• অন্যান্য খবর
  • " />

     

    অস্থায়ী বন তৈরির জন্য স্টেডিয়াম ছেড়ে দিল অস্ট্রিয়ার ক্লাব

    নগরায়নের প্রভাবে বিশ্বজুড়েই রাতারাতি কমে এসেছে বনের পরিমাণ। সাম্প্রতিক সময়ে আমাজনের ভয়াবহ দাবানল চিন্তার ভাজটা আরও বাড়িয়ে দিচ্ছে পরিবেশবাদীদের। এমন অবস্থায় অস্ট্রিয়ার ক্লাব ক্লাগেনফুর্ট নিয়েছে অভিনব এক পদক্ষেপ। বনায়নের ব্যাপারে সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য নিজেদের স্টেডিয়ামেই তারা তৈরি করেছে ৩০০ গাছের ছোটখাটো একটা বনাঞ্চল! 

    অস্ট্রিয়ার দ্বিতীয় বিভাগের ক্লাব ক্লাগেনফুর্টের ওথেরসে স্টেডিয়ামের ধারণ ক্ষমতা প্রায় ৩২ হাজার। এই মাঠে ২০০৮ ইউরোর বেশ কিছু ম্যাচও হয়েছিল। গত কয়েক মাস ধরেই এই মাঠে সব ধরনের খেলা, অনুশীলন বন্ধ আছে। সেখানে গড়ে উঠেছে বনাঞ্চল। ওক, পাইনসহ নানা প্রজাতির প্রায় ৩০০টি গাছ লাগানো হয়েছে সেখানে। 

    কিন্তু কীভাবে স্টেডিয়ামের ভেতর এমন বনাঞ্চল করার বুদ্ধি এলো ক্লাগেনফুর্ট কর্তৃপক্ষের? ১৯৭০ সালে ম্যাক্স পেইন্টার নামের স্থানীয় এক চিত্রশিল্পী স্টেডিয়ামের ভেতর গাছ লাগানোর একটি ছবি এঁকে হইচই ফেলে দিয়েছিলেন। ৪৯ বছর পর তার আঁকা ছবির মতো করেই সাজানো হয়েছে ক্লাগেনফুর্টের স্টেডিয়ামকে। 

     

     

    সুইস চিত্রশিল্পী ক্লস লিটম্যান এই পুরো প্রক্রিয়াটির পরিকল্পনাকারী। তিনি এই প্রজেক্টের নাম দিয়েছেন ‘বনের জন্যঃ পরিবেশের জন্য অফুরন্ত ভালোবাসা’। লিটম্যান জানিয়েছেন, পরিবেশ রক্ষায় সচেতনতা তৈরির জন্যই বিশেষ একটি কর্মশালার আয়োজন করা হবে এই গাছগুলোকে নিয়ে। 

    আগামী অক্টোবর পর্যন্ত এই গাছগুলো ক্লাগেনফুর্টের স্টেডিয়ামে থাকবে। ততোদিন পাশের একটি মাঠেই নিজেদের ম্যাচ খেলবে ক্লাবটি। আগামী সপ্তাহ থেকে মাঠে প্রবেশ করে ক্ষুদ্র এই বনটি দেখতে পারবেন সবাই।