• ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ
  • " />
    X
    GO11IPL2020

     

    গোলশূন্য ম্যানচেস্টার ডার্বি, ৯ ম্যাচ পর প্রথম হারের স্বাদ পেল চেলসি

    ইংলিশ লিগে আরেকটা চমকভরা দিন গেল। এই মৌসুমের কালকের আগ পর্যন্ত টানা ৯ ম্যাচে হারেনি চেলসি, কাল তারা হেরে গেল এভারটনের মাঠে। তার আগে উত্তাপহীন ম্যানচেস্টার ডার্বি হয়েছে গোলশূন্য ড্র।

     

    ডার্বিতে ঝুঁকিহীন খেললেন গার্দিওলা-সোলশার

    গোলশূন্য ড্রই হলো ম্যানচেস্টার ডার্বি। এই ম্যাচের আগে কিছুটা চাপে ছিলেন দুই কোচই। ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড মাত্র চ্যাম্পিয়নস লিগ থেকে বাদ পড়েছে, ডার্বিতে হারে ওলে গানার সোলশারের ওপর চাপটা আরও বেড়ে যেত। অন্যদিকে পেপ গার্দিওলাও জানতেন, হেরে গেলে শিরোপাদৌড় থেকে আরও পিছিয়ে পড়বেন। তাই একটা সময়ে নিরাপদ খেলার সিদ্ধান্তই নিল দুই দল।

    অবশ্য ম্যাচের প্রথমার্ধে সুযোগ পেয়েছিল দুই দলই। বেশি সুযোগ পেয়েছিল সিটি, কিন্তু ডেভিড ডি হিয়া রিয়াদ মাহরেজের শট দারুণভাবে ঠেকিয়ে দেওয়ায় গোল হয়নি। ডি ব্রুইন ফিরতি শট মেরেছেন বারের ওপর দিয়ে। তার আগে পরে স্টার্লিংও গোলের ভালো সুযোগ পেয়েছিলেন, কিন্তু ম্যাগিরের দুর্দান্ত দুইটি ব্লকে গোল পাওয়া হয়নি। ম্যান ইউনাইটেডের স্কট ম্যাকটমিনে কর্নার থেকে পা ছোঁয়ালেই গোল পেতে পারতেন, সেটা আর হয়নি। এডারসন ক্লিয়ার করতে গিয়েও পা তুলে দিয়েছিলেন প্রতিপক্ষকে, কিন্তু সুযোগ কাজে লাগাতে পারেনি ইউনাইটেড। রাশফোর্ড অবশ্য ফাউল আদায় করে পেনাল্টি পেয়ে গিয়েছিলেন, কিন্তু ভিএআরে দেখা যায় অফসাইড ছিলেন তিনি। আর পাওয়া হয়নি পেনাল্টি।

    শেষ পর্যন্ত দুই দল শেষদিকে আর গোলের নিশ্চিত সুযোগ পায়নি। এই ড্রয়ের পর ১১ ম্যাচে ২০ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের আটে আছে ইউনাইটেড, এক পয়েন্ট কম নিয়ে নয়ে আছে সিটি। যদিও শীর্ষে থাকা টটেনহাম-লিভারপুলের সঙ্গে ইউনাইটেডের ব্যবধান চার পয়েন্ট, সিটির পাঁচ পয়েন্ট।

     

    গুডিসন পার্কে হেরেই গেল চেলসি


     

    জিতলেই উঠে যেত টেবিলের শীর্ষে, ফ্রাংক ল্যাম্পার্ডের দলের সামনে ছিল এরকম সমীকরণ। এই মৌসুমের কালকের আগে টানা ৯ ম্যাচে কোনো ম্যাচে হারেনি চেলসি, এভারটনের সামনে চ্যালেঞ্জটা ছিল বড়ই। তবে কার্লো আনচেলত্তির দল সেই চ্যালেঞ্জে জয়ী হতে পেরেছে, গিলফি সিগুর্ডসনের পেনাল্টিতে চেলসিকে হারিয়েছে ১-০ গোলে।

    ২২ মিনিটের সময় বক্সে ঢুকে পড়া এভারটন স্ট্রাইকার ডমিনিক কালভার্ট লুইনকে ফেলে দেন চেলসি গোলরক্ষক এদুয়ার্দ মেন্ডি। পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি, সেটা থেকে গোল করে এগিয়ে দেন সিগুর্ডসন। চেলসি অবশ্য ভালো কিছু সুযোগ পেয়েছিল। কিন্তু রিস জেমস, কার্ট জুমাকে ঠেকিয়ে দিয়েছেন এভারটন গোলরক্ষক জর্ডান পিকফোর্ড। আবার ম্যাসন মাউন্টের ফ্রিকিক ফিরে এসেছে পোস্টে লেগে। কালভার্ট লুইন পরে আরেকটি পেনাল্টি পেতে পারতেন, সেটি অফসাইডের জন্য বাতিল হয়ে যায়। শেষ পর্যন্ত নিজেদের মাঠে মৌসুমের প্রথমবারের মতো দর্শকের সামনে চেলসিকে হারানোর স্বাদ পায় এভারটন।

    এই হারের পর ২২ পয়েন্ট নিয়ে চেলসি আছে তিনেই। আর ২০ পয়েন্ট নিয়ে সাতে উঠে এসেছে ইউনাইটেড।

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন