• ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ
  • " />

     

    সালাহ স্বার্থপর ফরোয়ার্ড: ওয়েন

    গত শনিবার বার্নলির বিপক্ষে ম্যাচে মোহামেদ সালাহর পাস না দেওয়া নিয়ে প্রকাশ্যেই নিজের ক্ষোভটা জানিয়েছিলেন সাদিও মানে। সাবেক ইংল্যান্ড স্ট্রাইকার মাইকেল ওয়েন ইএসপিএনকে দেওয়া এক বিশেষ সাক্ষাৎকারে বলছেন, সালাহ একজন ‘স্বার্থপর’ ফরোয়ার্ড। তবে সালাহর এই ‘স্বার্থপরতায়’ লিভারপুলের খুব একটা সমস্যা হবে না বলেই জানিয়েছেন ওয়েন। 

     

     

    লিভারপুলের তিন ফরোয়ার্ড সালাহ-মানে-ফিরমিনোর কে কতটুক 'স্বার্থপর', সেই ব্যাপারে নিজের মতামত জানিয়েছেন ওয়েন, ‘লিভারপুলের তিন ফরোয়ার্ডের ভেতর ফিরমিনোই সবচেয়ে কম স্বার্থপর। সে পৃথিবীর সবচেয়ে নিঃস্বার্থ স্ট্রাইকারদের একজন। তার সাথে খেলা স্বপ্নের মতো। অন্যদিকে সালাহ খুব স্বার্থপর। সে শুধু নিজের গোল করা নিয়েই ভাবে। মানে দুইজনের মাঝামাঝি। কখনো স্বার্থপর হয়, কখনো পাস দেয় গোলের সুযোগ থাকলেও।’  

    দলে ‘স্বার্থপর’ স্ট্রাইকার থাকলেও লিভারপুল কোচ ইউর্গেন ক্লপের দুশ্চিন্তার কিছু নেই বলেই মানছেন ওয়েন, ‘আমার মনে হয় লিভারপুল স্কোয়াডে যথেষ্ট ভারসাম্য আছে। সেদিন আমিও খেলা দেখার সময় বলেছিলাম, সালাহ বেশ কিছু পাস দিতে পারত। এরকম অনেক সময়ই হবে। ক্লপকে সেটার সমাধান করতে হবে। তবে দলে একজন স্বার্থপর, একজন নিঃস্বার্থ স্ট্রাইকার থাকলে ভারসাম্যটা থাকে। এরকম না হলে আপনি গোল পাবেন না। আর সালাহর এই সমস্যাটা খুব বেশিদিন থাকবে না। পরের ম্যাচে সে অবশ্যই বেশি পাস দেবে। এরকমটা হলে সবাই আগের ঘটনা ভুলে যাবে।’ 

    মানে-সালাহ দ্বন্দ্বটা ক্যামেরার সামনে এসেছে বলেই এত বিতর্ক হচ্ছেন, বলছেন ওয়েন, ‘ক্লপের জন্য দুঃখজনক ব্যাপার হচ্ছে দুই ফুটবলারের ওই ব্যাপারটা ক্যামেরার সামনে হয়েছে। ক্লাবে এসব হয়ই। মাঝে মাঝে এরকম মনমালিন্য হওয়া স্কোয়াডের জন্য ভালো। ২৫ জনের একটা স্কোয়াড নয়-দশ মাস ধরে একসাথে খেলে। এখানে মনমালিন্য হওয়াটাই স্বাভাবিক। ম্যানেজারের উচিত সবাইকে একসাথে রাখা।’