• বাংলাদেশ বনাম জিম্বাবুয়ে সিরিজ ২০১৬
  • " />

     

    ২২ গজের সেলুলয়েড । আঘাত এলো জোড়া জোড়া!

    ছবির পরে ছবি চলে নাকি তৈরী হয় সিনেমা। ক্রিকেট ম্যাচও তো তাই। টুকরো টুকরো অসংখ্য ছবি জন্ম নেয় যেখানে। ২২ গজ আর সবুজ ওই উদ্যানের ছবিগুলোকে যদি ধরা যেত সেলুলয়েডে! 

     

    অভিষিক্ত এলো, অভিষিক্তই গেলো!

    আগের ম্যাচে অভিষেক হয়েছিল একসঙ্গে চারজনের। সে ম্যাচের একাদশ থেকে আজ পরিবর্তন তিনটি, বাদ পড়লেন সেদিনের তিন অভিষিক্তই! মুক্তার আলী, মোসাদ্দেক হোসাইন, মোহাম্মদ শহীদের জায়গায় এলেন তামিম ইকবাল, আরাফাত সানি ও তাসকিন আহমেদ। তাসকিন শেষ টি-টোয়েন্টি খেলেছিলেন গত বছরের এপ্রিলে পাকিস্তানের সঙ্গে। আর আরাফাত সানি নামলেন এই সিরিজে প্রথমবার।

    বিশ্রাম থেকে ফিরে এলেন জিম্বাবুইয়ান অধিনায়ক এল্টন চিগুম্বুরাও। সঙ্গে লুক জঙ্গোয়ী আর নেভিল মাদজিভা। তাঁদের জন্য জায়গা ছেড়ে দিলেন শন উইলিয়ামস ও টাউরাই মুজারাবানি, আর অ্যাকশনজনিত সমস্যার কারণে খেললেন না ব্রায়ান ভিটরি।

     

    রনির দেখা কয়েকপিঠ

    তৃতীয় ওভারের প্রথম বলটা অফস্ট্যাম্পের একটু বাইরে ফুললেংথে করেছিলেন। মুতুম্বামি মিড অফ দিয়ে চার মারলেন। পরের বলটাও অমনই, তবে এবার টাইমিংটা মিললো না ঠিক, মিড-অফ নাগাল পেলেন না অল্পের জন্য! পরের বলেই মুতুম্বামি ক্যাচ দিলেন তাসকিনকে, তাঁকে সহায়তা করতে কয়েকজন ফিল্ডারও এগিয়ে গেলেন! তাঁদেরকে দেখেই কিনা ভড়কে গেলেন তাসকিন, মিস করলেন ‘লোপ্পা’ ক্যাচটা! ১১তম ওভারে নিজের দ্বিতীয় ওভার করতে এলেন রনি, ব্যাটসম্যান ওই মুতুম্বামিই। প্রথম বলেই ইয়র্কার, এবার আর সামলাতে পারলেন না, হলেন বোল্ড!
     

    মাসাকাদজাতেই শরণ

    ৫৩ বলে ৭৯, ২৮ বলে ৩০, ১৯ বলে ২০ এর পর আজ ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ ৫৮ বলে ৯৩, তাও অপরাজিত। সিরিজে মোট রান ২২২, গড় ৭৪। সিরিজে সর্বোচ্চ রান হ্যামিল্টন মাসাকাদজারই, দ্বিতীয় সর্বোচ্চ সাব্বির রহমানের(১৪০) সঙ্গে রানের পার্থক্য ৮২! অনেক অদল বদল করলেও ওপেনিংয়ে জিম্বাবুয়ে খেলিয়েছে সিবান্দা ও মাসাকাদজাকেই। মাসাকাদজাও প্রতিদান দিলেন, সিরিজসেরা হয়ে! সঙ্গে ওয়ার্ল্ড টি-টোয়েন্টির প্রস্তুতিটাও নিশ্চয়ই ভালই হলো!

     

    বাংলাদেশের ৫০, সাকিবেরও ৫০!

    এই খুলনাতেই প্রথম টি-টোয়েন্টি খেলেছিল বাংলাদেশ, আজ সেখানেই নামলো পঞ্চাশতম ম্যাচটি খেলতে! এ ম্যাচে আবার পঞ্চাশ ছুঁলেন সাকিবও! আগের ম্যাচেই নিজের ৪০০তম আন্তর্জাতিক উইকেট পেয়েছেন, প্রথম বাংলাদেশী হিসেবে। এবার আরেকটা জায়গায় প্রথম হলেন সাকিব। সিকান্দার রাজাকে নুরুল হাসানের ক্যাচ বানিয়ে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে প্রথম ৫০ উইকেট নিলেন, নিজের ৪২তম ম্যাচে। টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ উইকেট আব্দুর রাজ্জাকের। ৪৪ উইকেট নিতে রাজ্জাক খেলেছেন ৩৪টি ম্যাচ।

     

    আঘাত এলো জোড়া জোড়া, তিনবার!

    দ্বিতীয় ওভারটা নেভিল মাদজিভাকে ছয় মেরে শুরুর করেছিলেন সৌম্য সরকার। ছক্কার পরেই অক্কা গেলেন সৌম্য, ক্যাচ দিলেন উইকেটকিপারকে। ওই ওভারের শেষ বলে তামিম ইকবালকে বোল্ড করলেন মাদজিভা, ১৩ রানেই ২ উইকেট নেই বাংলাদেশের।
     

    পরের ওভার করতে এলেন টেন্ডাই সিজোরো, এবার প্রথম বলে ক্যাচ দিলেন সাব্বির। তৃতীয় বলে চার মেরেছিলেন সাকিব, বোল্ড হলেন পরের বলেই! এবার বাংলাদেশের স্কোর হলো ১৭, ৪ উইকেটে!

    ১৯তম ওভারে মাদজিভার তিন বল গেলো বাউন্ডারির বাইরে, সঙ্গে দুই ব্যাটসম্যানকেও মাঠের বাইরে পাঠালেন! আরাফাত সানি দুই চারের পর বোল্ড, আবু হায়দার ক্যাচ দিলেন একটি চারের পর! শেষ কফিনটা ঠুকলেন মাদজিভাই, বাংলাদেশের কফিনে!

     

    চিগুম্বুরা এলেন, চিগুম্বুরা গেলেন! 

    আগের দুই ম্যাচে বিশ্রামে ছিলেন, হ্যামিল্টন মাসাকাদজা ছিলেন অধিনায়ক। শেষ ম্যাচে ফিরে এলেন এল্টন চিগুম্বুরা, অধিনায়ক হয়েই। তবে তখন কে জানতো, এটিই হবে অধিনায়ক হিসেবে চিগুম্বুরার শেষ ম্যাচ! ম্যাচ শেষে যে জানা গেল, এল্টন চিগুম্বুরা তিন সংস্করণ থেকেই জিম্বাবুয়ের অধিনায়কত্ব ছেড়ে দিয়েছেন! সাম্প্রতিক সময়টা ভাল যাচ্ছিলো না তেমন, চিগুম্বুরা হয়তো বিদায় বললেন সে কারণেই! 

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন