• বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ
  • " />

     

    বরং শুভাশীষকেই 'সরি' বললেন মাশরাফি

    রংপুরের ইনিংসের ১৭তম ওভার চলছে। শুভাশীষের তৃতীয় বলেই একটা চার মারলেন রংপুর অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা। পরের বলে ইয়র্কার লেংথের বল, এবার মাশরাফি সেটা ঠেকালেন। শুভাশীষ ধরে থ্রো করার একটা ভঙ্গি করতেই মাশরাফি যা করলেন, সেটার সহজ অর্থ করতে দাঁড়ায়, ‘পেছনে গিয়ে বোলিং কর’। কিন্তু এরপর শুভাশীষ মেজাজ হারিয়ে মারমুখী ভঙ্গিতে তেড়েই এলেন তাঁর দিকে। শেষ পর্যন্ত আম্পায়ারকেই মধ্যস্থতা করতে হলো দুজনের মাঝে। ওই ঘটনার পর সংবাদ সম্মেলনে মাশরাফি দোষটা নিজের ঘাড়ে নিয়ে বলেছেন, শুভাশীষের কাছে তিনি ক্ষমা চাইছেন।

    আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারের আজ ১৭তম বছর পূর্ণ করলেন মাশরাফি। উপলক্ষটা তাঁর মাথায় ছিল না, তবে ফেসবুক-টুইটারে ম্যাচের আগে চোখে পড়েছিল। ম্যাচে তো জয় পাননি, বরং শুভাশীষের সঙ্গে ঘটনায় দিনটাই শেষ হয়েছে তিক্ততায়। মাশরাফি শুরুতেই প্রসঙ্গটি এড়িয়ে গেলেন। বললেন, এটা সিরিয়াস কিছু নয়। মাঠে এরকম মেজাজ হারানোর ঘটনা মুহূর্তের উত্তেজনায় ঘটতেই পারে।

     

     

    কিন্তু আবার মনে করিয়ে দেওয়া হলে মাশরাফি দোষটা নিয়েছেন নিজের কাঁধেই,  ‘আমি মনে করি, আমার তাকে (শুভাশীষকে) স্যরি বলা উচিত। আমার মনে হয়, এটা ক্রিকেটের অংশ। এ ধরনের ঘটনা ঘটতে পারে। ওর জায়গা থেকে ও ঠিক আছে। আমিও জিততে চেয়েছি, সে-ও জিততে চেয়েছি। তারপরও ও ছোট— আমার মাথা ঠান্ডা রাখা উচিত ছিলো। কারণ আমি ওর বড়।’

    ওই ঘটনার জের অবশ্য পরের বলেও ছিল, দুজনের মধ্যে উত্তপ্ত বাক্যবিনিময়ও হয়েছে। শুভাশীষ ওই ওভার শেষে ডিপ ফাইনলেগে ফিল্ডিং করতে এসে শুনেছেন দর্শকের দুয়ো। শেষ পর্যন্ত পরের ওভারেই আউট হয়ে গেছেন মাশরাফি, ম্যাচ শেষে বুনো উদযাপনে শুভাশীষও বুঝিয়ে দিয়েছেন ঘটনাটি তিনি ভুলে যাননি।  

     

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন