• ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ
  • " />
    X
    GO11IPL2020

     

    কিক অফের আগে : ক্লপ-বিয়েলসা রোমাঞ্চের অপেক্ষায় প্রিমিয়ার লিগ

    কবে, কখন
    লিভারপুল-লিডস ইউনাইটেড
    অ্যানফিল্ড
    ১২ সেপ্টেম্বর, রাত ১০.৩০


    প্রিমিয়ার লিগ চ্যাম্পিয়ন আর চ্যাম্পিয়নশিপ চ্যাম্পিয়ন। দুই শিরোপার মতো দুই দলের পার্থক্যও আকাশ-পাতাল। কিন্তু ইতিহাসকে চাইলেই সরিয়ে ফেলা যায় না। ১৬ বছরের অপেক্ষা ঘুচিয়ে প্রিমিয়ার লিগে ফিরেছে লিডস ইউনাইটেড। দীর্ঘ বিরতির পর তাদের প্রথম ম্যাচ অ্যানফিল্ডে। লিভারপুলের মতো  না হলেও লিডসও ঐতিহ্যবাহী ক্লাব। প্রিমিয়ার লিগ চ্যাম্পিয়নদের সঙ্গে মানের পার্থক্য যাই থাক, লিভারপুলকে বিন্দুমাত্র ছাড় দেওয়ার কথা নয় লিডসের।

    প্রিমিয়ার লিগের প্রথম দিনের ম্যাচ এর চেয়ে রোমাঞ্চকর হয় না। তবে এই ম্যাচে মাঠের চেয়ে ডাগ আউটের দুই ভদ্রলোকই আলো কাড়বেন বেশি। ইউর্গেন ক্লপ ইংল্যান্ডে নতুন করে লিভারপুলের রাজত্ব প্রতিষ্ঠা করেছেন। আর মার্সেলো বিয়েলসা দেখিয়েছেন, ইংল্যান্ডেও তার দর্শন খাটে। দুই কোচই তাই প্রিমিয়ার লিগের প্রথম দিনের সবচেয়ে বড় আকর্ষণ।

    ক্লপ ২০১৫ সালে লিভারপুলের কোচ হয়ে আসার পর ইংলিশ ফুটবলের সঙ্গে খানিকটা আপোসই করেছেন। গেগেনপ্রেসিং এখনও ক্লপের সম্বল, তবে বাড়তি সতর্কতা অবলম্বন করে এখন তার দল। লিভারপুলও গতবার রক্ষণে সেরা হয়েই তিরিশ বছরের অপেক্ষা ঘুচিয়েছে লিগ জিতে। বিয়েলসা চ্যাম্পিয়নশিপে কোনো আপোস করেননি। ভার্টিকাল, আর রোটেশনাল ফুটবলের দর্শনটাই আর্জেন্টিনা থেকে নিয়ে এসেছিলেন লিডসে। কিন্তু প্রিমিয়ার লিগ অন্য জায়গা। চ্যাম্পিয়নশিপের সঙ্গে এর তুলনা হয় না। বিয়েলসা এবার কী আপোস করবেন?

    বিয়েলসা নিজের দর্শনে আপোস করবেন না বলেই হয়ত রদ্রিগো মরেনোকে ভ্যালেন্সিয়া থেকে দলে এনেছে লিডস। দলে আছেন জার্মানির হয়ে খেলা রবিন কচও। ইংল্যান্ডের হয়ে কিছুদিন আগে অভিষেক হয়েছে কেলভিন ফিলিপসেরও। তুলনামূলক তরুণ লিডস অনভিজ্ঞ হলেও প্রিমিয়ার লিগে যে কোনোই দলই তাদের বিপক্ষে খেলবে বাড়তি সতর্কতা নিয়েই। 
     

    প্রিমিয়ার লিগে বিয়েলসা  আক্রমণাত্মক ফুটবলটাই চালিয়ে যাবেন নাকি সময়ের প্রয়োজনে খানিকটা রক্ষণাত্মক ধাঁচেও তার দল খেলবে সে প্রশ্নের জবাব শুধু তিনি জানেন। লিভারপুলের বিপক্ষেই হয়ত পরিস্কার হয়ে যাবে অনেক কিছু। সে হিসেবে এই ম্যাচের ভাগ্য আন্দাজ করা কঠিনই।  

    কঠিন লিভারপুলকে অ্যানফিল্ডে হারানোও। গতবারের যে দল প্রিমিয়ার লিগকেও এক তরফা প্রতিযোগিতায় রুপান্তর করেছিল তারাই আবার মাঠে নামবে। লিডস হয়ত লড়াই করবে, কিন্তু এই লিভারপুল তো অন্য ধাতুতে গড়া। বিয়েলসা দল শেষ পর্যন্ত চমক দেখালে অবশ্য লিভারপুলকে দুশ্চিন্তায় পড়তে হবে নতুন করে। কমিউনিটি শিল্ডে আর্সেনাল লিভারপুলের দুর্বলতা খুঁজে বের করেছিল। এর আগে মৌসুমের শেষ দিকে ঢিল দিয়ে বেশ কিছু ম্যাচ অধারাবাহিক ছিল লিভারপুল। দলবদলেও তেমন সক্রিয় ছিল না ক্লপের দল। বিয়েলসা অ্যানফিল্ড থেকে হাসিমুখে ফিরলে সেটা ক্লপের জন্য অশনী সংকেত হয়ে যেতে পারে। 


    দলের খবর
    লিভারপুল অধিনায়ক জর্ডান হেন্ডারসনের এই ম্যাচ খেলার সম্ভাবনা কমই। চোটের কারণে ম্যাচ মিস করবেন অ্যালেক্স অক্সলেড চেম্বারলিনও। নতুন যোগ দেওয়া কস্তাস সিমিকাস করণায় আক্রান্ত। এছাড়া মোটামুটি সেরা দলটাই পাচ্ছেন ক্লপ। লিডসে তেমন চোটের সমস্যা নেই। রদ্রিগোকে একাদশে রেখেই অ্যানফিল্ডের দল সাজানোর কথা বিয়েলসার।

    বাড়তি নজর থাকবে জেমস মিলনারের দিকেও। লিডসে জন্ম নেওয়া সাবেক লিডস ফুটবলার ২০০৪ সালে রেলিগেশনের পর ক্লাব ছেড়েছিলেন। লিভারপুলের হয়ে তিনি মাঠে নামলে তার জন্যও ম্যাচটি স্মরণীয় হয়ে থাকার কথা।

    সম্ভাব্য একাদশ
    লিভারপুল

    অ্যালিসন, আর্নল্ড, জো গোমেজ, ভ্যান ডাইক, রবার্টসন, ফাবিনহো, কেইতা, ভেইনাল্ডাম, সালাহ, ফিরমিনো, মানে
    লিডস
    মেসলিয়ের, আইলিং, কুপার, কচ, ডালাস, কস্তা, হার্নান্দেজ, ফিলিপস, ক্লিখ, হ্যারিসন, রদ্রিগো  

    হেড টু হেড
    ২০০১ সালের পর লিভারপুলকে আর হারাতে পারেনি লিডস। এরপর দুইদল মুখোমুখি হয়েছে মোট ৮বার। ২০১৬ তে সবশেষ দেখায় লিগ কাপের ম্যাচে লিডস হেরেছিল ২-০ ব্যবধানে। লিগ শুরুর দিনের রেকর্ডটা অবশ্য লিডসের দুর্দান্ত। প্রিমিয়ার লিগে প্রথম ম্যাচ ডেতে সবচেয়ে বেশি জয় পাওয়ার রেকর্ড তাদের। ১২ বার লিগ শুরুর দিনে ম্যাচ খেলে ৫ বার জিতেছে লিডস, আর বাকি ৭ বার করেছে ড্র। এসব কিছুই এখন অবশ্য অপ্রাসঙ্গিক ইতিহাস।

    প্রেডিকশন
    লিভারপুল ১-১ লিডস

    বিয়েলসার লিডস লিগের প্রথম দিনই চমকে দেবে লিভারপুলকে।  তবে জয় পেয়ে গেলে সেটা অঘটনই হবে।

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন