• বাংলাদেশ-আফগানিস্তান-জিম্বাবুয়ে ত্রিদেশীয় সিরিজ
  • " />

     

    • বাংলাদেশ-আফগানিস্তান-জিম্বাবুয়ে ত্রিদেশীয় সিরিজ

    সাকিবের সঙ্গে আমার কোনো দ্বন্দ্ব নেই: মাহমুদউল্লাহ


    খুব ভালো যাচ্ছিল না তার। এমন নয়, বিশ্বকাপটা নিজের খুব খারাপ গেছে। ৬ ইনিংসে ৪৩.৮ গড়ে ২১৯ রান, ব্যর্থ বলা যাচ্ছে না মাহমুদউল্লাহকে। কিন্তু মাঠের বাইরে সময়টা ভালো যাচ্ছিল না। ড্রেসিংরুমে কোন্দলে জড়িয়ে পড়েছিলেন, এমন একটা খবর যে চাউর হয়ে পড়েছিল! আজ মিরপুরে অনুশীলনের পর সেই গুঞ্জনটা অস্বীকারই করলেন। দাবি করলেন, যেভাবে খবরটা উপস্থাপন করা হয়েছে তা ঠিক নয়।

    বিশ্বকাপের সময় ইংল্যান্ডেই ফিসফাসটা শোনা গিয়েছিল। তবে খবরটা মূলধারার সংবাদমাধ্যমে এসেছিল শ্রীলংকার বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজে। বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচে মাহমুদউল্লাহ যেভাবে ব্যাট করেছিলেন, তাতে সাকিব আল হাসান প্রকাশ্যেই নিজের অসন্তোষ জানিয়েছিলেন বলে জানিয়েছিল একাধিক প্রচারমাধ্যম। এমনকি মাহমুদউল্লাহর সঙ্গে কয়েকজন সতীর্থেরও একচোট হয়ে গেছে বলে জানিয়েছিল মূলধারার গণমাধ্যম।

    এসব নিয়ে প্রশ্নচিহ্নটা বড় হতে থাকে  শ্রীলংকা সিরিজে তার ব্যাট কথা না বলায়। তবে বিশ্বকাপের অনেক আগে থেকেই লম্বা সময় প্রচারমাধ্যমের সামনে আসছিলেন না বলে গুঞ্জনের পালে ডালপালা শুধু মেলছিলই। প্রথমে কিছু বলতে না চাইলেও আজ মিরপুরে নিজের অবস্থান কিছুটা পরিষ্কার করলেন, ‘আমার মনে হয় এই ধরনের জিনিস নিয়ে কথা না বলাই ভালো। এ নিয়ে আমি কোনো মন্তব্য করতে চাই না। কিছু কিছু জিনিস যেভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে সেটা আসলে হয়নি।, সেটা আসলে ভিন্নভাবে হতে পারত। আমার মনে হয় না কোনো টিমমেটের সাথে আমার কোনো গণ্ডগোল বা কিছু আছে। আমরা এখনও সবাই ভালো বন্ধু। আপনারাও চাইলে ড্রেসিংরুমে আসতে পারেন। আমরা কীভাবে কথা বলি, এক জনের সাথে কতটা মজা করি, ছোট হোক বড় হোক, নিজেরা কীভাবে সময় সময় কাটাই; সেটা আপনারা নিজেরা এসে দেখতে পারেন। আমি শুধু এতটুকুই বলি, আমার তরফ থেকে শতভাগ দিয়ে যাচ্ছি। যেন সবার সাথে ভালোভাবে থাকতে পারি, দলের জন্য অবদান রাখতে পারি। সব সময় এই কথাটা বলে যাচ্ছি। আজও এই কথাটাই বলছি। আশা করি ভবিষ্যতেও সবকিছু ঠিক থাকলে এই কথাই বলব।’

    পরে নিজের অবস্থানটা পরিষ্কার করেছেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে, ''কিছুক্ষণ আগে অনলাইন নিউজে দেখলাম সাকিবের সঙ্গে ড্রেসিংরুমের সমস্যা ভিন্নভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে। আসলে সাকিবের সঙ্গে আমার কোনো ধরনের দ্বন্দ্ব বা সমস্যা নেই। আমরা দুজন খুব ভালো সতীর্থ। আমাদের সম্পর্কটা এখনও বেশ ভালো, আছে ও থাকবে।'

    এতদিন প্রচারমাধ্যমের সামনে আসেননি কেন সেই প্রশ্নের কৌতূহলও মেটালেন মাহমুদউল্লাহ, ‘আমি মিডিয়ার বাইরে ছিলাম না। আমি ঠিক মুহূর্তের জন্য অপেক্ষায় ছিলাম, যেন ভালো কিছু করে আপনাদের সামনে আসতে পারি। এটার জন্য অপেক্ষা করছিলাম। গত সিরিজটা ভালো যায়নি। তবে বিশ্বকাপে খারাপ করিনি, আশা করি সামনে ভালো করতে পারব । ’

    এই মুহূর্তে অবশ্য মনটা একটু ভারমুক্ত থাকার কথা। বোলিং করতে পারছিলেন না সেই ফেব্রুয়ারিতে নিউজিল্যান্ড সিরিজ থেকে। বিশ্বকাপেও পারেননি। শ্রীলংকা সিরিজে রাউন্ড আর্ম অ্যাকশনে বল করলেও কিছু করতে পারেননি। আজ মিরপুরে স্বাভাবিক অ্যাকশনেই বল করতে পেরেছেন। সেটা তাকে তৃপ্তিও দিচ্ছে, ‘বোলিং আমার খেলার বড় একটা পার্ট। বোলিং খুব মিস করছিলাম, কারণ এটা আমার খেলায় বাড়তি একটা আত্মবিশ্বাস দেয়। বোলিং দিয়ে আমি দলের জন্য কিছুটা অবদান রাখতে পারি। এখন ভালো লাগছে। সুস্থ থাকলে আশা করি এই সিরিজে বোলিং করতে পারব।’

    এর মধ্যে রাসেল ডমিঙ্গো নতুন কোচ হিসেবে যোগ দিয়েছেন। দক্ষিণ আফ্রিকান কোচদের মধ্যে ম্যাকেঞ্জির সঙ্গে তো কাজ করেছেনই। মাহমুদউল্লাহ অবশ্য মনে করিয়ে দিলেন, ‘ম্যাকেঞ্জির সাথে অনেক দিন কাজ করছি। দারুণ ব্যাটিং কোচ। ওর কিছু আইডিয়া, ছোটখাটো কিছু হেল্প পেয়েছি, আমার জন্য অনেক কাজে এসেছে তা। আমার মনে হয় এখন কোচিং প্যানেল খুব হাই প্রোফাইল। আমার জন্য খুব পজিটিভ দিক। আমাদের হেড কোচের ব্যাপারেও শুনেছি, এখনও কথা হয়নি। দক্ষিণ আফ্রিকা দলের কোচ ছিলেন, আশা করি তার কাছ থেকে আমরা ভালো কিছুই পাব। এর বাইরে ল্যাঙ্গেভেল্ট আছেন, ভেট্টোরি আছেন। আমাদের কোচিং প্যানেলটা এখন হাই প্রোফাইলই বলতে হবে। তবে এর মানে এই না উনারা খুব চেষ্টা করেছেন, কিন্তু আমরা কিছু করতে না পারলে লাভ হবে না। আবার আমরা চেষ্টা করেছি, উনারা বসে থাকলেও হবে না। দলের উন্নতির জন্য দুই পক্ষ থেকে চেষ্টাটাই জরুরি।’