• ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ
  • " />
    X
    GO11IPL2020

     

    শেষ মুহুর্তে গোল খেয়ে কপাল পুড়ল লিভারপুলের, সিটি পেল মৌসুমের সবচেয়ে বড় জয়

    শেষ মুহুর্তে গোল হজম করে পয়েন্ট হারাল লিভারপুল
    ডিয়েগো জোতার দ্বিতীয়ার্ধের গোলটাই যথেষ্ট মনে হচ্ছিল লিভারপুলের জন্য। কিন্তু শেষ মুহুর্তের নাটকে বদলে গেল সবকিছু। বক্সের ভেতর অ্যান্ড্রু রবার্টসন পেছন থেকে ড্যানি ওয়েলবেকের পায়ে আঘাত করেছিলেন। যদিও সেটা পেনাল্টি দেওয়ার জন্য যথেষ্ট ছিল কি না তা তর্কযোগ্য। যোগ করা সময়ে স্পট কিক থেকে প্যাসকাল গ্রস গোল করে ব্রাইটনকে সমতায় ফেরান। ম্যাচ ড্র হয়েছে ১-১ গোলে।



    আটালান্টার বিপক্ষে ম্যাচ থেকে একাদশে ৬ টি পরিবর্তন এনেছিলেন ইউর্গেন ক্লপ। ব্রাইটনের বিপক্ষে ম্যাচের জন্যই অবশ্য আগের ম্যাচে মূল দলের অনেক খেলোয়াড়কে বিশ্রামে রেখেছিলেন লিভারপুল কোচ। তবে তার অসোন্তোষ ছিল ম্যাচের সময়সূচী নিয়ে। চ্যাম্পিয়নস লিগে লিভারপুলের পরের ম্যাচ বুধবার রাতে, তাই শনিবার ইংল্যান্ডের লাঞ্চটাইম কিক অফ ম্যাচের আগে নিজের বিস্ময় প্রকাশ করেছিলেন ক্লপ। শেষ মুহুর্তে পেনাল্টি থেকে গোল হজম করার পরও ক্লপ রেফারির ওপর রাগ ঝেড়েছেন প্রকাশ্যে। তবে খানিকবাদে পেনাল্টির সিদ্ধান্ত সঠিক ছিল বলেই মন্তব্য করেছেন তিনি।

    দুই অর্ধে দুইবার গোল বাতিল হয়েছে লিভারপুলের। মোহামেদ সালাহ ও সাদিও মানে দুইজনই অফসাইডের কারণে বল জালে জড়িয়ে গোল পাননি আর। এর ভেতর দুইবার ম্যাচে মোড় ঘুরেছে। প্রথমার্ধে পেনাল্টি পেয়েও ব্রাইটনের নিল মপে মেরেছিলেন বাইরে দিয়ে। লিভারপুলের বিপক্ষে তাই স্বপ্নের লিডটা পাওয়া হয়নি ব্রাইটনের।

    ৬০ মিনিটে সালাহর পাস থেকে দুইজন ডিফেন্ডারকে কাটিয়ে বটম কর্নারে বল জড়ান জোতা। এই নিয়ে ১৪ ম্যাচে তার গোল দাঁড়াল ৯টি। কিন্তু শেষ পর্যন্ত জোতার গোলে জয় আর পাওয়া হয়নি লিভারপুলের। ১০ ম্যাচ খেলে দুইয়ে থাকা টটেনহামের চেয়ে  এক পয়েন্টে এগিয়ে শীর্ষে উঠেছে লিভারপুল। 

    পয়েন্ট খোয়ানোর ম্যাচে চোটের তালিকা লম্বা হয়েছে লিভারপুলের। জেমস মিলনার দ্বিতীয়ার্ধে মাঠ ছেড়েছেন চোট নিয়ে।

    মাহরেজের হ্যাটট্রিকে বার্নলিকে উড়িয়ে দিল সিটি
    বার্নলিকে টানা চতুর্থবারের মতো ইতিহাদে ৫-০ গোলে হারিয়েছে ম্যান সিটি। রিয়াদ মাহরেজ সিটির হয়ে করেছেন প্রথম হ্যাটট্রিক। বেঞ্জামিন মেন্ডি করেছেন সিটির হয়ে প্রথম গোল, আর প্রিমিয়ার লিগে নিজের প্রথম গোল পেয়েছেন ফেরান তোরেস। অনেক প্রথমের রাতে সিটি পেয়েছে মৌসুমের প্রথম জয়।


    প্রিমিয়ার লিগে আগের আট ম্যাচে সিটি গোল করতে পেরেছিল মাত্র দশটি। এদিন শুরু থেকেই গোলখরা কাটানোর ইঙ্গিত দিচ্ছিল সিটি। প্রথমার্ধে জোড়া গোল করে মাহরেজ দলের জয় প্রায় নিশ্চিত করে রেখেছিলেন। বিরতির আগে মেন্ডি তৃতীয় গোল করলে তখনই খেলার ফল নির্ধারণ হয়ে যায় ইতিহাদে। ৬৬ মিনিটে তোরেসের পর ৬৯ মিনিটে মাহরেজ গোল করে হ্যাটট্রিক পূরণ করেন। ২০১৫ সালে লেস্টার সিটির হয়ে সবশেষ এক ম্যাচে তিন গোল করেছিলেন মাহরেজ।

    হাঁটুর চোটের কারণে বার্নলির বিপক্ষে ছিলেন না সার্জিও আগুয়েরো। তবে তার অভাব এদিন টের পায়নি সিটি। শেষদিকে কেভিন দি ব্রুইনের শট বারপোস্টে না লাগলে সিটির জয়ের ব্যবধান বড় হতে পারত আরও। ৯ ম্যাচে ১৫ পয়েন্ট নিয়ে পয়েন্ট টেবিলের আটে আছে সিটি। শীর্ষে থাকা লিভারপুলের পয়েন্ট ২১।  সিটির হাতে আছে একটি ম্যাচ বেশি।

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন