• বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব
  • " />

     

    'নার্ভাস' না হয়ে দেশের জন্য খেলা উপভোগ করতে বললেন জামাল

    লাওসকে হারিয়ে বিশ্বকাপ ও এশিয়া কাপ বাছাইয়ের দ্বিতীয় পর্বে ওঠার পরই নিশ্চিত হয়ে গিয়েছিল এশিয়ার বড় দলের সঙ্গে খেলতে যাচ্ছে বাংলাদেশ। ভাগ্যের ফেরে সেই বড় দলটা হয়ে গেছে বিশ্বকাপের আয়োজক দেশ কাতার। যারা আবার এশিয়ারও সেরা। সেই কাতারের সঙ্গে গ্রুপ 'ই' এর ম্যাচে আগামীকাল ১০ অক্টোবর, বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে মুখোমুখি হওয়ার আগে বাংলাদেশ অধিনায়ক জামাল ভুইঁয়া বললেন, নার্ভাস না হয়ে উপভোগ করতে চান খেলাটা। 

    বাংলাদেশের এই দলটা মূলত তারুণ্যনির্ভর। আন্ত্ররজাতিক ম্যাচ খেলার অভিজ্ঞতাও কম। অন্যদিকে কাতারের ফুটবলাররা মান ও অভিজ্ঞতার দিক দিয়ে ঢের এগিয়ে। বাংলাদেশের এই স্কোয়াডের মিডফিল্ডার জামাল ভূঁইয়া, মামুনুল ইসলাম, গোলরক্ষক শহীদুল আলম সোহেল, আশরাফুল ইসলাম রানা ও ডিফেন্ডার ইয়াসিন খানরা চার বছর আগে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে বিশ্বকাপ ও এশিয়া কাপ বাছাইয়ের দ্বিতীয় পর্বে খেলেছিলেন। বড় প্রতিপক্ষের বিপক্ষে খেলার অভিজ্ঞতা তাই একেবারে নতুনও নয় জামালের জন্য।

    কাতারের বিপক্ষে ম্যাচের আগের দিন সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ অধিনায়ক ওই অভিজ্ঞতাটুকু পুঁজি করে নতুনদের খেলা উপভোগ করার বার্তা দিয়েছেন, “আমি বাকিদের বলেছি খেলাটা উপভোগ করতে। আমরা এরকম ম্যাচ খেলার সুযোগ কম পাই। স্নায়ুচাপে কেউ না যাতে  ভেঙে পড়ে সেটা খেয়াল রাখতে হবে। ভুল করলে কী হবে সেটা ভেবে লাভ নেই, সবাই ভুল করে। আমি ওদের বলতে চাই, দেশের জন্য খেলতে নামো, উপভোগ করো।”

    বড় ম্যাচে বাংলাদেশ ফুটবলাদের মনোবল ভেঙে এলোমেলো ফুটবল খেলার ইতিহাস আছে। তবে এ বছর খেলা ৬ ম্যাচে বাংলাদেশ জিতেছে ৪টিতেই, হার মাত্র একটি। জামাল বলছেন, এখন দিন বদলেছে, কোচ জেমি ডের অধীনে গোছানো ফুটবল খেলছে তার দল, “জেমির অধীনে আমরা গোছানো ফুটবল খেলছি। আমরা আগে এক গোল খেলে, আরও খেয়ে বসতাম। তবে ব্যাপারটা এখন আর এমন নয়।”

    বিশ্বকাপ বাছাইয়ের শেষ ম্যাচে কাতার নিজেদের মাঠে ড্র করেছিল ভারতের সঙ্গে। আর বাংলাদেশ আফগানিস্তানের কাছে হেরেছে ১-০ ব্যবধানে। কাতার-ভারত ম্যাচের ফল থেকেও অনুপ্রেরণা খোঁজার চেষ্টা করছেন জামাল, “ভারত ওদের বিপক্ষে ড্র করেছে। এটা আমাদের জন্য অনুপ্রেরণা। কাতার আক্রমণত্মক ফুটবল খেলবে, আমরা কাউন্টার অ্যাটাকে। হ্যাঁ,  যদি ভারত পারে তাহলে আমরা কেন নয়!”  

    ২০১৮ এশিয়ান গেমসে জামালের গোলেই কাতারকে হারিয়েছিল বাংলাদেশ। এবার তার কাছে তাই প্রত্যাশাও বেশি। জামাল একটু মজা করেই বলেছেন, গোলের সামনে বল পেলে সোজাসুজি শট করার চেষ্টা করবেন। কিন্তু বাংলাদেশ অধিনায়ক এটাও জানেন সে সব সুযোগ আসবে খুবই অল্প। আফগানিস্তান ম্যাচের মতো হেলায় আর সুযোগ হারাতে চান না তিনি।

    কাতারের বিপক্ষে তাহলে লক্ষ্য কি থাকবে বাংলাদেশ। সেই প্রশ্নের জবাবে পেশাদারিত্বের পরিচয় দিয়েছেন বাংলাদেশ অধিনায়ক। বলেছেন তিন পয়েন্টের জন্যই মাঠে নামবে তার দল।