• ক্রিকেট

'বিপিএলের ধারাভাষ্য-সম্প্রচারে উন্নতির সুযোগ আছে'

এবারের বিপিএল নিয়ে শুরু থেকেই নানানমুখী সমালোচনা। সম্প্রচারের নিম্নমান, একের পর এক ভুল, হাস্যকর ধারাভাষ্য, দর্শকদের সংখ্যার নিম্নগামী গ্রাফ, ব্যাটিং বিমুখ উইকেট- এবারের বিপিএল নিয়ে সমালোচনার শেষ নেই। আজ অবশ্য মাঠে দর্শক ছিল, রংপুর-ঢাকার ম্যাচও ছিল জমজমাট। আজ থেকে চালু হয়েছে আল্ট্রা এজও। এসব নিয়েই আজ সংবাদ সম্মেলনে মুখোমুখি হয়েছিলেন বিপিএল গভর্নিং বডির সদস্যসচিব ইসমেইল হায়দার মল্লিক, চেয়ারম্যান শেখ সোহেল ও মিডিয়া কমিটির প্রধান জালাল ইউনুস। তারা দাবি করলেন, বিপিএলে সব দিক দিয়েই সেরা প্রযুক্তি ব্যবহার করা হচ্ছে, এবং মানের দিক দিয়ে এটি বিশ্বের সেরা। তবে অন্য সব সমালোচনার জবাবে মল্লিক স্বীকার করলেন, বিপিএলে এখনো উন্নতির অনেক সুযোগ আছে।

সম্প্রচার ইয়েই এবার অভিযোগ ছিল বেশি। আল্ট্রা এজ ছাড়া ডিআরএস ব্যবহার করায় শুরু থেকেই ছিল সমালোচনা। এর মধ্যে ধারাভাষ্যকারেরা একের পর এক ভুল করে আলোচনায় এসেছে। মল্লিক অবশ্য একটা একটা করে অভিযোগ খন্ডন করার চেষ্টা করলেন। সম্প্রচার নিয়ে সমালোচনার জবাবে বললেন, এবার প্রথমবারের মতো ৩৫টি ক্যামেরা ব্যবহার করা হয়েছে। গ্রাফিক্সে যেসব ভুল হয়েছে সেগুলো ‘টাইপিং মিস্টেক’ হিসেবেই দাবি করলেন।

এবারের বিপিএলে প্রথমবারের মতো সম্প্রচার স্বত্ব নিজেদের কাছে রেখেছে বিসিবি। ধারাভাষ্যকারের ব্যাপারে অবশ্য দায় নিতে চাইলেন না মল্লিক। পরে স্বীকার করলেন, এই জায়গায় উন্নতির অনেক সুযোগ আছে। যারা প্রতিনিয়ত ভুল করছেন তাদেরকে কীভাবে বদলানো যায় সেই চিন্তাও আছে। আপাতত পরের পর্ব থেকে ড্যারিল কালিনানসহ নতুন কিছু ধারাভাষ্যকার আনার কথা বললেন। তবে সেটি কবে থেকে তা নিশ্চিত করেননি।

প্রশ্ন আছে উইকেট নিয়েও। বিপিএলে যে ধরনের উইকেটে খেলা হচ্ছে, তাতে রান করা কঠিন তা শুরু থেকেই বলছেন খেলোয়াড়েরা। দেশিরা একটু রেখেঢেকে বললেও বিদেশীরা সরাসরিই তা বলছেন। মল্লিক অবশ্য সেটি মানতে চাইলেন না। বললেন, গত কয়েক দিনে উইকেট উন্নতি করেছে কিছুটা।

দর্শক কমে যাওয়ার জন্য উঠে এলো অনেক কারণও। এমনিতেই দুপুরে খেলা, ঢাকার মাঠ প্রায় ফাঁকাই থাকছে। সেই কথা চিন্তা করে বিপিএলের সময় ঘন্টাখানেক পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে বলেও দাবি করলেন সদস্য সচিব। কিন্তু টিকিটের দাম ২০০ টাকা যে বেশি হয়ে গেছে, তা মানতে চাইলেন না। আপাতত টিকিটের দাম কমবে না, এমন আভাসও দিয়ে রাখলেন।