• বাংলাদেশের ভারত সফর
  • " />

     

    লিটনের বদলে মিরাজ, নাঈমের বদলে তাইজুল : কনকাশন-বদলির নিয়ম যা বলে

    হেলমেটে আঘাত পেয়ে কলকাতা টেস্টের ব্যাটিং থেকে উঠে গেছেন লিটন দাস। তার বদলি হিসেবে নেমেছেন মেহেদি হাসান মিরাজ, যিনি শুরুতে ছিলেন না একাদশে। ১ আগস্ট থেকে আইসিসির নতুন নিয়ম অনুযায়ী, এরকম মাথায় বা ঘাড়ে আঘাত পাওয়া ক্রিকেটারের বদলি নামতে পারবেন- যিনি করতে পারবেন ব্যাটিং বোলিং সবকিছুই। অবশ্য বাংলাদেশ স্কোয়াডে নেই বাড়তি কোনও ব্যাটসম্যান। লিটন উইকেটকিপার-ব্যাটসম্যান, মিরাজ অলরাউন্ডার।

    এক্ষেত্রে আইসিসির নিয়ম যা বলছে- 

    কখন আঘাত পেলে বদলি হিসেবে নামানো যাবে? 

    খেলার সময়, এবং খেলার নির্দিষ্ট অঞ্চলের মধ্যে সেই ক্রিকেটারকে আঘাত পেতে হবে ঘাড় বা মাথায়- যার ফলে হতে পারে কনকাশন। 

    কনকাশন কে নির্ধারণ করবেন? 

    দলের মেডিকেল টিম। কোনও ক্রিকেটার কনকাশন টেস্ট উৎরাতে ব্যর্থ হলে ৩৬ ঘন্টার মধ্যে সে রিপোর্ট জমা দিয়ে একজন বদলির আবেদন করতে পারবে কোনও দল। 

    বদলি ক্রিকেটারের ভূমিকা কী হবে? 

    আইসিসির প্লেয়িং কন্ডিশন অনুযায়ি, বদলি ক্রিকেটারকে হতে হবে ‘লাইক-টু-লাইক’, অর্থাৎ, ব্যাটসম্যানের বদলে ব্যাটসম্যান, পেসারের বদলে পেসার, স্পিনারের বদলে স্পিনার, অলরাউন্ডারের পরিবর্তে অলরাউন্ডার- এমন। প্লেয়িং কন্ডিশন অনুযায়ী যে কোনও ক্রিকেটার, যিনি ওই দলের হয়ে খেলার যোগ্যতা রাখেন, তিনিই কনকাশন-বদলি হিসেবে নামতে পারবেন। 

    কে নামবেন, সেটি কে ঠিক করবে? 

    কনকাশন-বদলি হিসেবে একজনের নাম জমা দেবে দলের মেডিক্যাল প্রতিনিধি। এরপর চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন আইসিসির ম্যাচ রেফারি, যার সিদ্ধান্তের কোনও বদল হবে না, কোনও দল আপিলও করতে পারবে না সে সিদ্ধান্তের। 

    যদি ‘লাইক-ফর-লাইক’ বদলি না থাকেন? 

    এক্ষেত্রে ম্যাচের পরিস্থিতি বিবেচনায় নেবেন ম্যাচ রেফারি। একজন অলরাউন্ডার একজন ব্যাটসম্যানের বদলি হিসেবে নামতে পারেন, তবে সেক্ষেত্রে সেই অলরাউন্ডার শুধু ব্যাটিং করতে পারবেন- এমন নিয়ম বেঁধে দিতে পারেন ম্যাচ রেফারি। মিরাজের ক্ষেত্রে যেমন হয়েছে- তিনি কলকাতা টেস্টে করবেন শুধু ব্যাটিং আর ফিল্ডিং-ই। আর যে ক্রিকেটারের বদলি নামানো হলো, সে ক্রিকেটার আর ঐ ম্যাচে খেলতে পারবেন না। যেমন লিটন যদি পরদিন ফিট হয়েও থাকেন খেলার জন্য, তিনি আর নামতে পারবেন না। 

    একাধিক বদলি ক্রিকেটার নামাতে পারবে দল? 

    হ্যাঁ, যদি কনকাশন একাধিক ক্রিকেটার হয়ে থাকে, তাহলে বদলি হিসেবে নামতে পারবেন একাধিক ক্রিকেটার। তবে কনকাশন-বদলি বাধ্যতামূলক নয়। চাইলেই কোনও দল চিরায়ত নিয়মে বদলি ক্রিকেটারকে নামিয়ে শুধু ফিল্ডিং করাতে পারে।