• ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ
  • " />
    X
    GO11IPL2020

     

    কিক অফের আগে: ডার্বিতে কোণঠাসা সোলশারের সামনে গার্দিওলার সিটি

    কবে কখন

    ১২ ডিসেম্বর, ওল্ড ট্রাফোর্ড, রাত ১১.৩০টা

     

    ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড কোচ ওলে গানার সোলশারের অবস্থাটা হয়ে গেছে গোলকধাঁধাঁয় পথ হারিয়ে ফেলা পথিকের মতো। যেই মনে করেন, এই পথ দিয়ে গেলে আলোর দেখা মিলবে কিন্তু সেটা আর হয় না। একটা ম্যাচ জিতে যখন একটু স্বস্তি পান, পরের ম্যাচটাই আবার চাপ বাড়িয়ে দেয়। সর্বশেষ চাপটা একটু বেশিই এসেছে, লাইপজিগের কাছে হেরে চ্যাম্পিয়নস লিগ থেকে বাদ পড়ার পর। এরপরেই আজ আবার ম্যানচেস্টার ডার্বি, যেটাতে ঘরের মাঠে হেরে গেলে শিরোপাস্বপ্নে আসবে বড় আঘাত।

    সোলশার আসলে গত মৌসুমে স্থায়ীভাবে দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকেই দম ফেলার ফুরসত পাচ্ছেন না। ফল হিসেবে খুব একটা খারাপ করেননি এখনো, গত মৌসুমে ইউনাইটেড শেষ করেছে শীর্ষ তিনে থেকে, উঠেছে কাপ ফুটবলের সেমিতেও। এই মৌসুমে লিগে এখন পর্যন্ত খুব খারাপ জায়গায় নেই, শীর্ষে থাকা লিভারপুলের চেয়ে এক ম্যাচ কম খেলে পিছিয়ে আছে পাঁচ পয়েন্টে। তবে চ্যাম্পিয়নস লিগের প্রথম দুই ম্যাচ জিতেও যেভাবে বাদ পড়েছে, তাতেই প্রশ্ন উঠেছে সোলিশারকে নিয়ে। বিশেষ করে ট্যাকটিক্যালি কতটা ভালো, সেটা নিয়ে সোলশারকে ঘিরে জমা হতে শুরু করেছে সংশয়। ওদিকে পল পগবার এজেন্টের সুকানিমূলক কথাও এসেছে নতুন বিপদ হয়ে। তবে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড কোচ কয়েকটা ব্যাপার জেনে একটু স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলতে পারেন।

    প্রথমত, এই মৌসুমে তার দলের ঘুরে দাঁড়ানোর রেকর্ড। যে ম্যাচের আগেই সোলশারের চাকুরি নিয়ে বেশি কথা হয়েছে, সেই ম্যাচেই তার দল ঘুরে দাঁড়িয়েছে। সেটা টটেনহামের সঙ্গে ৬ গোল খাওয়ার পরেই হোক বা আর্সেনালের কাছে ঘরের মাঠে হেরে যাওয়ার পরেই হোক। সব মিলে টানা নয়টি অ্যাওয়ে ম্যাচে জিতেছে ইউনাইটেড, সর্বশেষ পাঁচ ম্যাচে ঘুরে দাঁড়িয়েছে পিছিয়ে পড়ার পর। আজকের ম্যাচটাও সোলশারের জন্য এসিড টেস্ট, এরকম দেয়াল্কে পিঠ ঠেকে যাওয়া অবস্থায় আগেও ঘুরে দাঁড়িয়েছে ইউনাইটেড। সমস্যাটা হচ্ছে, এই মৌসুমে ঘরের মাঠেই ইউনাইটেডের ফর্ম বেশি খারাপ।

    দ্বিতীয়ত, সোলশারের পেছনে এখনো সমর্থন দিয়ে যাচ্ছে বোর্ড, বিশেষ করে ক্লাবের সিইও এড উডওয়ার্ড। মালিকপক্ষ মনে করছে, ইউনাইটেডকে চালানোর জন্য যোগ্য লোক সোলশারই। যদিও তার দল নির্বাচন, ট্যাকটিকস নিয়ে প্রশ্ন আছে তারপরও ইউনাইটেড বোর্ড এখনও আস্থা রাখছে তার ওপরেই। সেজন্য সোলশারকে লম্বা মেয়াদে ক্লাব রাখতে চায় বলে জানিয়েছে একাধিক ইংলিশ গণমাধ্যম। তবে সেই অবস্থা বদলাতে সময় লাগে না, ফুটবলে সেটা দেখা গেছে অনেকবার।

    তৃতীয়ত, বড় দল বিশেষ করে গার্দিওলার দলের বিপক্ষে সোলশারের রেকর্ড। ম্যান সিটির বিপক্ষে পাঁচ ম্যাচের মধ্যে জিতেছেন তিনটিতেই.। পেপ গার্দিওলাও জানেন সেটা, সেজন্যই ভয় পাচ্ছেন আহত ইউনাইটেডকে। কেভিন ডি ব্রুইনও মনে করছেন, কোণঠাসা ইউনাইটেড আজ ভয়ংকর হয়ে উঠতে পারে।

    গার্দিওলার দলও যে খুব স্বস্তিতে সেটা বলা যাবে না। লিগে আসলে ইউনাইটেডেরও নিচে তারা, তবে তার জন্য আশার কথা ফর্মে ফেরার ইঙ্গিত দিচ্ছেন কেডিবি, স্টার্লিংরা। চ্যাম্পিয়নস লিগেও সময়টা ভালোই যাচ্ছে।

     

    দলের খবর

    ম্যান সিটির এরিক গার্সিয়া তিন সপ্তাহের জন্য ছিটকে গেছে। আগুয়েরো চ্যাম্পিয়নস লিগে মাঠে নামলেও আজ প্রথম থেকে খেলবেন না বলে জানিয়েছেন গার্দিওলা। ওদিকে কাভানিকে আজ নাও পেতে পারেন সোলশার, তবে চোট কাটিয়ে ফিরছেন মার্শিয়াল। নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে আজ ফেরার কথা ফ্রেডেরও।

    সম্ভাব্য একাদশ

    ইউনাইটেড: ডি হিয়া, শ, ম্যাগিরে, লিন্ডেলফ, ওয়ান বিসাকা, ফ্রেড, ম্যাকটমিনে, ব্রুনো, গ্রিনউড, রাশফোর্ড, মার্শিয়াল।

    সিটি:  এডারসন, দিয়াজ, লাপোর্ত, ওয়াকার, ক্যান্সেলো, রদ্রি, ফোডেন, ডি ব্রুইন, স্টার্লিং, হেসুস, মাহরেজ।

     

    প্রেডিকশন: ইউনাইটেড ২: ২ সিটি

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন