• অন্যান্য খবর
  • " />
    X
    GO11IPL2020

     

    পিএসজিতে তৃতীয় ম্যাচেই ক্যারিয়ারের প্রথম ট্রফি পেয়ে গেলেন পচেত্তিনো

    ১১ বছরের কোচিং ক্যারিয়ারে কখনো কিছু জেতা হয়নি তার। এসপানিওলে কাজ করেছেন চার বছর, সাউদাম্পটনে দেড় বছর, এরপর টটেনহামে সাড়ে পাঁচ বছর - সর্বোচ্চ প্রাপ্তি হয়ে থেকেছে একবার চ্যাম্পিয়নস লিগ ও একবার লিগ কাপের ফাইনালে ওঠা। তবে পিএসজিতে আসার পর তৃতীয় ম্যাচেই ট্রফির স্বাদ পেয়ে গেলেন মরিসিও পচেত্তিনো। মার্শেইকে ২-১ গোলে হারিয়ে ফ্রেঞ্চ সুপার কাপ জিতেছে পিএসজি কাল।

    ইংল্যান্ডের কমিউনিটি শিল্ডের মতো এই ফ্রেঞ্চ সুপার কাপ হয় লিগ চ্যাম্পিয়ন ও কাপ চ্যাম্পিয়নদের মধ্যে। এই বছর পিএসজি ও মার্শেইয়ের মধ্যে এই ম্যাচটা ছিল পচেত্তিনোর মাত্র তৃতীয় ম্যাচ। তুখেলের চলে যাওয়ার পর কয়েক দিন আগেই মাত্র দায়িত্ব নিয়েছেন প্যারিসের ক্লাবের।

    চোট থেকে এই ম্যাচে ফিরেছেন নেইমার, তবে ম্যাচের আসল নায়ক ছিলেন মাউরো ইকার্দি। শুরুতে একটা গোল পেতে পারতেন এই স্ট্রাইকার, তবে অফসাইডের জন্য তা বাতিল হয়ে যায়। ৩৯ মিনিতে অবশ্য গোল পেয়ে যান ইকার্দি। তার হেড মার্শেই গোলরক্ষক ফিরিয়ে দিলেও ফিরতি বলটা জড়িয়ে দেন জালে।

    এরপর ইকার্দি আরও সুযোগ পেয়েছিলেন, তবে বাধা হয়ে দাঁড়ায় বারপোস্ট। দ্বিতীয়ার্ধে চোট কাটিয়ে ফেরেন নেইমার, প্রায় এক মাস নামেন মাঠে। ৮৫ মিনিটে নেইমারকে গোল করার সুযোগ করে দেন ইকার্দিই। তাকে ফেলে দেওয়া হলে পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি, স্পটকিক থেকে এগিয়ে দেন নেইমার। একদম শেষ দিকে মার্শেইয়ের দিমিত্রি পায়েট গোল শোধ করলেও সেটা যথেষ্ট ছিল না।

    ফ্রান্সের ঘরোয়া লিগে গত ২০টি শিরোপার ১৯টিই জিতল পিএসজি। আর সুপার কাপ জিতল টানা আটবারের মতো।

    পিএসজি জিতলেও জার্মানিতে হোঁচট খেয়েছে বায়ার্ন। জার্মান ডিএফবি পোকালের দ্বিতীয় রাউন্ডে দ্বিতীয় বিভাগের দল হোলস্টনের কিয়েলের কাছে টাইব্রেকারে হেরে গেছে ৬-৫ গোলে। নির্ধারিত সময়ের খেলা ২-২ গোলে ড্র হওয়ার পর পেনাল্টিতে জেতে কিয়েল। ২০০৪ সালের পর এই প্রথম বুন্দেসলিগার নিচের স্তরের কোনো দলের কাছে হারল বায়ার্ন।

    ওদিকে ইতালিতে অতিরিক্ত সময়ের গোলে জয় পেয়েছে জুভেন্টাস, জিতেছে ইন্টার ও নাপোলিও।

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন