• বাংলাদেশের বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব
  • " />

     

    বাংলাদেশকে খাটো করে দেখার ভুল করছেন না ভারত কোচ

    পরিসংখ্যান, ইতিহাস, ফর্ম সবকিছুই ভারতের পক্ষে। দুই দলের ২৮ বারের দেখায় বাংলাদেশ জিতেছে মাত্র দুইবার। কাল মঙ্গলবার কলকাতার যুব ভারতী স্টেডিয়ামের প্রায় ৬০ হাজার দর্শকের হাতে উড়বে তেরঙা পতাকা, সেখানে লাল সবুজ খুঁজে পাওয়া যাবে না। আর শক্তি সামর্থ্যে যে ভারত এগিয়ে, সেটা না বললেও চলে। তারপরও ফেবারিট প্রশ্নে বেশ সতর্কই ভারত কোচ ইগর স্টিমাচ।

    আগের দুই ম্যাচ থেকে ভারত পেয়েছে এক পয়েন্ট, সেটা অবশ্য শক্তিশালী কাতারের সঙ্গে ড্র করে। বাংলাদেশ অবশ্য প্রথম ম্যাচে আফগানিস্তানের কাছ থেকে পয়েন্ট নিয়ে ফিরতে পারত, কিন্তু রেফারির পেনাল্টির সিদ্ধান্ত পক্ষে যায়নি শেষ মুহূর্তে। অন্যদিকে কাতারের সঙ্গে পরের ম্যাচে ২-০ গোলে হারলেও শক্তিশালী প্রতিপক্ষের চেয়ে গোল করার পরিষ্কার সুযোগ বাংলাদেশই পেয়েছিল বেশি। এসব জানা আছে ভারতের কোচ স্টিমাচের, আজ ম্যাচ শুরুর আগে সংবাদ সম্মেলনে বললেন, ‘আমি মনে করি বাংলাদেশকে ছোট করে দেখার কোনো সুযোগই নেই। এ ব্যাপারে আমার অনেক অভিজ্ঞতা আছে। কেউ যখন প্রতিপক্ষকে খাটো করে দেখে, সেটার ফল কখনোই ভালো হয় না।’ বাংলাদেশ আগের দুই ম্যাচ হারলেও তাদের পারফরম্যান্স তাই মনে করিয়ে দিলেন ভারত কোচ, ‘বাংলাদেশ শক্ত দল হিসেবে প্রমাণ করেছে। কাতারের সঙ্গে ওরা যতগুলো সুযোগ তৈরি করেছে, সেই হিসেবে ওরা জিততে পারত। আমরা অবশ্য কাতারের সঙ্গে প্রথম ৬০ মিনিটের খেলার ওপরেই ভরসা করে আছি।’

    ‘বাংলাদেশ এখানে জিততেই এসেছে, হারতে আসেনি। সিংহকে খোঁচা মেরে জাগিয়ে দেওয়া ঠিক হবে না। গত কিছু দিনে তারা বেশ ভালো করেছে। গত ১৩টি ম্যাচের মধ্যে সাতটি ম্যাচ জিতেছে তারা। বেশ গোছানো একটা দল তারা, চোখে পড়ার মতো কিছু তরুণ খেলোয়াড়ও আছে। আমাদের সমর্থন করুন, তবে বাংলাদেশি সমর্থকদের সম্মানটাও আমাদের দেওয়া উচিত।’

    সব মিলে ফেবারিট তকমাটা তাই কৌশলগত কারণে এড়িয়ে গেলেন ভারতের ক্রোয়াট কোচ, ‘একটা ম্যাচে ফেবারিট দিয়ে আসলে কিছুই আসে যায় না। কাতারের সঙ্গে ম্যাচে সেটা আমরা প্রমাণ করেছি। খেলাটা হচ্ছে নির্দিষ্ট একটা দিনে কী হবে সেটার ওপর। খেলাটা হচ্ছে ১১ বনাম ১১। আপনারা ফেবারিট, আন্ডারডগ এসব তকমা দিতে পারেন, কিন্তু তাতে কিছু এসে যায় না। ’

    ভারতের কোচের দেওয়া ‘সম্মানটা’ এখন জামাল ভুঁইয়ারা রাখতে পারলে হয়!