• বিশ্বকাপ বাছাই
  • " />

     

    বিশ্বকাপ বাছাই: রোনালদোদের দশে দশ, ফ্রান্সের হোঁচট, তুরস্কের চমক

    বিশ্বকাপ বাছাই: রোনালদোদের দশে দশ, ফ্রান্সের হোঁচট, তুরস্কের চমক    

    বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের শুরুটা হতাশা দিয়ে হলো বিশ্বচ্যাম্পিয়ন ফ্রান্স ও দুবারের বিশ্বকাপ ফাইনালিস্ট নেদারল্যান্ডসের। ফ্রান্স ড্র করেছে ইউক্রেনের সঙ্গে আর দুর্দান্ত এক থ্রিলারে তুরস্ক হারিয়েছে নেদারল্যান্ডসকে। ইউরো চ্যাম্পিয়ন পর্তুগাল এক গোলে জয় পেয়েছে আজারবাইজানের সঙ্গে, রেকর্ড বাড়িয়ে নিয়েছে নিজেদের। দিনের আরেকটা বড় অঘটন গতবারের ফাইনালিস্ট ক্রোয়েশিয়ার স্লোভেনিয়ার কাছে ১-০ গোলে হেরে যাওয়া। 

    দিনের সবচেয়ে উপভোগ্য ম্যাচটা সম্ভবত হয়েছে তুরস্কে। গত বিশ্বকাপের পর থেকে নেদারল্যান্ডস বেশ ভালো ফর্মে ছিল, কিন্তু বিশ্বকাপ বাছাইয়ের শুরুটা হলো ভুলে যাওয়ার মতো। বুরাক ইলমাজ শুরুতেই দুই গোল করে এগিয়ে দেন তাদের, এরপর হাকান শালানুলু ব্যবধান আরও বাড়ান। নেদারল্যান্ডস এর মধ্যে পেনাল্টি মিস করে আর ডি লিটের হেড ফিরে আসে গোললাইন থেকে। যখন মনে হচ্ছিল তুরস্কের জয়টা সময়ের ব্যাপার তখন ঘুরে দাঁড়ায় নেদারল্যান্ডস। ডেভি ক্লাসেন ও লুক ডি ইয়ং দুই মিনিটের মধ্যে দুই গোল করে কামব্যাকের স্বপ্ন দেখাতে থাকেন। যখন মনে হচ্ছিল সেটা হয়ে যেতে পারে ৮১ মিনিটে দুর্দান্ত এক ফ্রিকিকে গোল করে ইলমাজ পেয়ে যান হ্যাটট্রিক, সেই সঙ্গে আশা শেষ করে দেন নেদারল্যান্ডসের। 

    ওদিকে ইউক্রেনের বিপক্ষে ফ্রান্সের শুরুটা হয়েছিল ভালো। ১৮ গজ দূর থেকে বাঁ পায়ের বাঁকানো শটে গোল করে এগিয়ে দেন আঁতোইন গ্রিজমান, ফ্রান্সের হয়ে যা তার ৩৪তম গোল। কিন্তু ইউক্রেন এরপর হাল ছেড়ে দেয়নি, ৫৭ মিনিটে সের্হেই সাইদরচুকের শট প্রেসনেল কিম্পেম্বের গায়ে লেগে দিক বদলে ঢুকে যায় জালে। শেষ দিকে চেষ্টা করেও আর ব্যবধান বাড়াতে পারেনি ফ্রান্স। 

    পর্তুগালের জন্য বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছিলেন আজারবাইজান গোলরক্ষক শাহরুদিন মাহমেদালিয়েভ। একের পর এক সেভ করে হতাশ করে পর্তুগিজদের শুরু থেকেই। ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোও পেয়েছিলেন সুযোগ। একবার তার ওভারহেড কিক একটুর জন্য চলে যায় পোস্টের ওপর দিয়ে, আর একবার তাকে ফিরিয়েছেন মাহমেদালিয়েভ। সুযোগ পেয়েছিলেন ব্রুনো ফার্নান্দেজ ও জোয়াও ফেলিক্সও, কিন্তু তাদেরও ঠেকিয়ে দিয়েছেন প্রতিপক্ষ গোলরক্ষক। ৩৭ মিনিটে অবশ্য মাহমেদালিয়েভ আর বাঁচাতে পারেননি। দুর্ভাগ্যই তার, এবারও বলটা ফিস্ট করেছিলেন কিন্তু নিজের দলের খেলোয়াড়ের গায়ে লেগে সেটা ঢুকে যায় জালে। ওই এক গোলেই ম্যাচ জিতেছে পর্তুগাল। সেই সঙ্গে বিশ্বকাপ বাছাইয়ে নিজেদের টানা জয়ের রেকর্ডটা ১০ ম্যাচে নিয়ে গেছে পর্তুগাল।

    আরেক ম্যাচে স্লোভেনিয়া ১-০ গোলে হারিয়ে চমকে দিয়েছে ফাইনালিস্ট ক্রোয়েশিয়াকে। ওদিকে শুরুতে পিছিয়ে পড়ার পর ডি ব্রুইন, থরগান হ্যাজার্ড ও লুকাকুর গোলে বেলজিয়াম হারিয়েছে ওয়েলসকে।

    এভারের বিশ্বকাপে ইউরোপ থেকে খেলবে ১৩টি দল। বাছাইপর্বের পারফরম্যান্সের সাথে যোগ হবে ইউয়েফা নেশনস লিগের রেকর্ডও। 

     

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন