• ক্রিকেট

কার্ডিফের সোফিয়া গার্ডেন্স এবং কিছু সুখ স্মৃতি ।

পোস্টটি ৫০৪২ বার পঠিত হয়েছে
'আউটফিল্ড’ একটি কমিউনিটি ব্লগ। এখানে প্রকাশিত সব লেখা-মন্তব্য-ছবি-ভিডিও প্যাভিলিয়ন পাঠকরা স্বতঃস্ফূর্তভাবে নিজ উদ্যোগে করে থাকেন; তাই এসবের সম্পূর্ণ স্বত্ব এবং দায়দায়িত্ব লেখক ও মন্তব্য প্রকাশকারীর নিজের। কোনো ব্যবহারকারীর মতামত বা ছবি-ভিডিওর কপিরাইট লঙ্ঘনের জন্য প্যাভিলিয়ন কর্তৃপক্ষ দায়ী থাকবে না। ব্লগের নীতিমালা ভঙ্গ হলেই কেবল সেই অনুযায়ী কর্তৃপক্ষ ব্যবস্থা নিবেন।

সোফিয়া গার্ডেন্স, না এটা কোনো পৃথিবীর বৃহৎ জঙ্গলের নাম নয় । ওয়েলসের কার্ডিফ শহরের একটি ক্রিকেট স্টেডিয়ামের নাম ।
নামটা খুব পরিচিত মনে হচ্ছে, তাই না !! হবেই তো ১২ বছর আগের স্মৃতি তো এত সহজে বাঙ্গালী জাতির ভুলে যাওয়ার কথা নয় । এই মাঠেই রচিত হয়েছিল কার্ডিফ বধ কাব্য, তথা অজি বধের সূক্ষ পরিকল্পনা । প্রথমের স্মৃতি মানব মনে সবসময়-ই এক্টু আলাদা দাগ কাটে । কিন্তু সেটা যদি একমাত্র স্মৃতি হয়, তখন কিন্তু ভোলারামও ভুলে যাবে না । গেঁথে রাখবে মনের চিলেকোঠায় । যেমনটি রেখেছে কোটি কোটি বাঙ্গালী সোফিয়া গার্ডেন্সকে স্মৃতির মায়াজালে জড়িয়ে ।

কার্ডিফ মানেই, বাঙ্গালীদের চোখে মো: আশরাফুলের ব্যাট উঁচিয়ে শতক উৎযাপন , সেজদাহ্ দিয়ে মাটিকে চুম্বন এবং পাশে দাঁড়িয়ে তখনকার অজি ক্যাপ্টেন রিকি পন্টিংয়ের করতালি দিয়ে অভিবাদন ।

কার্ডিফ মানেই, জেসন গিলেস্পির বলে আফতাব আহমেদের লং অনের উপর দিয়ে বিশাল ছক্কা মেরে স্কোর সমতা, অত:পর মিস শটে বল লেগ এ পাঠিয়ে এক রান আদায়ের মধ্য দিয়ে বিদেশের মাটিতে বড় কোনো দলকে পরাজয়ের মাল্যদান ।

ম্যাচের দ্বিতীয় বলেই গিলক্রিস্টের বিদায় ঘন্টা বাজানো সেই কলার উঁচানো পাগলাটা কিন্তু আবারও সোফিয়া গার্ডেন্সে প্রস্তুত, নতুন এক কাব্য রচনা করতে । প্রতিপক্ষ ভিন্ন, তাতে কি ? এই তো কিছুদিন আগেই ট্রাইনেশনে ধরে দিয়েছে । চেনা প্রতিপক্ষ , নিজেদের দিনে প্রতিপক্ষ যে-ই হোক, যত পরিক্রমালীই হোক, বাংলাদেশ দূর্বার । দূর্বার মনবলের ব্যাঘ্রদলের হুংকারে আতঙ্কিত হবে আবারও কার্ডিফের সোফিয়া গার্ডেন্স ।

এখনো ম্যাচটির হাইলাইটস মাঝেমধ্যে দেখি । মনটাকে ভালো করার এক্টা উপকরণও বলা যেতে পারে । প্রাপ্তি অনেক ছিল সেদিনের বিজয় গগনে, সাথে কিছু হতাশা আজও বিজয় গগনে ঘনকালো মেঘ হয়ে আচ্ছাদিত করে ভেসে বেড়ায় ।

মনে কি পড়ে , ১৭ বছরের এক যুবকের কথা ? যিনি কিনা ভেঁঙ্গে দিয়েছিলেন মেথু হেইডেনের স্টাম্প !! কি নিখুঁত ভাবেই না শুরু করেছিল ক্রিকেট ক্যারিয়ার ! বর্তমান কাপ্তান ম্যাশের সাথে জুটি বেঁধে বল করার অধিকার কি ছিল না তার ?? কি ছিল না তার বোলিং ঝুলিতে ? বরাবরই বসে থেকেছেন সাইড বেঞ্চে, কিম্বা অপেক্ষামান পেসার হিসেবে । হ্যা কিছুটা ইন্জুরি প্রবনতা ছিল । কিন্তু সুস্থ সবল মানুষটিই বা কতটুকু ব্যাবহৃত হয়েছিল । মনিষিদের একটি সরল বাক্য আঁছে, " যেখানে গুণীজনের কদর নেই, সেখানে গুণীজন জন্ম নেয় না ।" আসোলেই কতটুকু সম্মান দিতে পেরেছি আমরা গুণীজনদের নিজেদেরকে প্রশ্ন করুন । পেয়ে যাবেন অনেক পিছনে পড়ে থাকা, ধূলো জমে থাকা, জানা অজানা অনেক প্রশ্নের উত্তর ।

এতক্ষনে নিশ্চই বুঝে যাওয়ার কথা, যাকে নিয়ে উপরোক্ত প্যারাটি লেখা । জ্বী, হ্যা !! বুঝেছেন, নাজমুল হোসেইন নামের সেই অবহেলিত সিলেটের টগবগে তরুণের কথাই বলতেছিলাম । আমি কতটুকু ক্রিকেট বুঝি সেটা বড় কথা নয়, আমি প্রতিভা চিনি । সেই অনুর্ধ্ব ঊনিশ ( নাজমুল ছিলেন ১৫-১৬ বয়সি ) বিশ্বকাপে যখন শাহাদাৎ-নাজমুল জুটি বেঁধে বল করতেছিল তখনই বুঝে গিয়েছিলাম, এই বালকটিই আগামী বাংলার ক্রিকেটের বোলিং ডিপার্টমেন্টর শক্ত কান্ডারী । কিন্তু ঐ যে শুনিয়ে ছিলাম গুণীজনদের বাণী !! অবহেলা করতে করতে তো বর্তমান প্রজন্মের কাছে 'নাজমুল হাসান' নামের অসাধারন লাইন লেন্থের সেই মানুষটি আজ অচেনা । লিজেন্ড জন্ম নেয় আবার হারিয়েও যায়, অযত্নে-অবহেলায় ।
অপচয় হতে দেখেছি আফতাব আহমেদ নামের আরও এক তরুণতুর্কিকে ।

তবে যা-ই হোক, সামনে আসছে নতুন মিশন, চেনা প্রতিপক্ষ, চেনা মাঠে । নতুন এক্টা দিন, নতুন কোনো সম্ভাবনা নিয়ে, রচিত হবে নতুন এক কাব্য । রচিত হোক নতুন কোনো ইতিহাস, সেই প্রত্যাশায়, অপেক্ষামান কোটি ক্রিকেট পাগল বাঙ্গালী । কিউদের হারনোর বিকল্প কিছু নেই ।

বিজয় আসবেই; আজ না হোক কাল, আসবেই ।

#মাসুকীয়

এক রাশিয়ান ঈগলের গল্প
    অন্যান্য
এক রাশিয়ান ঈগলের গল্প
তুমি আসবে বলে.....!
    ক্রিকেট
তুমি আসবে বলে.....!
নীরবে তুলির আঁচড় দিয়ে যাওয়া নিভৃত এক শিল্পী
    ফুটবল
নীরবে তুলির আঁচড় দিয়ে যাওয়া নিভৃত এক শিল্পী
অস্ট্রেলিয়ার একুশ, আরেকবার
    ক্রিকেট
অস্ট্রেলিয়ার একুশ, আরেকবার
এল ক্লাসিকো - স্পেনীশ দ্রুপদী লড়াই
    ফুটবল
এল ক্লাসিকো - স্পেনীশ দ্রুপদী লড়াই