• এশিয়া কাপ ২০১৬
  • " />
    X
    GO11IPL2020

     

    ভারতীয় ভক্তের হাজতবাসে হতাশ আফ্রিদি

    উপমহাদেশে ক্রিকেটকে দেখা হয় ধর্ম হিসেবে। ক্রিকেট এ অঞ্চলে এমন এক খেলা যা কোন সীমানা মানে না। কিন্তু সেই সীমা ছাড়িয়ে যাওয়ার অপরাধেই হাজতবাস করতে হচ্ছে আসামের এক আফ্রিদি ভক্তকে। এ নিয়ে হতাশা ব্যক্ত করেছেন খোদ শহীদ আফ্রিদি নিজেই।

    ঘটনার শুরু আসাম প্রদেশের হাইলাকান্দির এক ঘরোয়া লিগ ম্যাচে। রিপন চৌধুরী নামের সেই আফ্রিদি ভক্ত পাকিস্তানি অলরাউন্ডারের নম্বর সম্বলিত জার্সি পরে খেলতে নেমেছিলেন জেলা ক্রীড়া সংস্থা মাঠে। তা দেখেই সরকারী দল বিজেপির অংশ হিসেবে পরিচিত ভারতীয় যুব মোর্চা পুলিশের কাছে দেশদ্রোহী কার্যক্রমে লিপ্ত থাকার অভিযোগ আনে রিপনের বিরুদ্ধে। শনিবার পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে নিয়ে যায়। স্থানীয় পুলিশ ইতোমধ্যে ভারতীয় আইনের ১২০(খ), ২৯৪ ধারা অনুসারে রিপনের বিরুদ্ধে মামলাও দায়ের করেছে।

     

     

    তবে আফ্রিদি খুবই দুঃখ পেয়েছেন এই ঘটনায়। পাকিস্তানি পত্রিকাকে বলেছেন, “বলতে বাধ্য হচ্ছি, এই ধরনের আচরণ অসহিষ্ণুতাকেই নির্দেশ করে। তাই রিপনকে দোষী সাব্যস্ত করা উচিৎ নয়। ভারতে যেমন পাকিস্তানি ক্রিকেটারদের ভক্ত আছে, ঠিক তেমনি পাকিস্তানেও ভারতীয় ক্রিকেটারদের প্রচুর সমর্থক আছে। ক্রিকেট ভক্তদের কেবল ক্রিকেটপ্রেমী হিসেবেই দেখা উচিৎ দুদেশে। রাজনীতির সাথে ক্রিকেটকে মেশানোটা দুঃখজনক।” দরকার পড়লে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সাথেও কথা বলবেন বলে জানিয়েছেন সাবেক পাকিস্তান অধিনায়ক।

    তবে আফ্রিদির এই ক্রিকেট দর্শনের সাথে ঠিক খাপ খাচ্ছে না পাকিস্তানের আদালতের রায়। গত ফেব্রুয়ারিতে ভারতের টেস্ট অধিনায়ক বিরাট কোহলির পাকিস্তানি ভক্ত উমর দারাজ নিজের বাড়ির ছাদে উড়িয়েছিলেন ভারতের পতাকা। এই দোষে পাঞ্জাবের ওকারার স্থানীয় আদালত তাকে ১০ বছর কারাদণ্ড প্রদান করে। পরে অবশ্য সরকারী হস্তক্ষেপে জামিন পেয়েছিলেন ২২ বছরের তরুণ।

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন