• " />

     

    গাবিগোলের জোড়া গোলে রিভারকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন ফ্লামেঙ্গো

    গতবারের চ্যাম্পিয়ন রিভার প্লেটকে ২-১ ব্যবধানে হারিয়ে কোপা লিবার্তোদোরেসের শিরোপা জিতেছে ব্রাজিলের ক্লাব ফ্লামেঙ্গো। ১৯৮১ সালের পর আরও একবার ফ্ল্যামেঙ্গোর দক্ষিণ আমেরিকার সেরা হওয়ার পেছনে সবচেয়ে বড় অবদান গ্যাব্রিয়েল বারবোসা 'গাবিগোলের'। ম্যাচের বেশির ভাগ সময় পিছিয়ে থাকার পরও ৮৯ আর ৯২ মিনিটে দুই গোল করে ফ্লামেঙ্গোকে নাটকীয় জয় এনে দিয়েছেন ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড।

    আর্জেন্টাইন ক্লাব রিভার প্লেটের তাই টানা দ্বিতীয়বারের মতো শিরোপা জেতা হয়নি। কোচ মার্সেলো গ্যালার্দোরও তৃতীয়বারের মতো উঁচিয়ে ধরা হয়নি দক্ষিণ আমেরিকার ক্লাব প্রতিযোগিতার সবচেয়ে বড় শিরোপাটি। অথচ প্রথমার্ধে এগিয়ে যাওয়ার পর সবকিছুই ঠিকমতোই এগুচ্ছিল রিভারের। ১৪ মিনিটে মাতিয়াস সুয়ারেজের ক্রস থেকে দলকে এগিয়ে দিয়েছিলেন কলম্বিয়ার স্ট্রাইকার রাফায়েল সান্তোস বোরে।  রিভারপ্লেট স্ট্রাইকার অবশ্য এর পর বক্সের বাইরে থেক করা শটে ব্যবধান দ্বিগুণও করতে পারতেন, কিন্তু অল্পের জন্য লক্ষ্য মিস করে যান তিনি।

    দ্বিতীয়ার্ধে ফ্লামেঙ্গো ম্যাচে ফেরার সেরা সুযোগ পেয়েছিল ৫৬ মিনিটে। একই আক্রমণ থেকে প্রথমে গাবিগোলের শট ব্লকড হয়ে ফেরার পর আর্জেন্টিনা গোলরক্ষক ফ্রাঙ্কো আর্মানি এভারটন রিবেরোর ফলো আপ শট ঠেকিয়ে দেন। গাবিগোল অবশ্য শুরু থেকেই রিভার ডিফেন্ডারদের অস্থির করে রেখেছিলেন। তবে সেরাটা ম্যাচের একেবারে শেষের জন্য  জমিয়ে রেখেছিলেন ইন্টার মিলান থেকে ধারে ফ্লামেঙ্গোর হয়ে খেলা ফরোয়ার্ড।


    ব্রুনো হেনরিকের স্কয়ার পাস দূরের পোস্ট থেকে টোকা দিয়ে ৮৯ মিনিটে ফ্লামেঙ্গোকে ম্যাচে ফেরান গাবিগোল। এর তিন মিনিট পর রিভার অধিনায়ক হাভিয়ের পিনোলার ভুলের সুযোগ নিয়ে বক্সের ভেতর বল জিতে গাবিগোল করে ফেলেন ম্যাচ জেতানো গোলটিও। নাটকীয় ফাইনালের ঘটনা অবশ্য সেখানেও থামেনি।

    যোগ করা সময়ের পঞ্চম মিনিটে রেফারির লাল কার্ড দেখে মাঠ ছেড়েছেন ম্যাচের নায়ক গাবিগোল। রেফারিকে মজা করে তালি দিয়ে লাল কার্ড দেখেছেন তিনি। একই সঙ্গে লাল কার্ড দেখেছিলেন রিভারের এক্সিকুয়েল পালাসিওসও, আর্জেন্টাইন মিডফিল্ডার লাল কার্ড দেখেছেন প্রতিপক্ষকে লাথি মেরে। স্তব্ধ হয়ে যাওয়া রিভারের এর পর আর ফেরার শক্তি বা সামর্থ্য কোনোটাই ছিল না। গাবিগোলেই তাই হয়ে গেছেন গল্পের নায়ক।

    ১৯৮৮ সালের পর এবারই প্রথম কোপা লিবার্তোদোরেসের ফাইনাল নির্ধারণ হয়েছে এক লেগের ম্যাচে। চিলির সান্তিয়াগোতে ফাইনাল হওয়ার কথা থাকলেও সেখানকার রাজনৈতিক অস্থিরতার কারণে নতুন ভেন্যু ঠিক করা হয়েছিল পেরুর লিমাতে।

    ৩৮ বছর পর দক্ষিণ আমেরিকার ক্লাব শ্রেষ্ঠত্বের জয়ের পর প্রথমবারের মতো ফ্লামেঙ্গোর ক্লাব বিশ্বকাপে খেলাও নিশ্চিত হয়েছে। ডিসেম্বরে কাতারে হবে এবারের ক্লাব বিশ্বকাপ। টুর্নামেন্টের ফাইনালে উঠলে ফ্লামেঙ্গোর সঙ্গে দেখা হয়ে যেতে পারে ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়ন লিভারপুলেরও।

    সাবেক বেনফিকা কোচ হোর্হে জেউসের দলের সাফল্যের উদযাপন অবশ্য সপ্তাহ শেষেই নতুন মাত্রা পেতে পারে। ব্রাজিলিয়ান সিরি আ-তে ৩৪ ম্যাচ শেষে সবার ওপরে আছে ফ্ল্যামেঙ্গো। পরের ম্যাচে পালমেইরাস হেরে গেলেই ২০০৯ সালের পর ঘরোয়া শিরোপাও নিশ্চিত হবে তাদের। আপাতত রিওর ক্লাবটির তাই শুধুই উৎসবের উপলক্ষ্য।


    ছবিতে কোপা লিবার্তোদোরেস ফাইনাল



    স্টার ওয়ার্স স্টর্মট্রুপাররাও হাজির লিমায়

    রিভারকে এগিয়ে দেওয়ার পর বোরের উদযাপন


    জয়সূচরক গোলের পর গাবিবগোলের উল্লাস

    স্তব্ধ রিভার প্লেট

    বাঁধিয়ে রাখার মতো ছবি!


    চেনা যায়? ফিলিপে লুইস ও ডিয়েগো