• " />

     

    তিন ফরম্যাটের অধিনায়কত্ব থেকে সরে দাঁড়ালেন ডু প্লেসি

    সব ধরনের অধিনায়কত্ব থেকে সরে দাঁড়ালেন দক্ষিণ আফ্রিকার ফাফ ডু প্লেসি। আপাতত শুধু ব্যাটসম্যান হিসেবে দলে খেলবেন। ওয়ানডের অধিনায়কত্ব ছেড়ে দিয়েছিলেন আগেই, এবার ছাড়লেন টি-টোয়েন্টি ও টেস্টের অধিনায়কত্ব। 

    দক্ষিণ আফ্রিকার সময়টা ভালো যাচ্ছিল না বেশ কিছু দিন ধরেই। বিশ্বকাপ-বিপর্যয়ের পর টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপেও ভুগতে হয়েছে। তখনো তিন সংস্করণে অধিনায়ক ছিলেন ডু প্লেসি, তবে চাপটা বাড়ছিল তার ওপর। গত মাসে এসে ওয়ানডে অধিনায়কত্ব থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দেন। কুইন্টন ডি কক নেন দায়িত্ব। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে চলমান টি-টোয়েন্টি সিরিজেও ডু প্লেসির বদলে ডি ককই অধিনায়কের ভূমিকা পালন করেছেন। ২০১২ সালে প্রথম টি-টোয়েন্টি সিরিজে দায়িত্ব নেওয়ার পর টেস্ট, ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি মিলে ১১২টি ম্যাচে অধিনায়ক ছিলেন ডু প্লেসি। 

    দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট বোর্ড থেকে পাঠানো এক বার্তায় ডু প্লেসি নিজের পদত্যাগের কারণটা ব্যাখ্যা করেছেন, 'গত দুই তিন সপ্তাহে বিশ্রামে থাকার (ইংল্যান্ডের বিপক্ষে চলমান টি-টোয়েন্টি সিরিজে বিশ্রামে ছিলেন ডু প্লেসি) সময় আমি নিজের ভবিষ্যত নিয়ে বেশ ভেবেছি। দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে অধিনায়কত্ব করা আমার কাছে ছিল সবচেয়ে গৌরবের বিষয়। প্রাপ্তি তো কম ছিল না, কাজটাও সহজ ছিল না মোটেই। কখনও কখনো নিঃসঙ্গও মনে হয়েছে আধ একটু। তবে দেশের হয়ে এই কাজটা করতে না পারলে আমি আজকের ডু প্লেসি হতে পারতাম না। জীবনের আর কোনো অভিজ্ঞতার সঙ্গেই এটার তাই তুলনা হয় না।'

    'তবে আমার কাছে মনে হয়েছে এখনই দায়িত্ব ছাড়ার সেরা সময়। দক্ষিণ আফ্রিকার তরুণ একজন নেতা দরকার, কুইন্টনকে আমি সব ধরনের সাহায্য করতে প্রস্তুত। সিদ্ধান্তটা নেওয়া আমার জন্য কঠিন ছিল অবশ্যই, কিন্তু আমি দল পুনর্গঠন প্রক্রিয়ায় মার্ক (কোচ বাউচার), কুইন্টন ও বাকিদের সাহায্য করার জন্য প্রস্তুত আছি।'

    অধিনায়কত্ব ছাড়লেও সব ফরম্যাটে খেলা চালিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছেন ডু প্লেসি।