• ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ
  • " />

     

    জর্জ বেস্ট, ওয়েইন রুনির পাশে গ্রিনউড

    মাত্র ১৮ বছর বয়সেই ক্লাব কিংবদন্তিদের রেকর্ড ছুঁয়েছেন ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের টিনএজ ফরোয়ার্ড ম্যাসন গ্রিনউড। জর্জ বেস্ট, ব্রায়ান কিড এবং ওয়েইন রুনির পর ইউনাইটেডের ইতিহাসে চতুর্থ টিনএজার হিসেবে এক মৌসুমে ১৭ গোলের মাইলফলক ছুঁয়েছেন তিনি। এছাড়া প্রিমিয়ার লিগেও ২০১২-১৩ সালে রোমেলু লুকাকুর পর প্রথম টিনএজার হিসেবে এক মৌসুমে ১০ গোল করেছেন তিনি। আর ২০০৫-০৬ মৌসুমে রুনির পর প্রথম ইংলিশ টিনএজার হিসেবেও এই কীর্তি গড়েছেন গ্রিনউড।


    ওয়েস্ট হামের বিপক্ষে তার বুদ্ধিদীপ্ত ফিনিশেই ১ পয়েন্ট নিয়ে মাঠে ছাড়তে পেরেছে ইউনাইটেড। আগামী মৌসুমে চ্যাম্পিয়নস লিগ খেলতে তাই লিগের শেষদিনে লেস্টারের বিপক্ষে হার এড়াতে পারলেই হবে তাদের। ওয়েস্ট হামের বিপক্ষে প্রথমার্ধের শেষদিকে পেনাল্টি থেকে গোল হজম করে পিছিয়ে পড়ে ইউনাইটেড। তবে ম্যাচের ৫১ মিনিটে অ্যান্থনি মার্শিয়ালের থ্রু বল ধরে বাঁ পায়ের নিখুঁত ফিনিশে জাল কাঁপান গ্রিনউড।

    ম্যাচ শেষে সতীর্থ হ্যারি ম্যাগিরের কাছ থেকেও বেশ প্রশংসা পেয়েছেন গ্রিনউড, “সে যখন বক্সের ভেতরে যায়, আসলেই ডিফেন্ডারদের জন্য আতঙ্ক হয়ে ওঠে। দুই পায়েই সমানভাবে নিজের কারিকুরি দেখাতে পারে সে। অনুশীলনে তাকে দেখার অভিজ্ঞতা থেকে বলতে পারি, ডিফেন্ডারদের জন্য সে দুঃস্বপ্ন।”

    “সে দারুণ খেলছে। অনেক আত্মবিশ্বাসী হয়ে খেলছে, প্রায় প্রতি ম্যাচেই স্কোরশিটে নাম থাকছে তার। লকডাউনের পর থেকে বেশি ভালো খেলছে। সে একজন বিশেষ প্রতিভা, এই ক্লাবে তার উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ রয়েছে।”

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন