• বিপিএল ২০১৯
  • " />

     

    সাকিবকে পেতে সরাসরি একজন 'স্থানীয় সাইনিংয়ের' দাবি রংপুরের

    বিপিএলে নিয়ে এত জলঘোলা হচ্ছেই মূলত ওই একটা সিদ্ধান্তের জন্য। সাকিব আল হাসানকে ঢাকঢোল পিটিয়ে রংপুর রাইডার্স দলে নেওয়ার পরেই শুরু হয় যত ঝামেলা। এরপর বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিল সংবাদ সম্মেলন করে জানান দেয়, সাকিবের সই করার ব্যাপারে কোনো অনুমোদন দিতে পারছে না তারা। এবার থেকে সব নতুন করে শুরু হবে। সেই ধারাবাহিকতায় ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলোর সঙ্গে বসছে বোর্ড। ঝামেলা যাদেরকে নিয়ে, সেই রংপুর রাইডার্সের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ইশতিয়াক সাদেক আজ বলেছেন, তারা বোর্ডের কাছে একজন স্থানীয় খেলোয়াড় সরাসরি সাইনিংয়ের দাবি করে এসেছে।

    ঢাকা ডায়নামাইটস ছেড়ে হুট করে সাকিব আল হাসান রংপুরে যাওয়ার পর গভর্নিং কাউন্সিল বলেছিল, বিপিএলে এবার নতুন চক্র শুরু হওয়ার কারণে আগের কোনো নিয়ম থাকবে না। আজ যেমন রংপুর প্রধান নির্বাহী বললেন, বোর্ড তাদের দুই বা তিনজন বিদেশী খেলোয়াড় সরাসরি দলে নেওয়ার প্রস্তাব দিয়েছে। তারা বোর্ডকে সরাসরি একজন দেশী খেলোয়াড় দলে নেওয়ার দাবি জানিয়ে এসেছেন, ‘আমরা টিমের কিছু প্লেয়ার রিটেন করা নিয়ে কথা বলেছি। সাকিব এখানে বড় কোনো ইস্যু না। আজ কী করতে চাই, কীভাবে করতে চাই সেটা জানতে চাইল। আমরা নিজেদের প্রস্তাব দিয়েছি।

    আমাদের প্রস্তাব ছিল একটা দল একভাবে খেলে এসেছে, পরের চার বছরের জন্য একটা কোর দরকার। দলের কিছু খেলোয়াড় রিটেন করার ব্যাপার আছে, সেই রিটেনশন নিয়ে কথা বলেছি। ফ্রেশ সাইনিং ছিল গত বছর, সেটা নিয়ে কথা হয়েছে। আইকন প্লেয়ার বলে এবার নাকি কিছু থাকবে না। সেক্ষেত্রে আমরা লোকাল একজনকে সরাসরি সাইনিংয়ের জন্য বাধ্যতামূলক চেয়েছি। বোর্ড থেকে বলা হয়েছে, সরাসরি সাইনিং দুই বা তিন জন থাকবে। আমরা বলেছি, এর মধ্যে একজন স্থানীয়কে বাধ্যতামূলক করা হবে। বোর্ড বলেছে, তারা কথা বলে আমাদের জানাবে।’

     ইশতিয়াক সাদেক স্পষ্ট করেই বললেন, এই আলোচনাটা আগে করলে দল নিয়ে পরিকল্পনা করতে সুবিধা হতো তাদের, ‘গত বছর সব ফ্র্যাঞ্চাইজির সাথে মিটিং হয়েছিল। আমাদের মৌখিকভাবে বলা হয়েছিল নিয়ম একই থাকবে। আমরা সেটার পরিপ্রেক্ষিতেই চার জনকে ধরে রাখার পরিকল্পনা করে দল সাজিয়েছি। ওরাও স্বীকার করেছে একটা ভুল হয়েছে। দিন তো বেশি বাকি নেই। এখন বাকি সবার সাথে আলোচনা করে ঠিক করা হবে। এই আলোচনাটা আগে হলে আমাদের জন্য সুবিধা হতো।’

    কিন্তু মাশরাফিকে কি ছেড়ে দিচ্ছে তারা? ইশতিয়াক সাদেক বললেন, মাশরাফি আইকন না থাকার সম্ভাবনা ধরে নিয়ে তারা তাকে রেখে দিতে চান, ‘মাশরাফি তো আমাদের ঘরের ছেলে। ও ওয়ানডে থেকে অবসর নেওয়ার কথা। ও যদি অবসর নেয় সেই হিসেবে আমরা চিন্তা করেছিলাম, এবার হয়তো ও আর আইকন থাকবে না। আর ও যেহেতু টি-টোয়েন্টিতে নেই, আর বিপিএল যেহেতু টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট মাশরাফিকে তাই আইকন রাখা যায় না। আর আমাদের দেশে সাতজন প্রপার আইকন খুঁজে পাওয়া মুশকিল। আমাদের প্ল্যানে সে সেভাবেই ছিল।’