• বাংলাদেশের ভারত সফর
  • " />

     

    নেট সেশন : 'বিষাক্ত' দিল্লীতে বাংলাদেশের 'মাইনাস সাকিব প্লাস ওয়ান'

    টি-টোয়েন্টি সিরিজ, ১ম ম্যাচ
    ভারত-বাংলাদেশ

    কবে, কখন
    ৩ নভেম্বর, ২০১৯ 
    বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা ৭.৩০ (১৯৩০)


    সাকিব আল হাসান বিধ্বস্ত। মুখের ওপর রুমাল চেপে বসে পড়েছেন, দীনেশ কার্তিকের অতিমানবীয় ব্যাটিং হজম হয়নি যেন তখনও। নিদাহাস ট্রফির ফাইনালে বাংলাদেশের মুখের সামনে ঝুলতে থাকা ফাইনালটা ছিনিয়ে নিয়ে গেছেন কার্তিক, ৮ বলে ২৯ রানের অলৌকিক এক ইনিংসে। সেই ম্যাচের পর আবারও টি-টোয়েন্টিতে ভারতের মুখোমুখি হচ্ছে বাংলাদেশ, তবে এবার নেই সাকিব। তাকে দেওয়া আইসিসির নিষেধাজ্ঞা শুরু হয়ে গেছে, তাকে ছাড়া প্রথম লড়াইয়ে দিল্লীতে বাংলাদেশ নামবে মাহমুদউল্লাহর নেতৃত্বে। 

    বিশ্বকাপের পর শ্রীলঙ্কায় ওয়ানডে সিরিজে বাংলাদেশ নাকানিচুবানি খেয়েছিল তামিম ইকবালের নেতৃত্বে, এই সিরিজে নেই তামিম। এরপর দেশের মাটিতে ত্রিদেশীয় টি-টোয়েন্টি সিরিজে আফগানিস্তানের কাছেও হেরেছে বাংলাদেশ, অবশ্য ফাইনাল ভেসে গিয়েছিল বৃষ্টিতে। ভারত সফর বাংলাদেশের জন্য নতুন এক চ্যালেঞ্জ, ইতিহাসেরই অন্যতম কঠিন এক লড়াই তাদের। বাংলাদেশের সে চ্যালেঞ্জই বেশ কয়েকগুণ বেড়ে গেছে সাকিবের অনুপস্থিতিতে। 

    সাকিবের মতো টি-টোয়েন্টি সিরিজে অনুপস্থিত ভারতের নিয়মিত অধিনায়ক বিরাট কোহলি। অবশ্য তিনি আছেন বিশ্রামে, জাসপ্রিত বুমরাহ ও হারদিক পান্ডিয়া নেই চোটের কারণে। সানজু স্যামসনকে ফেরানো হয়েছে বেশ কিছুদিন পর, ডাক পেয়েছেন শিভাম দুবে। বাংলাদেশের টি-টোয়েন্টি সার্কিটে ফিরেছেন আরাফাত সানি, আল-আমিন হোসেনরা। ভারতের তরুণ দলের সামনে বাংলাদেশেরও নতুন এক দল, তবে চ্যালেঞ্জগুলি চোখ রাঙাচ্ছে ঠিকই। 

    সঙ্গে আছে দিল্লীর দূষিত বাতাস। দীপাবলির পর সেখানকার বায়ুদূষণের মাত্রা বেড়েই চলেছে, অনুশীলনেও বাংলাদেশ দলের বেশ কয়েকজনকে দেখা গেছে মাস্ক পরা অবস্থায়। তবে শেষ মুহুর্তে ম্যাচের ভেন্যু পরিবর্তনের সম্ভাবনা নেই বললেই চলে, অবশ্য সন্ধ্যায় ম্যাচ বলে দূষণ একটু কম ভোগাতে পারে দুই দলকে। চ্যালেঞ্জটা অবশ্য রয়েই যাচ্ছে। বিরুদ্ধ কন্ডিশনে বাতাস-ঠান্ডা-গরমের পর এবার তাই বাংলাদেশ মুখোমুখি বায়ুদূষণেরও। 

    এত চ্যালেঞ্জের ভীড়ে ভারত-বাধা টপকাতে পারবে বাংলাদেশ? পাবে তাদের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টিতে কখনোই না পাওয়া জয়ের দেখা? 

    রঙ্গমঞ্চ
    ফিরোজ শাহ কোটলা, দিল্লী 

    ২০০৯ সালে বিপজ্জনক পিচের কারণে পরিত্যক্ত হয়েছিল ভারত-শ্রীলঙ্কার ম্যাচ, দিল্লীর এই ভেন্যু এবার বায়ুদূষণের শিকার। শ্বাস-প্রশ্বাসই যেখানে কষ্ট, পিচ তাই নেই খুব একটা আলোচনায়। ৫টি আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি হয়েছে এখানে, প্রথম ইনিংসে গড় স্কোর ১৫৭। ৫ ম্যাচের মধ্যে ৩ বার জিতেছে আগে ব্যাটিং করা দল। 
     


    ইলাস্ট্রেশন- প্রিয়ম শরীফ অপু/প্যাভিলিয়ন


    যাদের ওপর চোখ

    আফিফ হোসেন

    জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে বিধ্বংসী ইনিংস খেলে ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় দফা শুরু হয়েছে এই তরুণের, এরপর অবশ্য নিজেকে মেলে ধরতে পারেননি আর। ভারত যাওয়ার আগে দুই প্রস্তুতি ম্যাচেও ব্যাটিংয়ে তেমন কিছু করতে পারেননি, অবশ্য ঝলক দেখিয়েছিলেন বোলিংয়ে। ব্যাটিংয়ে সঙ্গে কার্যকরী তার বোলিং-ও। আফিফ প্রস্তুত ভারত চ্যালেঞ্জ নিতে?  

    শিভাম দুবে 

    চার বছর দূরে ছিলেন ক্রিকেট থেকেই। নতুন করে স্বপ্ন দেখেছেন, স্বপ্নদুয়ারের সামনে হাজির হয়ে গেছেন তিনি। প্রথমবারের মতো ডাক পেয়েছেন জাতীয় দলে, দিল্লীতে অভিষেকও হয়ে যেতে পারে ২৬ বছর বয়সী এই অলরাউন্ডারের। হারদিক পান্ডিয়ার মতো ব্যাটিংয়ে ফিনিশিং-রোল ও বোলিংয়ে কার্যকরী ভূমিকায় তাকে দেখতে চায় ভারত, দুবে পারবেন আস্থার প্রতিদান দিতে? 

    সম্ভাব্য একাদশ

    সাকিব, তামিম, সাইফউদ্দিনের বদলি হিসেবে বাংলাদেশ নিয়ে গেছে তাইজুল ইসলাম, মোহাম্মদ মিঠুন ও আবু হায়দার রনিকে। দীর্ঘদিন পর ফিরেছেন আরাফাত সানি, আল-আমিন হোসেন। 

    বাংলাদেশ 

    লিটন দাস, সৌম্য সরকার, নাঈম শেখ, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ, মোসাদ্দেক হোসেন, আফিফ হোসেন, আমিনুল ইসলাম, মোস্তাফিজুর রহমান, আল-আমিন হোসেন, আরাফাত সানি

    ভারত

    রোহিত শর্মা (অধিনায়ক), শিখর ধাওয়ান, সানজু স্যামসন, শ্রেয়াস আইয়ার, ঋশাভ পান্ট (উইকেটকিপার), শিভাম দুবে, ক্রুনাল পান্ডিয়া, ওয়াশিংটন সুন্দর, যুঝভেন্দ্র চাহাল, দীপক চাহার, শারদুল ঠাকুর/খলিল আহমেদ


    সংখ্যার খেলা 

    • ০- ৮ ম্যাচ খেলে কখনোই টি-টোয়েন্টিতে ভারতকে হারাতে পারেনি বাংলাদেশ
    • ৫- ৮০ ম্যাচের ক্যারিয়ারে টি-টোয়েন্টি ৫ বার বাংলাদেশকে এর আগে নেতৃত্ব দিয়েছেন মাহমুদউল্লাহ
    • ১- দিল্লীতে এখন পর্যন্ত একটি আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি খেলেছে ভারত

    তারা বলেন 

    “অবশ্যই সাকিবের মতো খেলোয়াড়ের শূন্যতা পূরণ করা কঠিন। একদিনে তো ও তৈরি হয়নি। তবে যা হওয়ার তা হয়ে গেছে। আমরা চেষ্টা করব কালকের ম্যাচটা জিততে। আমাদের মনযোগ এখন পুরোপুরি সেদিকেই।”

    মাহমুদউল্লাহ, বাংলাদেশ অধিনায়ক

    “তাদের দুজন মূল ক্রিকেটার নেই, সেটা জানি। তবে তাদের মানসম্পন্ন ক্রিকেটার আছে, যারা যে কোনও দলের বিপক্ষে ‘আপসেট’ ঘটাতে পারে। আসলে ‘আপসেট’ বলবো না। বলব, তারা যে কোনও দলকে হারাতে পারে। এই শব্দটাই বেশি উপযুক্ত। তারা এখন অনেক পরিণত ক্রিকেটার।” 

    রোহিত শর্মা, ভারত অধিনায়ক