• ফুটবল

অ্যান্টনিও গ্রীজম্যান "The French Star"

পোস্টটি ৪৯৭১ বার পঠিত হয়েছে
'আউটফিল্ড’ একটি কমিউনিটি ব্লগ। এখানে প্রকাশিত সব লেখা-মন্তব্য-ছবি-ভিডিও প্যাভিলিয়ন পাঠকরা স্বতঃস্ফূর্তভাবে নিজ উদ্যোগে করে থাকেন; তাই এসবের সম্পূর্ণ স্বত্ব এবং দায়দায়িত্ব লেখক ও মন্তব্য প্রকাশকারীর নিজের। কোনো ব্যবহারকারীর মতামত বা ছবি-ভিডিওর কপিরাইট লঙ্ঘনের জন্য প্যাভিলিয়ন কর্তৃপক্ষ দায়ী থাকবে না। ব্লগের নীতিমালা ভঙ্গ হলেই কেবল সেই অনুযায়ী কর্তৃপক্ষ ব্যবস্থা নিবেন।

টানা ছ'বার লা লিগার বর্ষসেরা ফুটবলারের স্থান দখল করে নেওয়া ফুটবলের জাদুকর মেসি ও ফুটবল জগতের চিরচেনা  সি আর সেভেন কে পেছনে ফেলে ২০১৫ -১৬ এর লা লিগা বর্ষসেরা ফুটবলারের তালিকায় জায়গা করে নিল এক নতুন মুখ। হ্যাঁ , বলছি ফরাসী ফুটবল তারকা অ্যান্টনিও গ্রীজম্যানের কথা। ফ্রেঞ্চ ফুটবলের নক্ষত্র নামে খ্যাত এই ফুটবলার শুধু মাত্র বর্ষসেরা ফুটবলার খেতাবেই ভুষিত হন নি, তিনি জিতেছেন ফ্যান্স অ্যাওয়ার্ড ও। ইউরো ২০১৬'র অসাধারণ পার্ফরমেন্সে সকলের নজরকারেন এই ফরাসী ফুটবলার। সম্প্রতি ইউরোপের টিম গুলোর বাড়তি আকর্ষন ও গ্রীজম্যানের ওপরেই।  সকলের মধ্যমণি এখন অনেক টাই তিনি।আসুন জেনে নেওয়া যাক এই ফরাসী ফুটবলার সম্পর্কে,

সময় কাল ১৯৯১। ফ্রান্সের ছোট এক শহর ম্যাকনে নগরপাল এলেইন ও হাসপাতাল পরিচালিকা ইজাবেলের ঘরে জন্ম হয় গ্রীজম্যানের। পুরো নাম অ্যান্টনিও গ্রীজম্যান।  ইজাবেলের পিতা অ্যামারো লোপেজ ছিলেন পর্তুগীজ ক্লাব প্যাকোজ দে ফেরেরা (Pacos De Ferreira) এর সাবেক ফুটবলার। ছোটবেলায়  গ্রীজম্যানের অবসর কাটত এই প্যাকোজ দে ফেরেরা'তেই। 

ফুটবলের হাতেখড়ি তার শহরের ক্লাবের হাত ধরেই।  ইউ এফ ম্যাকনে তার ফুটবল জীবনের সূচনা হয়। কিন্তু এই ছোট পরিসর থেকে কোন ভাবেই বেরিয়ে আসতে পারছিলেন না গ্রীজম্যান। পেশাদার সব ক্লাবের ইউথ একাডেমীতে জায়গা হচ্ছিল না শুধুমাত্র স্বাভাবিকের চেয়ে কম ওজন হওয়ায় বা Lightweight হওয়ায়। কিন্তু এক সময় পরিশ্রমের কাছে হার মানল যেন সকল বাঁধা। ২০০৫ সালে পিএসজি এর ইউথ একাডেমীর বিরুদ্ধে এক ম্যাচে তার ফুটবল দক্ষতা নজরকারে Real Sociedad এর স্কাউট মেম্বার দের। ভাগ্যের চাকা টা যেন তখনি ঘুরতে শুরু করল। Real Sociedad এর হাত ধরেই ফুটবলের সাগরে নামেন এই ফরাসী ফুটবলার। 

griezmann2-1406443940

অভিষেকেই Rayo Vallecano এর কাছে ২-০ তে পরাজিত হয় গ্রীজম্যানের দল। কিন্তু ২০০৯-১০ প্রাক মৌসুমে ৪ ম্যাচে ৫ গোল করেন তিনি। ২০১০ সালের এপ্রিলে ২৪মিলিয়ন পাউন্ডে সিনিয়র পেশাদার ফুটবলার হিসেবে পাঁচ বছরের চুক্তিতে চুক্তিবদ্ধ হন এই খেলোয়ার। Real Sociodad ক্লাবের হয়ে ১৭৯ টি ম্যাচে ৪৬ গোল করেন এই তারকা ফুটবলার।

Real Sociodad এর সাফল্যে গ্রীজম্যানের হস্তক্ষেপ লক্ষণীয় ছিল। ২০১০ সালে প্রথম আন্তঃর্জাতিক খেলোয়ার হিসেবে অভিষেক হয় গ্রীজম্যানের। উয়েফা আন্ডার নাইন্টিন চ্যাম্পিয়নশিপে অস্ট্রিয়ার বিরুদ্ধে দুই গোল করে ফ্রান্সের ঝুলিতে শিরোপা তুলে দিলেন তিনি। 

এরপরেই ২০১১ সালে আন্ডার টুয়েন্টি ও আন্ডার টুয়েন্টি ওয়ানে সাফল্য লাভ করে ২০১৪ সালে ফ্রান্সের সিনিয়র টিমে পা রাখেন গ্রীজম্যান। 

145287

Real Sociodad থেকে শুরু করে ফ্রান্সের সাফল্য নজরকারে সবার। এবার গ্রীজম্যান নজরে আসেন অ্যাথলেটিক মাদ্রিদের দিয়েগো সিমিওনের। ২৪ মিলিয়ন পাউন্ডেই গ্রীজম্যানকে এনে দল ভারী করেন দিয়েগো সিমিওনে। সেই  থেকে আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয় নি তাকে।

 440487_heroa

 চলতি মৌসুমে অ্যাথলেটিক বিলবাও এর বিপক্ষে হ্যাট্রিক করে ৪-১ এ নিজের দল কে জয়ী করেন গ্রীজম্যান। মৌসুমের ৩৭ টি ম্যাচে করেন ২২ গোল আর নাম লেখান অ্যাথলেটিক' র সর্বপ্রথম টিম অফ দ্যা ইয়ারের খেলোয়ার হিসেবে। ফরোয়ার্ড পসিশনে খেলা এই খেলোয়ার এখন পর্যন্ত লা লিগায় ২২ ম্যাচে করেন ৯ গোল, কোপা ডেল রে এর ৫ ম্যাচে গোল সংখ্যা ৪। 

এবার আসি ইউরো ২০১৬ প্রসঙ্গে। অনেক টা একা হাতেই ফ্রান্স কে ইউরো জেতার স্বপ্নের কাছাকাছি নিয়ে জান গ্রীজম্যান। ইউরো তে মোট গোল করেন ৬টি যা তাকে এনে দেয় সর্বোচ্চ গোলদাতার খেতাব। জার্মানি ও আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ২ টি করে মোট  ৪ টি ও আইসল্যান্ড ও আলবেনিয়ার বিপক্ষে ১ টি করে মোট ২টি গোল করেন। কিন্তু ফাইনালে, ১০৯ মিনিটে পর্তুগীজ খেলোয়ার ইডর ( Eder) এর কাছে হার মানেন ফরাসীরা। ১-০ তে এগিয়ে যায় পর্তুগাল। ফরাসী দের স্বপ্ন ভঙ্গ হল ঠিক ই কিন্তু প্রশংসা কুড়িয়েছেন ও বটে। টুর্নামেন্টের সর্বোচ্চ গোলদাতা হিসেবে গ্রীজম্যান অবস্থান করছেন চতুর্থ স্থানে।অবশ্য তার দেশীয় মিশেল প্লাতিনি একটি টুর্নামেন্টে ৯ টি গোল করে রেকর্ড করেছিলেন। তালিকায় আরো আছেন তার আরেক সতীর্থ থিওরি হেনরি। তার ঝুলিতেও ৬ টি গোল। ফরাসী হিসেবে গ্রীজম্যান আছেন দ্বিতীয় স্থানে। শুধু গোল ই নয়, তিনি ৪৩৫ মিনিট মাঠে থেকে এসিস্ট ও করেন দুটি। 

antoine-griezmann-main

বর্তমানে ইউরোপের , ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড আর্সেনাল  , দুই দল ই গ্রীজম্যানের ওপর বেশ জোরদার ভাবেই নজর দিয়েছেন বলে শোনা যাচ্ছে। গত মৌসুমে অ্যাথলেটিক'র সাথে ২০২১ পর্যন্ত নতুন ভাবে চুক্তিবদ্ধ হওয়ায় , আর্সেনাল হারায় গ্রীজম্যান কে। অন্যদিকে গুজব উঠেছে বেশ কোমরবেঁধেই মাঠে নেমেছেন হোসে মোরিনহো এর দল। গ্রীজম্যান কে সাথে করেই  ওল্ডট্রাফোর্ডে ফেরার উদ্দেশ্য তাদের। কার দল ভারী করতে যাচ্ছেন এই উঠতি ফুটবল তারকা? নাকি সব গুজব উড়িয়ে দিয়ে থাকছে অ্যাথলেটিক মাদ্রিদেই। এসবের অবসান ঘটবে পরবর্তী ট্রান্সফার উইন্ডোতে, যার পর্দা উঠবে এ বছরেরি জুলাইতে। ততদিন গ্রীজম্যান মাতিয়ে রাখুক ফুটবল জগত কে, মাতিয়ে রাখুক তার পায়ের জাদুতে।