• ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ
  • " />

     

    মেসি, রোনালদোময় নাটকীয় মৌসুমে কোন দলে কারা এলেন, কাদের লাভ কাদের ক্ষতি?

    মেসি, রোনালদোময় নাটকীয় মৌসুমে কোন দলে কারা এলেন, কাদের লাভ কাদের ক্ষতি?    

    শেষ হয়ে গেল দলবদলের আরেকটি নাটকীয় মৌসুম। সম্ভবত দলবদলের ইতিহাসেই এর চেয়ে চমকভরা সময় আর আসেনি। লিওনেল মেসি আর ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো এবার দল বদলেছেন, সেটার জন্যই এই মৌসুমটা স্মরণীয় হয়ে থাকবে। এবার জেনে আসা যাক এবার কোন দলের বাজার সদাই কেমন হলো... 

    পিএসজি

    ফ্রি এজেন্ট হিসেবে শুরুতেই পিএসজি সই করিয়ে ফেলেছিল সার্জিও রামোস, জিয়ানলুইজি ডোনারুমা, জিনি ভিনালদামকে। পরে নিয়ে এসেছিল আশরাফ হাকিমিকে। তবে বড় চমকটা প্যারিসের দল রেখে দিয়েছে শেষের জন্য। লিওনেল মেসিকে তারা বার্সা থেকে ফ্রি ট্রান্সফারে নিয়ে এসেছে। যার ফলে ক্যারিয়ারে প্রথম বার্সা ছাড়া অন্য কোনো ক্লাবের হয়ে মাঠে নেমেছেন মেসি। শেষের দিকে নুনো মেন্দেসকে লোনে নিজেদের শক্তি আরও বাড়িয়েছে পিএসজি। আর অনেক নাটকের পর ধরে রেখেছে কিলিয়ান এমবাপেকে। 

    রিয়াল মাদ্রিদ 

    রিয়াল এই মৌসুমে হারিয়েছে তাদের রক্ষণের দীর্ঘদিনের দুই অভিজ্ঞ সার্জিও রামোস ও রাফায়েল ভারানকে। দেভিড আলাবাকে কাভার হিসেবে নিয়ে এসেছে তারা। শেষ পর্যন্ত চেষ্টা করেও অবশ্য আনতে পারনি এমবাপেকে। তবে শেষ দিনে তরুণ ফ্রেঞ্চ মিডফিল্ডার এদুয়ার্দ কামাভিঙ্গাকে সই করিয়েছে। 

    বার্সেলোনা 

    দলবদলের এই মৌসুমে বার্সা হারিয়েছে তাদের আইকন লিওনেল মেসিকে। তার আগেই অবশ্য তারা নিয়ে এসেছিল সার্জিও আগুয়েরো, মেম্ফিস ডিপাই, এরিক গার্সিয়াদের। তবে আর্থিক ঝামেলায় পরে বার্সা ছেড়ে দিয়েছে আয়াক্স মরিবা, এমারসন রয়াল, জুনিয়র ফিরপোদের। তবে সবচেয়ে বড় চমকটা রেখেছল শেষের জন্য, শেষ দিনে ধারে গেছেন আঁতোইন গ্রিজমান। সেভিয়া থেকে ধারে এসেছেন লুক ডি জং।

    অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ 

    আরেকটি দুর্দান্ত দলবদল মৌসুম কাটিয়েছে সিমিওনের দল। রদ্রিগো দি পলকে উদিনেসে থেকে আগেই নিয়ে এসেছিল তারা, পরে যোগ দিয়েছেন হার্থার ব্রাজিলিয়ান স্ট্রাইকার ম্যাথুস কুনহাকে। শেষ দিকে গ্রিজমানকে দলে এনে অ্যাটলেটিকো এবার শিরোপা ধরে রাখার জন্য পরিষ্কার ফেবারিট। 

    ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড 

    জুভেন্টাস থেকে ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোকে মাত্র ২০ মিলিয়ন ইউরোতে এনে বড় চমক দিয়েছে ম্যান ইউনাইটেড। তার আগে নিয়ে সেছিল ডর্টমুন্ড থেকে উইঙ্গার জেডন সাঞ্চো ও রিয়াল থেকে রাফায়েল ভারানকে। শেষ দিনে লিডসে চলে গেছেন উইঙ্গার ড্যানিয়েল জেমস। 

    ম্যান সিটি 

    ব্রিটিশ রেকর্ড ভেঙে অ্যাস্টন ভিলা থেকে ১০০ মিলিয়ন পাউন্ডে নিয়ে এসেছে জ্যাক গ্রিলিশকে। হ্যারি কেন, মেসি ও রোনালদোর জন্য চেষ্টা করলেও শেষ পর্যন্ত আর কোনো স্ট্রাইকার কেনেননি গার্দিওলা। 

    চেলসি 

    ইন্টার মিলান ৯৭ মিলিয়ন পাউন্ডে চেলসি নিয়ে এসেছে পুরনো মুখ রোমেলু লুকাকুকে। শেষ দিনে ধারে নিয়ে এসেছে অ্যাটলেটিকো মিডফিল্ডার সল নিগেজকে। 

    লিভারপুল 

    ইব্রাহিম কোনাতেকে ডিফেন্সে ব্যাকআপের জন্য আগেই নিয়ে এসেছিল তারা। ছেড়ে দিয়েছে শাকিরি ও ভিনালদামকে। 

    আর্সেনাল 

    এই মৌসুমে ইংলিশ লিগে সবচেয়ে বেশি খরচ করেছে আর্সেনাল। বেন হোয়াইট, লোকোঙ্গা, ওডেগার্ড, রামসডেলদের নিয়ে এসেছে তারা। শেষ দিনে বোলোনিয়া থেকে এসেছেন রাইটব্যাক তাকেহিরো তুমিয়াসো। অবশ্য শেষ দিনে ধারে গেছেন আরেক রাইটব্যাক হেক্টর বেলেরিন। 

    টটেনহাম

    অনেক নাটকের পর হ্যারি কেইন থেকে গেছেন এবার টটেনহামে। ক্রিশ্চিয়ান রোমেরোকে নিয়ে এসেছে আটালান্টা থেকে। ওদিকে ব্রায়ান গিল এসেছেন সেভিয়া থেকে আর শেষ দিনে বার্সা থেকে এসেছেন রাইট ব্যাক এমারসন রয়্যাল। 

    বায়ার্ন মিউনিখ 

    আলাবাকে ছেড়ে দিলেও বায়ার্ন লাইপজিগ থেকে এনেছে মিডফিল্ডার মার্সেল সাবিতজার ও ডিফেন্ডার দায়োত উপামেকানোকে। চলে যাওয়ার গুঞ্জন উঠলেও থেকে গেছেন লেভানডফস্কি। 

    ইন্টার মিলান 

    এই মৌসুমের সিরি আ জয়ী ইন্টাড় মিলান ছেড়ে দিয়েছে লুকাকুকে, তবে থেকে গেছেন লতারো মার্তিনেজ। নিয়ে এসেছে ফরোয়ার্ড হোয়াকিন কোরেয়াকে লাৎসিও থেকে, ফ্রি ট্রান্সফারে এসেছেন হাকান শালানুলু, স্ট্রাইকার এডিন জেকো। 

    জুভেন্টাস

    রোনালদোকে ছেড়ে দিলেও জুভেন্টাস নিয়ে এসেছে স্ট্রাইকার ময়জে কিন ও মিডফিল্ডার ম্যানুয়েল লোকাতেল্লিকে। 

    এসি মিলান 

    অলিভিয়ের জিরুকে চেলসি থেকে এনেছে এসি মিলান। চেলসি থেকেই এসেছেন ডিফেন্ডার ফিকায়ো তোমোরি। 

    প্রিয় প্যাভিলিয়ন পাঠক, 

    কোভিড-১৯ মহামারি বিশ্বের আরও অনেক কিছুর মতো অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে ক্রীড়াঙ্গনকে। পরিবর্তিত এই পরিস্থিতিতে নতুন এক সংকটের মুখোমুখি হয়েছি আমরাও। প্যাভিলিয়নের নিয়মিত পাঠক এবং শুভানুধ্যায়ী হিসেবে আপনাদের কাছে অনুরোধ থাকবে আমাদের পাশে এসে দাঁড়ানোর। আপনার ছোট বা বড় যেকোনো রকম আর্থিক অনুদান আমাদের এই কঠিন সময়ে মূল্যবান অবদান রাখবে।

    ধন্যবাদান্তে,
    প্যাভিলিয়ন