• ক্রিকেট

বিশ্বকাপ বিতর্ক(পর্ব-৩)

পোস্টটি ১২৬৯ বার পঠিত হয়েছে

শিরোনাম দেখে কি চমকে উঠেছেন।?আমিও প্রথমে চমকে উঠেছিলাম। কিন্তু এটা কিন্তু বাস্তব। ২০১১ সালে কিন্তু এটা নিয়ে ভারতীয় গণমাধ্যমে অনেক বিতর্ক উঠেছিল ট্রফি কি আসল না নকল? যার পিছনে ছিল মূলত ভারতীয় পত্রিকা ‘মেইল টুডে’।

২৮ বছরের বন্ধ্যাত্ব। মাহেন্দ্র সিং ধোনীর নেতৃত্বে সেই বন্ধ্যাত্ব ঘুচিয়ে বিশ্বকাপ ট্রফি জেতে ভারত। সকলে যখন সেই আনন্দে মাতোয়ারা, তখন বোমা ফাটায় ভারতীয় পত্রিকা ‘মেইল টুডে’। দাবি করে ভারতকে নকল ট্রফি দেয়া হয়েছে! আসল ট্রফি নাকি রক্ষিত স্থান থেকে ২য় সেমিফাইনালের পরপরই মুম্বাইয়ে কাস্টম অফিসে বাজেয়াপ্ত করা হয়েছিল। যা পরে আইসিসির আদেশে দুবাইতে আইসিসির হেড অফিসে  পাঠিয়ে দেয়া হয়। এবং ফাইনালে ভারতকে যে ট্রফি দেয়া হয়েছে সেটা নকল ট্রফি!

mail Today 2011 Trophy এর ছবির ফলাফলট্রফি হাতে উদযাপনরত ভারতীয় ক্রিকেট দল।     

এই খবর প্রকাশের পর পুরো ভারতে শোরগোল পড়ে যায়। তৎকালীন আইসিসি সিইও হারুন লোরগাত প্রতিক্রিয়ায় বলেন, ‘এটা খুবই দুঃখজনক যে মিডিয়া আসল তথ্য না জেনে রিপোর্ট করছে। ভারতকে সেই ট্রফিই দেয়া হয়েছে যেটা তাদের দেয়ার উদ্দেশ্য ছিল।‘ (It is very disappointing that media reports do not represent the fact. India got the trophy which was intended to be delivered to them.)  

২য় পর্ব - অদ্ভুত বৃষ্টি আইন এবং দক্ষিণ আফ্রিকার দুর্ভাগ্য

এই কথার পর বিতর্ক আরো উসকে যায়। তবে কি আইসিসি কি ভারতকে নকল ট্রফি দেয়ার উদ্দেশ্য করেছিল? নানা প্রশ্ন জনগণের মাঝে ঘুরতে থাকে। পরে আইসিসি মিডিয়া রিলিজ দিয়ে জানায় কাস্টমসে থাকা ট্রফিটা শুধু প্রচারণার জন্য নেয়া হয়েছিল এবং সেটি নকল। তখন প্রশ্ন উঠে, তবে কেন এই ট্রফির জন্য শ্রীলংকায় ভি.ভি.আই.পি নিরাপত্তা দেয়া হয়েছিল?   

আইসিসি পরে আরেকটি বিবৃতি জানায় যে আইসিসি ভারতকে যে ট্রফি ফাইনালে তুলে দিয়েছে সেই ট্রফিটিই বিশ্বকাপে বাকি সকল দলকে দেয়া হয়েছিল। এবং ‘এটি নিয়ে কোনো বিতর্কের অবকাশ নেই’ বলে এই বিতর্কের এখানেই ইতি টানার ঘোষণা দেয়।  

haroon lorgat এর ছবির ফলাফলতৎকালীন আইসিসি সিইও হারুল লোরগাত। 

তবে বিতর্ক তখনও থামেনি। ‘মেইল টুডে’ তাদের যুক্তির সপক্ষে একটি বড় প্রমাণ হাজির করে। পত্রিকায় তারা উল্লেখ করে,  

‘এই বিশ্বকাপ ট্রফিটি ১৯৯৯ বিশ্বকাপ থেকে প্রচলন হয়েছে। তারপর থেকে ট্রফিতে ১৯৯৯, ২০০৩ ও ২০০৭ বিশ্বকাপের চ্যাম্পিয়নদের নাম লেখা ছিল। কিন্তু ভারতকে দেয়া ট্রফিতে এই ৩টি আসরের দলের নামের কোনো অস্তিত্বই নাই! অথচ সাক্ষাৎকারে হারুন লোরগাত এই প্রশ্নের কোনো জবাবই দেননি।’    

এরপর আইসিসি এই বিতর্ক নিয়ে আর টু শব্দও করেনি। তবে বিতর্ক দূরীভূত করার জন্য ২০১৫ সাল থেকে উক্ত আসরের বিশ্বকাপের লোগোসহ রেপ্লিকা ট্রফি দেয়া হচ্ছে, যেটাতে শুধু উক্ত আসরের চ্যাম্পিয়নের নাম থাকবে। ভবিষ্যতেও এই ধারা বজায় থাকবে।  

পরের পর্ব- ২০০৭ ফাইনাল, অন্ধকারের গহীনে ডুবে যাওয়া এক ফাইনাল। সাথেই থাকুন! 

তথ্যসূত্রঃ Times of India, Mail Today, India Today, Al-Jajeera 

'প্যাভিলিয়ন ব্লগ’ একটি কমিউনিটি ব্লগ। প্যাভিলিয়ন ব্লগে প্রকাশিত লেখা, মন্তব্য, ছবি এবং ভিডিওর সম্পূর্ণ স্বত্ব এবং দায়দায়িত্ব লেখক এবং মন্তব্য প্রকাশকারীর নিজের। কোনো ব্যবহারকারীর মতামত বা ছবি-ভিডিওর কপিরাইট লঙ্ঘনের জন্য প্যাভিলিয়ন কর্তৃপক্ষ দায়ী থাকবে না। ব্লগের নীতিমালা ভঙ্গ হলেই কেবল সেই অনুযায়ী কর্তৃপক্ষ ব্যবস্থা নিবেন।