• সিরি আ
  • " />

     

    "ইতালিয়ান ডিফেন্ডারদের ধ্বংস করে দিয়েছেন গার্দিওলা"

    তাঁর অধীনে প্রথম মৌসুমেই ‘হেক্সা’ জিতেছিল বার্সেলোনা। ফুলব্যাক দানি আলভেজ, এরিক আবিদালদের গড়ে তুলেছিলেন ‘আধুনিক যুগের ডিফেন্ডার’ হিসেবে। রক্ষণে কার্লোস পুয়োল, জেরার্ড পিকেদের সাহায্য করার চেয়ে আক্রমণভাগে লিওনেল মেসি, আন্দ্রেস ইনিয়েস্তাদের বল যোগান দিতেই বেশি দেখা যেত তাদের। গার্দিওলার ‘আধুনিক যুগের ডিফেন্ডার’ তত্ত্ব বেশ তোলপাড় ফেললেও ইতালিয়ান ডিফেন্ডার জর্জিও কিয়েলিনিকে সন্তুষ্ট করতে পারেনি। জুভেন্টাসের বর্ষীয়ান এই ডিফেন্ডার তো রীতিমত দাবিই করে বসেছেন, গার্দিওলার ‘টিকি টাকা কৌশল’-ই ইতালির ডিফেন্ডারদের ‘ধ্বংস’ করে দিয়েছে!

     

    কিয়েলিনির মতে; বার্সেলোনা, বায়ার্ন মিউনিখ এবং ম্যানচেস্টার সিটিতে গার্দিওলার কৌশলে অনুপ্রাণিত হয়েই এখন রক্ষণের চেয়ে আক্রমণের দিকে বেশি ঝুঁকছেন তরুণ ইতালিয়ান ডিফেন্ডাররা। গার্দিওলার এই দর্শনের দিয়েছেন ‘গার্দিওলিসমো’, “তাঁর (গার্দিওলার) কারণেই ইতালিয়ান ডিফেন্ডারদের কিছুটা অবনতি ঘটেছে। এখন তারা নিজেরাই খেলা গড়ে দিতে জানলেও প্রতিপক্ষ স্ট্রাইকারকে মার্ক করতেই পারে না। দুর্ভাগ্যবশত এমনটাই হচ্ছে সাম্প্রতিক সময়ে”।

     

     

    গার্দিওলার ব্যাপারে বলতে গিয়ে নিজের কৈশোরে ফিরে গেছেন কিয়েলিনি, “আমরা যখন তরুণ ছিলাম, তখন অনুশীলনে আমাদের মার্ক করা শেখানো হত। কিন্তু এখনকার সময়ে ইতালিয়ান ডিফেন্ডাররা ক্রস থেকে প্রতিপক্ষের খেলোয়াড়দের মার্কই করে না। এটা আসলে খুবই হতাশাজনক কারণ আমরা আমাদের শেকড়কেই ভুলে যাচ্ছি। রক্ষণ দিয়েই ফুটবলে আমরা নাম করেছিলাম”।

     

    অবশ্য সিরি আ-র এখনকার ডিফেন্ডারদের নিয়ে কিয়েলিনি পুরোপুরি আশা হারিয়ে ফেলেননি। তাঁর মতে, এখনও ইতালিতে বেশকিছু প্রতিভাবান ডিফেন্ডার আছে। সতীর্থ ড্যানিয়েল রুগানি, মাতিয়া কালদারা এবং এসি মিলানের আলেসিও রোমানিওলিদের নাম বলেছেন আলাদা করে।

     

    আক্রমণভাগের পাশাপাশি রক্ষণেও প্রতিভাবান খেলোয়াড় দরকার ইতালির- মনে করেন কিয়েলিনি, “স্ট্রাইকার হিসেবে আমাদের (ইতালির) এখন দারুণ কাউকে দরকার। সেই সাথে রক্ষণেও প্রতিশ্রুতিশীল কাউকে আনা উচিত কারণ আমরা কখনোই স্পেনের মত টিকি-টাকা খেলতে পারবো না। টিকি-টাকা আমাদের ফুটবলদর্শনে নেই। যাই হোক, এখনও ভাল কিছু খেলোয়াড় আসছে ইতালিতে। রুগানি, কালদারা, রোমানিওলিদের আন্তর্জাতিক অভিজ্ঞতা দরকার। অবশ্য তাদের বয়সে আমার চেয়ে বেশি ম্যাচ খেলে ফেলেছে এদের অনেকেই।"

     

     

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন