• বাংলাদেশ-আফগানিস্তান-জিম্বাবুয়ে ত্রিদেশীয় সিরিজ
  • " />

     

    বোলিংয়ের আত্মবিশ্বাস ব্যাটিংয়ে কাজে লাগাতে চান আফিফ

    বিপিএলে প্রথম আলো কেড়েছিলেন বিপিএলের হয়ে। রাজশাহী কিংসের হয়ে অভিষেকেই ৫ উইকেট নিয়ে ফেলে দিলেন তোলপাড়। তবে আফিফ হোসেনের পরিচয় শেষ পর্যন্ত বল করতে পারা ব্যাটসম্যানই, পুরোদস্তুর অলরাউন্ডার সেভাবে হতে পারেননি। তবে বল হাতে সামর্থ্যের জানান দিয়ে যান মাঝেমধ্যে, যেমন দিয়েছেন আজ। ফতুল্লায় জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে প্রস্তুতি ম্যাচে নিয়েছেন ৩ উইকেট। ত্রিদেশীয় সিরিজে সুযোগ পেলে বল হাতে কিছু করতে চান।

    গত বছরের ফেব্রুয়ারুতে শ্রীলংকার বিপক্ষে একটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচে খেলেছিলেন। এরপর জাতীয় দলের হয়ে আর খেলার সুযোগ হয়নি। তবে হারিয়ে যাননি, ছিলেন আশেপাশেই। এ দল, এইচপির হয়ে নিয়মিত খেলেছেন, গত কিছুদিনে ব্যাট হাতেও মোটামুটি ধারাবাহিক হয়েছে। টি-টোয়েন্টি সিরিজে আফিফের ডাক পাওয়া তাই চমক বলা যাবে না কোনোভাবেই। কিন্তু এই দেড় বছরে নিজের পরিবর্তনটা কোথায় দেখতে পাচ্ছেন? আফিফ অবশ্য নিজের মূল্যায়ন নিজে করতে চাইলেন না, ‘স্কিল লেভেল কোথায় পৌঁছেছে সেটাতো আমি বিবেচনা করতে পারবো না। আমার খেলা দেখে অন্যরা বুঝতে পারবে। আমি এ দল, এইচপিতে যতগুলো খেলা হয়েছে সবখানে খেলেছি, ওখানে ভালো খেলার চেষ্টা করেছি। ওটাই আমাকে অন্য জায়গায় ভালো খেলতে হেল্প করবে’।

    ব্যাটিংটা ভালো করলেও বল হাতে তেমন কিছু করেননি। আসলে করার সুযোগও পাননি। আফগানিস্তান এ দলের বিপক্ষে পাঁচ ম্যাচে একবার মাত্র বল করেছিলেন। শ্রীলংকা এইচপি দলের বিপক্ষে তিন ম্যাচে করেছেন ৮ ওভার, একটি উইকেট অবশ্য নিয়েছেন। তবে আজ জিম্বাবুয়ের টপ অর্ডারে মাসাকাদজা, আরভিন ও উইলিয়ামসকে ফিরিয়ে যা একটু কিছু করতে পেরেছেন আফিফই। জাতীয় দলে সুযোগ পেলে বোলিংটা বাড়াতে চান, ‘‘এ’ দলের হয়ে বোলিংটা কম করা হচ্ছিল। এখানে সুযোগ পেয়ে কাজে লাগাতে পেরেছি। পাওয়ার প্লেতে বোলিং করেছি, উইকেট পেয়েছি। এই আত্মবিশ্বাস কাজে দেবে।’

     

     

    বিসিবি একাদশ অবশ্য আজ ৭ উইকেটে হেরে গেছে, ম্যাচ প্রস্তুতিও খুব ভালো হয়নি কারও। আফিফ অবশ্য বললেন, কিছু সুযোগ তারা ছেড়েছেন, ‘শুরুটা ভালোই হয়েছিল, ১০/২০ টা বেশি রান হলে আরও ভালো হতো। এই জায়গাতে আমরা পিছিয়ে ছিলাম। এটা হলে আমাদের জন্য আরও ভালো হতো। টাইটতো অবশ্যই দেওয়া যেত। আমরা শুরুর দিকে কিছু চান্স মিস করেছি। কিছু ক্যাচ মিস করেছি। সেটা না হলে ম্যাচটা অন্যরকম হতে পারতো। আমাদের বোলারদের আরও ভালো বোলিং করার জায়গা ছিল। ’

    এই ভুলগুলোই শোধরাতে চাইবেন জাতীয় দলে সুযোগ পেলে।