• ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ
  • " />

     

    'রেফারিকে খোঁচা মেরে ধন্যবাদ দেইনি'

    ম্যাচ শেষে ম্যানচেস্টার সিটি কোচ পেপ গার্দিওলা সবার সাথে হাত মেলানোর পর এগিয়ে গেলেন রেফারিদের দিকে। রেফারি মাইকেল অলিভারের সাথে বেশ কয়েকবার হাত মিলিয়ে তাকে ধন্যবাদও দিলেন! অনেকেই ভেবেছিলেন, ভিএআর বিতর্কের পর গার্দিওলা হয়তো খোঁচা মেরেই রেফারিকে এসব বলেছেন। তবে ম্যাচের পর গার্দিওলা জানালেন, তিনি রেফারিকে কোন খোঁচা দেননি। ভিএআর নিয়ে ইউয়েফার পরবর্তী বৈঠকে আলোচনা করবেন বলেও জানান সিটি কোচ। 

    লিভারপুলের বিপক্ষে ৬ মিনিটেই পেনাল্টি পেতে পারতো সিটি। বের্নার্দো সিলভার ক্রস ডিবক্সে ট্রেন্ট আলেকজান্ডার আর্নল্ডের হাতে লাগলেও পেনাল্টির বাঁশি বাজাননি রেফারি। ১৩ মিনিটে মোহাম্মেদ সালাহর গোলেও ভিএআরের সাহায্য নিয়েছেন রেফারি। রেফারির এমন সিদ্ধান্তে নিজের রাগটা চেপে রাখতে পারেননি গার্দিওলা, তর্ক জুড়ে দিয়েছিলেন সহকারি রেফারির সাথে। এরপর গার্দিওলাকে সতর্কও করেছিলেন রেফারি। ৮২ মিনিটে বক্সের ভেতর আলেকজান্ডার আর্নল্ডের বিরুদ্ধে সিটির আনা আরেকটি হ্যান্ডবলের আবেদন নাকচ করে দেন রেফারি।

    শেষ বাঁশি বাজার পর রেফারি ও সহকারি রেফারিদের সাথে হাত মিলিয়ে তাদের ধন্যবাদ দিয়েছেন গার্দিওলা। এরকম ধন্যবাদ জানিয়ে রেফারিদের খোঁচা দেননি বলেই সাংবাদিকদের জানালেন গার্দিওলা, ‘এটা মোটেও কোনো খোঁচা ছিল না। আমি সবসময়ই রেফারিদের ধন্যবাদ দেই। টটেনহামের বিপক্ষে ম্যাচেও এটা করেছিলাম। অনেকে ভাবতে পারেন আমি নালিশ করছি। কিন্তু আমরা পেনাল্টি পাইনি, জানিনা এটা পেলে কী হতে পারতো। ভিএআরের এসব সিদ্ধান্ত নিয়ে আপনারা ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের জিজ্ঞাসা করতে পারেন। আমি এখানে ভিএআর নিয়ে আলোচনা করতে আসিনি।’

    অনেক কোচদের মতো ভিএআর নিয়ে নিজের আপত্তির কথা বেশ কয়েকবারই জানিয়েছিলেন গার্দিওলা। ইউয়েফার বৈঠকে এটা নিয়ে কথাও বলবেন তিনি, ‘আমি আগামীকাল ইউয়েফার বৈঠকে এটা নিয়ে কথা বলবো। আমি আর কী বলতে পারি? আমরা তো লিভারপুলের মতো ৫০-৬০ বছর ধরে এই পর্যায়ে নেই। এরকম অভিজ্ঞতা আমাদের কাজে দেবে। এই ম্যাচগুলো থেকে আমরা শিক্ষা পাবো। আমরা নিশ্চিতভাবেই পেনাল্টি পেতাম। লিভারপুলের কেউ হয়তো সেটা সরাসরি স্বীকার করতে চাইবে না।’ 

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন