• লা লিগা
  • " />

     

    মাদ্রিদ ডার্বির সময় কাসেমিরোর বাড়িতে দুর্বৃত্তদের হানা

    লা লিগা ফুটবলারদের বাড়িতে দুর্বৃত্তদের হানা দেওয়ার ঘটনা বেড়েই যাচ্ছে প্রতিদিন। আলভারো মোরাতা, লুকাস ভাজকেজ, জর্দি আলবা, জেরার্ড পিকে, আর্থার মেলোদের পর এবার রিয়াল মাদ্রিদ মিডফিল্ডার কাসেমিরোর বাড়িতেও নিরাপত্তা বেষ্টনী ভেদ করে ঢুকে যাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। স্প্যানিশ টিভি চ্যানেল এল চিরিঙ্গিতো জানিয়েছে; দুর্বৃত্তদের হানা দেওয়ার সময় বাড়িতেই ছিলেন কাসেমিরোর স্ত্রী এবং তার সন্তান।

    এল চিরিঙ্গিতো অবশ্য নিশ্চিত করেছে; বাড়ি থেকে কিছু মূল্যবান ঘড়ি, ফুলদানির মত শৌখিন জিনিসপত্র চুরি গেলেও কোনও ক্ষতি হয়নি কাসেমিরো পরিবারের। সোমবার ওয়ান্ডা মেট্রোপলিটানোতে মৌসুমের প্রথম মাদ্রিদ ডার্বি শেষ করে ড্রেসিং রুমে ফেরার সময়ই ঘটনাটি জানানো হয় কাসেমিরোকে। তৎক্ষণাৎ পুলিশি নিরাপত্তায় বাড়িতে ছুটে যান তিনি। বাড়িতে এবং আশেপাশের রাস্তায় দুর্বৃত্তদের ধরার জন্য অভিযান চালায় পুলিশ, কিন্তু শেষ পর্যন্ত সফল হয়নি তারা। অভিযান শেষে থানায় গিয়ে মামলা করেন কাসেমিরো।

     

     

    এ বছরের জুনেই কাসেমিরোর সাবেক সতীর্থ মোরাতার বাড়িতে ঢুকে পড়েছিল দুর্বৃত্তরা। ফারো আইল্যান্ডের বিপক্ষে ইউরো ২০২০ বাছাইপর্বের ম্যাচ খেলছিলেন তখন তিনি। কাসেমিরোর পরিবারের মতই অক্ষত ছিলেন মোরাতার স্ত্রী এবং দুই সন্তান। তবে সবচেয়ে অপ্রীতিকর পরিস্থিতির শিকার হয়েছিলেন আর্থার। গত মৌসুমে ন্যু ক্যাম্পে লিভারপুলকে ৩-০ গোলে হারানোর ম্যাচের রাতে তার বাড়িতে ঢুকে আর্থারের আপন ভাইকে ছুরির মুখে জিম্মি করে বাড়ি থেকে মূল্যবান জিনিসপত্র চুরি করে পালিয়ে যায় তারা।

    ফুটবলারদের এবং তাদের পরিবারের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে প্রত্যেকের বাড়ির বাইরে পাহারা দিতে ইউনিফর্ম এবং সাদা পোশাকের পুলিশ নিয়োগ দিয়েছে রিয়াল এবং বার্সা। শুধু বড় ক্লাবের ফুটবলার নয়; রিয়াল বেটিসের হোয়াকিন এবং লাস পালমাসের হয়ে খেলার সময় কেভিন প্রিন্স বোয়াটেং-এর বাড়িতেও হয়েছিল চুরি। রিয়াল সহ লা লিগার অন্যান্য ক্লাবগুলো ফুটবলারদের নিজেদের বাড়ির ভিডিও বা ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার না করার পরামর্শ দিয়েছে- জানিয়েছে মার্কা।