• বাংলাদেশের বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব
  • " />

     

    কাতারের চেয়ে ওমানের ম্যাচকে কঠিন বলছেন রানা

    কাতারের বিপক্ষে ঘরের মাঠে খালি হাতে ফিরলে সে ম্যাচ থেকে প্রেরণা যোগানোর মতো অনেক কিছুই পেয়েছিল বাংলাদেশ। এর পর ভারতে গিয়ে ড্র করে আত্মবিশ্বাস কাজেও লাগিয়েছিল জেমি ডের দল। বাছাই পর্বে বাংলাদেশের পরের ম্যাচ ওমানের বিপক্ষে। বাংলাদেশ গোলরক্ষক আশরাফুল ইসলাম রানা অবশ্য বলছেন কাতারের চেয়েও কঠিন হতে যাচ্ছে ওমানের বিপক্ষে ম্যাচটি। 

    শক্তির বিবেচনায় গ্রুপ 'ই'-তে কাতারের পরই অবস্থান ওমানের। বিশ্বকাপ ও এশিয়া কাপ বাছাইয়ের দ্বিতীয় পর্বে গ্রুপের পয়েন্ট টেবলও সেরকমই ইঙ্গিত দিচ্ছে। কাতার ১০ পয়েন্ট নিয়ে সবার ওপরে। এরপরই ওমান ৬ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয়। ফিফা র‍্যাংকিংও তেমনটাই বলছে, কাতারের অবস্থান ৫৭ আর ওমান ৮৪।

    ওমানের বিপক্ষে অ্যাওয়ে ম্যাচ বলেই রানা পরীক্ষাটাকে বলছেন বেশি কঠিন, "কাতারের বিপক্ষে আমরা খেলেছিলাম আমাদের নিজেদের কন্ডিশনে। তাই অ্যাডভান্টেজটা পেয়েছিলাম আমরা। এবার আমাদের খেলতে হবে ওমানের বিপক্ষে, ওদের মাঠে। তাই কাতারের চেয়েও এই ম্যাচটা আসলে কঠিন।"

    ওমানের উদ্দেশ্যে দেশ ছাড়ার আগে বাফুফে ভবনে সংবাদ সম্মেলনে অবশ্য আশার কথাও শুনিয়েছেন রানা। সাম্প্রতিক সময়ে জাতীয় দলের ফল নতুন করে আশা দেখাচ্ছে সমর্থকদের। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম থেকে শুরু করে সব জায়গাতেই জামাল ভুঁইয়াদের নিয়ে আগ্রহও আগের চেয়ে বেড়েছে বহুগুণ। এসব অজানা নয় রানারও। উন্নতিটা এখন চোখে ধরা পড়লেও রানা বলছেন এই সাফল্য দুই বছরের পরিশ্রমের ফল। 

    "গত প্রায় ১৮-২০ মাসের আগের থেকে আসলে পরিবর্তনটা এসেছে। ফলটা হয়ত আমরা এক বছর ধরে পাচ্ছি। এশিয়ান গেমস থেকে। এই পর্যন্ত আসার পেছনে মূল কারণ ফিটনেস লেভেল। আগের চেয়ে আমাদের ফিটনেস অনেক ভালো হয়েছে। আমরা খাওয়া-দাওয়া, অনুশীলন আর নিয়মিত জিম করে ফিটনেস লেভেল ভালো রাখতে পারলে ভালো ফুটবল খেলতে পারব- এই ভাবনাগুলো আমাদের ভেতর এসে গেছে।" 

    ওমান শক্তিশালী দল হলেও তাদের বিপক্ষে নিজেদের সেরাটা দিয়ে লড়াই করে ভালো কিছু করার আশা দেখিয়ে গেছেন এর পর রানা। উন্নতির ধারাটা বজায় রাখতে চাইলে অবশ্য এর বিকল্পও নেই বাংলাদেশ দলের সামনে।