• ফুটবল, অন্যান্য
  • " />

     

    কিক অফের আগে : ডার্বি দিয়ে বছর শুরু বার্সার, ইতালিতে ইব্রার আগমন

    শীতকালীন বিরতির পর লা লিগা, সিরি আ ফিরছে এ সপ্তাহে। ফ্রান্সেও ঘরোয়া ফুটবল ফিরছে, তবে লিগ কাপের ম্যাচ রয়েছে পিএসজির। আর প্রিমিয়ার লিগ এতোদিন চালু থাকলেও এ সপ্তাহে শুরু হচ্ছে ফুটবলের সবচেয়ে পুরোনো টুর্নামেন্ট এফএ কাপ। তৃতীয় রাউন্ড থেকে প্রিমিয়ার লিগের বড়দলগুলো অংশ নিচ্ছে, তাই এ সপ্তাহে নেই কোনো প্রিমিয়ার লিগের ম্যাচ। তবে এফএ কাপেও রয়েছে বড় ম্যাচ। সেসব নিয়েই ইউরোপিয়ান ফুটবলের সাপ্তাহিক প্রিভিউ। 

    ডার্বি দিয়ে বছর শুরুর বার্সার, রিয়ালের প্রতিপক্ষ গেটাফে
    লা লিগায় কাতালান ডার্বি দিয়ে বার্সেলোনার নতুন মৌসুম শুরু হচ্ছে বার্সেলোনার। এস্পানিওলের বিপক্ষে ম্যাচ শুরুর আগেই অবশ্য পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষস্থানটা হারাতে হতে পারে লিওনেল মেসির দলকে। রাতে রিয়াল মাদ্রিদ গেটাফের মাঠে জয় পেলে শীর্ষস্থানে উঠবে রিয়াল মাদ্রিদ।

    এস্পানিওলকে নিয়ে অবশ্য খুব বেশি দুশ্চিন্তার কোনো কারণ নেই বার্সেলোনার। তাই লা লিগার শীর্ষস্থান দুই পয়েন্টের লিডটা সপ্তাহশেষেও বার্সেলোনারও ধরে রাখার কথা। বিশেষ করে ২০০৯ সালের পর কাতালান ডার্বিতে কখনই বার্সাকে হারাতে পারেনি এস্পানিওল। আর এই মৌসুমে মাত্র ১০ পয়েন্ট নিয়ে তাদের অবস্থান লা লিগার পয়েন্ট টেবিলের একেবারে তলানীতে। আপাতত তাই রেলিগেশন বাঁচাতেই হিমশিম খেতে হচ্ছে এস্পানিওলকে। গত মাসের শুরুতে একবার কোচও বদলেছে তারা। অক্টোবরের পর আর লিগে জয়ের দেখাও পায়নি তারা, টালমাটাল মৌসুমে বার্সেলোনার বিপক্ষে এস্পানিওল দারুণ কিছু করে ফেললে সেটা হবে বড় চমকই।

    রিয়াল মাদ্রিদের জন্যও কাজটা খুব বেশি কঠিন হওয়ার কথা নয়। এই মৌসুমে বার্সার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে লিগে টেক্কা দিলেও  গেল বছরটা খুব ভালোভাবে শেষ করতে পারেনি রিয়াল। শেষে টানা তিন ম্যাচ ড্র করেছিল তারা। এর ভেতর অ্যাথলেটিক বিলবাওয়ের সঙ্গে ড্র করেই বার্সার চেয়ে দুই পয়েন্টে পিছিয়ে পড়তে হয়েছিল জিনেদিন জিদানের দলকে। নতুন বছরে আর পা হড়কানোর সুযোগ নেই তাই রিয়ালের জন্য।  ম্যাচের আগে রিয়াল সমর্থকদের জন্য অবশ্য স্বস্তির সংবাদ দিতে পারেননি জিদান। রিয়াল কোচ জানিয়েছেন আগামী সপ্তাহে স্প্যানিশ সুপার কোপা খেলতে এডেন হ্যাজার্ডকে ছাড়াই রওয়ানা হবে তার দল। তবে হ্যাজার্ডের অনুপস্থিতি হয়ত পয়েন্ট টেবিলের ছয়ে থাকা গেটাফের বিপক্ষে বড় বাধা হয়ে দাঁড়ানোর কথা নয় জিদানের জন্য।

    গেটাফে-রিয়াল মাদ্রিদ
    ৪ জানুয়ারি, রাত ৯.০০
    এস্পানিওল-বার্সেলোনা
    ৫ জানুয়ারি, রাত ২.০০


    ইতালিতে ইব্রাহিমোভিচ 'ক্রেজ'
    ৩৮ বছর বয়সেও নতুন চ্যালেঞ্জ নিয়েছেন ইব্রাহিমোভিচ। কিছুদিন আগেও শীর্ষ পর্যায়ে যার ক্যারিয়ার শেষ ধরে নেওয়া হয়েছিল সেই তিনিই আবার ফিরে এসেছেন সিরি আতে। পুরনো ক্লাব এসি মিলানে যোগ দিয়ে অনুশীলনও করে ফেলেছেন। এ সপ্তাহে সাম্পদোরিয়ার বিপক্ষেই মাঠে নেমে যেতে পারেন ইব্রা। ইতালিতে তাই সব আকর্ষণ এ সপ্তাহে ইব্রাকে ঘিরেই। অবশ্য এর চেয়ে বাজে সময়ে হয়ত মিলানে যোগ দিতে পারতেন না ইব্রা। সিরি আর শেষ ম্যাচে আটালান্টার কাছে ৫-০ গোলে হেরেছে মিলান। পয়েন্ট টেবিলের ১১ নম্বরে এখন রোসোনেরিরা। এরই মধ্যে একবার কোচ পরিবর্তন করা হয়ে গেছে তাদের। সবমিলিয়ে মিলানের অবস্থা নাজেহাল। নতুন ক্লাবে যোগ গিয়ে অবশ্য ইব্রা পণ করেছেন, পুরোনো চেহারা ফিরিয়ে আনতে নিজের সেরাটাই বিলিয়ে দেবেন। এই বয়সে কতোখানি তার সামর্থ্যে কুলায় সেটাই এখন প্রশ্ন।

    ইব্রার আগমনে তাই কিছুটা ঢাকা যাচ্ছে তার সাবেক দুই ক্লাব ইন্টার মিলান ও জুভেন্টাসের শিরোপা লড়াই। সমান পয়েন্ট নিয়ে গোলব্যবধানে এগিয়ে থেকে ১৭ ম্যাচ শেষে সবার ওপরে আছে ইন্টার। যদিও এ সপ্তাহেই বড় পরীক্ষায় থাকতে হচ্ছে নেরাজ্জুরিদের। নাপোলির বিপক্ষে ম্যাচ ইন্টারের। আর জুভেন্টাসের প্রতিপক্ষ পয়েন্ট টেবিলের ছয়ে নম্বর দল ক্যালিয়ারি। কোপা ইতালিয়াতে লাৎসিওর কাছে হেরে বছর শেষ হয়েছিল জুভেন্টাসের। সিরি আতে ইন্টারের জন্য অপেক্ষা করছে কঠিন পরীক্ষা। এই সুযোগে শীর্ষস্থানে ওঠার সুযোগটা হাতছাড়া করার কথা নয় ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোদের। বিশেষ করে রোনালদো গত বছরের শেষদিক থেকেই দারুণ ছন্দে ফিরেছেন। এর ভেতর বিশ্রামও পেয়েছেন। ইব্রার আগমনে মিলানে সাড়া পড়ে গেলেও, দারুণ কিছু করে রোনালদোই সব আলো কাড়তে চাইবেন এ সপ্তাহে। 

    ইন্টারের প্রতিপক্ষ নাপোলির অবস্থান আটে। কিন্তু সেটা স্বস্তি যোগানোর জন্য যথেষ্ট নয় আন্তোনিও কন্তের জন্য। প্রত্যাশামতো খেলতে না পারলেও ইন্টারকে হারিয়ে নতুন শুরুর আত্মবিশ্বাসটুকু পুঁজি করার সুযোগ হাতছাড়া করতে চাইবে না নাপোলি।

    জুভেন্টাস-ক্যালিয়ারি
    ৬ জানুয়ারি, রাত ৮.০০
    মিলান-সাম্পদোরিয়া
    ৬ জানুয়ারি, রাত ৮.০০
    ইন্টার-নাপোলি
    ৭ জানুয়ারি, রাত ১.৪৫


    আনচেলোত্তির সামনে লিভারপুল
    গত এক বছর ধরে প্রিমিয়ার লিগে কোনো ম্যাচ হারেনি লিভারপুল। এই মৌসুমে সব প্রতিযোগিতায় এখন পর্যন্ত লিভারপুল হেরেছে একবারই- চ্যাম্পিয়নস লিগে কার্লো আনচেলোত্তির নাপোলির কাছে। সেই আনচেলোত্তি এখন এভারটনের কোচ। এফএ কাপের চতুর্থ রাউন্ডে আরও একবার লিভারপুলের সঙ্গে দেখা হয়ে যাচ্ছে আনচেলোত্তির। এবার তিনি পাচ্ছেন মার্সিসাইড ডার্বির স্বাদ।

    দুই দলের শেষ দেখায় ৫-০ গোলে হেরেছিল এভারটন। লিগের ওই ম্যাচের পর এভারটনের নতুন কোচ হয়ে এসেছেন আনচেলোত্তি (মাঝে ডানকান ফার্গুসন অস্থায়ী কোচের দায়িত্ব পালন করেছেন)। খেলোয়াড়দের ক্লান্তি দূর করতে এরই এফএ কাপের ম্যাচে দ্বিতীয় সারির স্কোয়াড নামানোর ইঙ্গিত দিয়েছেন ইউর্গেন ক্লপ। লিভারপুল কোচের জন্য জয়টা অতোখানি গুরুত্বপূর্ণ না হলেও আনচেলোত্তির জন্য নতুন ক্লাবে নিজের কতৃত্বের জানান দেওয়ার ভালো একটি উপলক্ষ্য। অবশ্য এভারটনকে ৫-০ গোলে উড়িয়ে দেওয়ার ম্যাচেও নিজের নিয়মিত একাদশের অনেককেই বিশ্রামে রেখছিলেন ক্লপ। আপাতত লিভারপুল যে ধরনের ফর্মে আছে- তাদের আটকানো তো যে কোনো দলের জন্যই প্রায় অসম্ভব।

    এফএ কাপ তৃতীয় রাউন্ড
    লিভারপুল-এভারটন
    ৫ জানুয়ারি রাত, ১০.০০