• ক্রিকেট

২০১৯ বিশ্বকাপ - আমির নেই, সঠিক নাকি বোকামি সিদ্ধান্ত পাকিস্তানের

পোস্টটি ১৬৭৮ বার পঠিত হয়েছে

সর্বশেষ ১৯৯২ বিশ্বকাপ শিরোপা জয়ী পাকিস্তান ট্রেন্ট ব্রিজে ৩১ মে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে বিশ্বকাপ মিশন শুরু করবে। আসন্ন ২০১৯ বিশ্বকাপে আইসিসির বেঁধে দেওয়া সময়ে সবগুলো দলই ছোট বড় চমক রেখে বিশ্বকাপের ১৫ সদস্যের দল ঘোষণা করেছে। পাকিস্তানের দল ঘোষণায় তর্ক বিতর্কের সৃষ্টি হয় মোহাম্মদ আমির একদশে না থাকায়। ২০১৭ সালের চ্যাম্পিয়নস ট্রফির ফাইনাল ম্যাচে ভারতের বিপক্ষে জয় ছিনিয়ে নেওয়ার মূল নায়ক ছিলেন মোহাম্মদ আমিরের। তার অসাধারণ বোলিং নৈপুণ্যে হুমড়ি খেয়ে গুটিয়ে যায় বিরাট কোহলির দল। আর সেই ইংল্যান্ডের মাটিতে বিশ্বকাপের মঞ্চে থাকবেনা বর্তমান সময়ের সবচেয়ে নন্দিত - নিন্দিত খেলোয়াড় মোহাম্মদ আমির। 

images (6)      

চ্যাম্পিয়নস ট্রফির পর থেকে গত দুই বছরে মোহাম্মদ আমিরের পারফরম্যান্স অত্যন্ত খারাপ যাচ্ছে। যার ভিত্তিতে ১৫ সদস্যের স্কোয়াডে জায়গা হয়নি আমিরের। কারণ, ২০১৭ আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির পর এতটাই বাজে ফর্মের মধ্য দিয়ে যাচ্ছেন যে, সেটা একটা রেকর্ড হয়ে থাকবে। আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির পর প্রায় একশত এক ওভার বল করে মাত্র ৫ উইকেট নিতে পেরেছেন তিনি। যার গড় ৯২.৬০ করে। এই সময়ের মধ্যে সআরা বিশ্বের বোলারদের মধ্যে সবচেয়ে বাজে পারফরম্যান্স তার। বিশ্বকাপ স্কোয়াডে জায়গা না হলেও ঠাই হয়েছে বিশ্বকাপের আগে স্বাগতিক ইংল্যান্ডের সাথে এক ম্যাচ টি-টোয়েন্টি ও পাঁচ ম্যাচের ওয়ানডে এবং আফগানিস্তানের সাথে এক ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলবেন তিনি। এই সিরিজগুলোতে নির্বাচকমণ্ডলীর মন জয় করতে পারলে ২৩ মে তারিখের দিকে মুখিয়ে থাকার আশা করতে পারেন মোহাম্মদ আমির।         

বিশ্বকাপ জয়ের সম্ভাবনা এবং স্কোয়াড শক্তিমত্তা   

১৯৯২ সালে পাকিস্তান বিশ্বকাপে বিশ্ব সেরা হয়েছিল পাকিস্তানের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের নেতৃত্বে। অবসরে গিয়ে ফিরে এসে বিশ্বকাপ জয় করার নজিরবিহীন কান্ড ইমরান খানই দেখিয়েছিলেন। এরপর আর বিশ্বকাপের ট্রফি উঠিয়ে ধরতে পারেনি একবারও পাকিস্তান। ২০১৭ সালে চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারতকে হারিয়ে বড় মঞ্চের দিকে ফুরফুরে মেজাজে রয়েছে। চ্যাম্পিয়নস ট্রফি জয়ী নেতা সরফরাজ খানকে এবারো অধিনায়ক বানিয়ে স্কোয়াড ঘোষণা করে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি)। 

Untitled-design-6-

পাকিস্তানের বিশ্বকাপ স্কোয়াড   

আসন্ন বিশ্বকাপে পাকিস্তানের টপ অর্ডার সামলানোর দায়িত্ব নেবেন ইমাম উল হক, বাবর আজম ও মোহাম্মদ রিজওয়ানের মতো দারুণ তুঙ্গে থাকা ব্যাটসম্যানরা। চার ও পাঁচ নম্বর পজিশনে থাকবেন সাবেক অধিনায়ক শোয়েব মালিক এবং বর্তমান অধিনায়ক সরফরাজ খান। 

পাকিস্তানের পেস বোলিং ইউনিটে থেকে বাদ পড়েছেন মোহাম্মদ আমির ও আসিফ আলি। ২৩ মে'র পর মোহাম্মদ আমির দলে ডাক না পেলে পেস বোলিং আক্রমণের নেতৃত্বে থাকবেন অভিজ্ঞ ডানহাতি পেসার হাসান আলি ও তরুণ পেসার শাহেন শাহ আফ্রিদি। তরুণ মোহাম্মদ হাসনাইনও জায়গা পেয়েছেন বিশ্বকাপের দলে। এছাড়া দলে আছেন অলরাউন্ডার ফাহিম আশরাফ। স্পিন আক্রমণের নেতৃত্বে থাকবেন অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সিরিজের মাঝপথে প্রথমবারের মতো অধিনায়কের দায়িত্ব পাওয়া ইমাদ ওয়াসিম। শোয়েব মালিকও প্রয়োজনের সময় বল হাতে অলরাউন্ডার হিসেবে বিশেষ ভূমিকা রাখতে পারেন। বিশ্বকাপ শুরুর দ্বিতীয় দিনে আগামী ৩১ মে ক্রিস গেইল, আন্দ্রে রাসেল ও শেই হোপদের বিপক্ষে বিশ্বকাপ মিশন শুরু করবে পাকিস্তান।    

পাকিস্তানের ১৫ সদস্যের স্কোয়াড:   সরফরাজ আহমেদ (অধিনায়ক), বাবর আজম, আবিদ আলি, ইমাদ ওয়াসিম, হাসান আলি, ফাহিম আশরাফ, ফখর জামান, ইমাম উল হক, শোয়েব মালিক, মোহাম্মদ হাফিজ, মোহাম্মদ হাসনাইন, শাহেন শাহ আফ্রিদি, জুনায়েদ খান, মোহাম্মদ শাদাব, হারিস সোহেল।

প্লেয়ার টু ওয়াচ 

252856

 বাবর আজম

২০১৫ সালে অভিষেক হওয়া বাবর আজম পাকিস্তানের জন্য একজন অনন্য ব্যাটসম্যান। লম্বা সময় ধরে দুর্দান্ত পারফর্ম করে আসছেন এবং ব্যাট হাতে দারুণ ধারাবাহিক। দলের প্রয়োজনে যেমন প্রতিপক্ষ বোলারের ওপর চড়াও হতে পারেন, তেমন বিপর্যয়ে দেখে খেলতেও বদ্ধপরিকর। বাবর ইতিমধ্যে কয়েকটি উল্লেখযোগ্য রেকর্ডের মালিক বনে গেছেন। ২০১৭ সালে মাত্র ২১ ইনিংসে ১০০০ রান করে ওয়ানডেতে ভেঙে দিয়েছেন বিরাট কোহলির দ্রুততম ১ হাজার রানের রেকর্ড। এখন পর্যন্ত টপঅর্ডারে এই সংষ্করণে ৬১ ম্যাচ খেলে ৫০.৬ গড়ে করেছেন ২ হাজার ৫২৯ রান। চুরাশির উপরে স্ট্রাইক রেটিং নিয়ে পাকিস্তানের ব্যাটিংয়ে দারুণভাবে শুরু করার সক্ষমতা রয়েছে তার। বর্তমানে আইসিসির ওয়ানডে র‌্যাংকিংয়ে অবস্থান করছেন সেরা দশের সাত নম্বরে। তাই বিশ্বকাপের স্পটলাইটে অনায়াসে জায়গা করে নিবেন বাবর আজম।

[Note : All photos are collected from Getty Images & other news sources]     

'প্যাভিলিয়ন ব্লগ’ একটি কমিউনিটি ব্লগ। প্যাভিলিয়ন ব্লগে প্রকাশিত লেখা, মন্তব্য, ছবি এবং ভিডিওর সম্পূর্ণ স্বত্ব এবং দায়দায়িত্ব লেখক এবং মন্তব্য প্রকাশকারীর নিজের। কোনো ব্যবহারকারীর মতামত বা ছবি-ভিডিওর কপিরাইট লঙ্ঘনের জন্য প্যাভিলিয়ন কর্তৃপক্ষ দায়ী থাকবে না। ব্লগের নীতিমালা ভঙ্গ হলেই কেবল সেই অনুযায়ী কর্তৃপক্ষ ব্যবস্থা নিবেন।