• ফুটবল

কুটিনহোর ট্রান্সফার নিয়ে কিছু কথা

পোস্টটি ৯৫৮৮ বার পঠিত হয়েছে
'আউটফিল্ড’ একটি কমিউনিটি ব্লগ। এখানে প্রকাশিত সব লেখা-মন্তব্য-ছবি-ভিডিও প্যাভিলিয়ন পাঠকরা স্বতঃস্ফূর্তভাবে নিজ উদ্যোগে করে থাকেন; তাই এসবের সম্পূর্ণ স্বত্ব এবং দায়দায়িত্ব লেখক ও মন্তব্য প্রকাশকারীর নিজের। কোনো ব্যবহারকারীর মতামত বা ছবি-ভিডিওর কপিরাইট লঙ্ঘনের জন্য প্যাভিলিয়ন কর্তৃপক্ষ দায়ী থাকবে না। ব্লগের নীতিমালা ভঙ্গ হলেই কেবল সেই অনুযায়ী কর্তৃপক্ষ ব্যবস্থা নিবেন।

ফিলিপে কুটিনহো যাকে আমরা জাদুর কৌওটা নামে চিনি। বর্তমান সময়ে নেইমারের পরেই ব্রাজিল দলের অন্যতম ভরসার নাম। ব্রাজিলের হেক্সা মিশনে নেইমারের সাথে এই তারকা গুরুত্ত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে এবং সেই ক্ষমতা তার আছে ইতি মধ্যেই ফুটবল বিশ্বকে তিনি তার প্রমাণ দিয়েছে।

 

কিন্তু বর্তমানে তার ট্রান্সফার নিয়ে অনেক আলোচনা আর সমালোচনা চলছে। যদিও এখনো বার্সাতে যাওয়া কনফার্ম নয় তবুও অনেক সম্ভবানা আছে বার্সাতে চলে যাওয়ার। এই ট্রন্সফারটা কে কেউই তেমন ভাল ভাবে মেনে নিতে চাচ্ছে না। সকলেই চাচ্ছে কুটিনহো যেন লিভারপুলেই থাকে। বিভিন্ন নিউজ পেইজ পত্রিকা ঘেটে নিজের মতো করেই এই ট্রান্সফারের সুবিধা অসুবিধা গুলো তুলে ধরছি।

 

প্রথমেই সুবিধা গুলো তুলে ধরছিঃ

 

লিভারপুল থেকে বর্তমানে বার্সেলোনা বড় এবং ফেভারিট ক্লাব। হয়তো ছোট থেকেই অনেকেই স্বপ্ন দেখে এমন একটি বড় ক্লাবে খেলার। আর স্বপ্ন যখন পূরন হতে চলে তখন তা এড়িয়া যাওয়া খুব কঠিন, কারন একবার এই সুযোগ চলে গেলে তা আবার ফিরে আসবে না। কুটিনহো হয়তো চাইবে তার স্বপ্ন পূরন করতে।

 

বার্সেলোনায় কিছু টপক্লাস প্লেয়ার আছে, যাদের সাথে খেলার সুযোগ পেলে কুটিনহো হয়তো অনেক কিছু শিখতে পারবে এবং এতে করে তার খেলায় আরো উন্নতি হতে পারে।

 

একজন প্লেয়ার যখন কোন ক্লাবের হয়ে খেলবে তখন অবশ্যই সে চাইবে ভাল খেলতে এবং তার দল যেন ট্রফি জিততে পারে। কুটিনহো ক্লাবে অনেক ভাল করছে কিন্তু তবুও ট্রফির কাছাকাছি যেতে পারছে না। বার্সেলোনায় গেলে হয়তো সে ক্লাবের হয়ে ট্রফি জিততে পারবে।

 

এখন অসুবিধা গুলো তুলে ধরছিঃ

 

কুটিনহো বর্তমানে লিভারপুলের প্রধান ভরসা। তাকে ঘিরেই গেইম প্লেন গুলো সাজানো হয় এবং সে স্বধীন অবস্থায় খেলতে পারে। কিন্তু বার্সায় গেলে তা হবে না। কারন সেখানে মেসিকে সুয়ারেজদের নিয়ে গেইম প্লেন সাজানো হবে আর কুটিনহোর কাজ হবে তাকে সাহায্য করা। যার ফলে তার আগের খেলার ধরন বদলে যেতে পারে। এর ফলে সবচেয়ে বেশি খারাপ প্রভাব পড়বে ব্রাজিল টিমের উপর। কুটিনহোর খেলার ধরন বা ফ্রম খারাপ হয়ে গেলে হেক্সা জয় থেকে ব্রাজিল কিছুটা হলেও পিছিয়ে পড়বে।

 

এখন শুধু সময়ের অপেক্ষা, দেখা যাক কি হয়।