীয় দল হিসেবে তাদের রুখে দিল স্পার্স। সপ্তাহ দুয়েক পর ওয়েম্বলিতে আবারও মুখোমুখি হবে দুই দল।

     

    গ্রুপের অন্য খেলায় অ্যাপোয়েল নিকোসিয়ার সাথে ১-১ গোলের ড্র করেছে বরুশিয়া ডর্টমুন্ড। এর ফলে গ্রুপপর্বের তিন ম্যাচ শেষে এখনও জয়ের দেখা পাননি অবামইয়াংরা।

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন