• " />

     

    মরগানের ৫, যুক্তরাষ্ট্রের ১৩ গোলের রেকর্ড জয়

    বিশ্বকাপে গোল করবেন কিন্তু উদযাপন করবেন না- সেটা তো হয় না। কিন্তু এক ম্যাচে যদি এক ডজনের বেশি গোল করে ফেলেন, তাহলে কি প্রতিপক্ষের সম্মানে উদযাপন কমিয়ে আনা উচিত? এমন অদ্ভুত এক প্রশ্নের সামনে দাঁড় করিয়ে দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র ও থাইল্যান্ডের উইমেন্স ওয়ার্ল্ডকাপের ম্যাচটি। যুক্তরাষ্ট্র গুণে গুণে ১৩ গোল দিয়েছে থাইল্যান্ডকে। অ্যালেকস মরগান একাই দিয়েছেন ৫ গোল। যুক্তরাষ্ট্রের ১৩-০ গোলের জয়টা বিশ্বকাপ ইতিহাসেরই সবচেয়ে বড় হয়ে গেছে। 

    ফ্রান্সে শুরু হওয়া মেয়েদের বিশ্বকাপে গ্রুপপর্বের দলগুলোর মধ্যে সবার পরে মাঠে নেমেছিল যুক্তরাষ্ট্র। থাইল্যান্ডের মেয়েদের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের মেয়েদের উচ্চতার পার্থক্য ম্যাচে বড় প্রভাব ফেলবে সেটা জানাই ছিল। তবে ম্যাচের একেবারে শুরু থেকেই সাতজন নিয়ে আক্রমণে ঝাঁপিয়ে পড়ে যুক্তরাষ্ট্র। প্রথম গোল পেতে তাদের অপেক্ষা করতে হয়েছে মাত্র ১২ মিনিট। শুরু করেছিলেন মরগানই। তবে প্রথমার্ধ পর্যন্তও যুক্তরাষ্ট্রের জয়টা এতো বড় হবে সেটা ভাবা যায়নি। প্রথমার্ধ শেষ হয়েছিল ৩-০ গোলে। 

    এরপরই তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়ে থাইল্যান্ড। ৭৫ মিনিট পর্যন্ত ম্যাচের ফল দাঁড়ায় যুক্তরাষ্ট্র ৮, থাইল্যান্ড শূন্য। জয় নিশ্চিত জেনেও অবশ্য যুক্তরাষ্ট্রের মেয়েরা দয়া দেখায়নি থাইল্যান্ডকে। বাকি সময়ে আরও ৫ বার গোল করে রেকর্ড জয় নিশ্চিত করে ফেলে তারা। প্রতিটি গোলের পর মুষড়ে পরা থাই মেয়েদের সামনেই উদযাপন করেছে যুক্তরাষ্ট্রের মেয়েরা। সেটা আবার পরে সমালোচিতও হয়েছে।

    মরগান অবশ্য প্রশংসিতই হচ্ছেন। এক ম্যাচে সবচেয়ে বেশি গোলের রেকর্ডে ভাগ বসিয়েছেন তিনি। ম্যাচশেষে কান্নায় ভেঙে পড়া থাই মেয়েদের সান্ত্বনাও দিয়েছেন মরগান। আলোচনা, সমালোচনার ভিড়ে তাই মরগানের বিশ্বকাপ শুরুটা হলো আরও দুর্দান্ত।